নিজ দলের পাশাপাশি অন্য দলেও যে বার্তা দিতে চান শেখ মেহেদীরা

'এত বছর কষ্ট করে ক্রিকেট খেলছি...'

নতুন বলে স্পিন দিয়ে শুরু করার ঘটনা বাংলাদেশ ক্রিকেটে নতুন কিছু নয়। নিজেদের কন্ডিশনে কাজটা খুব বেশি করে টাইগাররা। সাম্প্রতিক সময়ে টি-টোয়েন্টিতে যে কাজটা করছেন শেখ মেহেদী হাসান। আর তাতে দলকে শুরুতে সাফল্যও এনে দিচ্ছেন নিয়মিত। টাইগার এই অলরাউন্ডার বলছেন টি-টোয়েন্টিতে শুরুতে এমন কিছু করতে পারলে দলকে উজ্জীবিত করা যায় দারুণভাবে। আর এর মাধ্যমে বাংলাদেশ সহ অন্যান্য দলেও একটা বার্তা দিতে চান।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৫ ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজ ৪-১ ব্যবধানে জিতেছে বাংলাদেশ। যেখানে বল হাতে স্পিনাররা রেখেছেন কার্যকর ভূমিকা। ৫ ম্যাচেই দলের বোলিং শুরু করেন অফ স্পিনার শেখ মেহেদী। ৩ ম্যাচেই আবার শুরুতেই দলকে এনে দেন ব্রেক থ্রু। প্রথম ম্যাচেতো অজি ওপেনার অ্যালেক্স ক্যারিকে ফেরান প্রথম বলেই।

নিউজিল্যান্ড সিরিজ সামনে রেখে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি চলছে টাইগারদের। ১ সেপ্টেম্বর মাঠে গড়াবে প্রথম ম্যাচ। তার আগে আজ (২৯ আগস্ট) বিসিবির পাঠানো এক ভিডিও বার্তায় কথা বলে শেখ মেহেদী।

বল হাতে শুরুর সাফল্য দলকে কতটা চাঙ্গা করতে পারে তা জানাতে গিয়ে বলেন,

‘আপনি যদি দলের বোলিং ইউনিট দেখেন, শুরুটা ভালো করতে পারলে অন্য বোলারদের আত্মবিশ্বাস বেড়ে যায়। টি-টোয়েন্টি খেলায় আসলে প্রথম দু-একটি ওভার দেখলেই বোঝা যাবে, কোন দিকে ম্যাচটি যাচ্ছে। আমাদের দলে যে বোলার আছে, তারা তাদের জায়গা থেকে খুব ভালো করছে।’

‘এভাবে চলতে থাকলে আমাদের বোলিং ইউনিট খুব ভালো একটা মেসেজ দিতে পারবে বাংলাদেশ দলে বাং অন্য দলগুলির জন্য। যেহেতু আমাদের দলে মুস্তাফিজ আছে, সাকিব ভাই আছে, শরিফুল খুব ভালো করছে। যার যার থেকে সবাই ভালো করছে এবং আমার নিজের আরও উন্নতি করতে হবে। বাংলাদেশকে দলকে সামনে এগিয়ে নেওয়ার জন্য নিজেকে আরও মেলে ধরতে হবে।’

নিজে নতুন বল কতটা উপভোগ করেন সেটা জানাতে গিয়ে যোগ করেন,

‘নতুন বলে বল করলে উপভোগ তো করতেই হয়। তবে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট, মাঝেমধ্যে মার খেলে তো উপভোগটা থাকে না। যেহেতু টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট, অনেক চিন্তা ভাবনা করে বল করতে হয়। কম সময়ের খেলা। তাৎক্ষনিক অনেক কিছু করতে হয়। সেক্ষেত্রে নতুন বলের ভূমিকাটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ।’

‘যদি আমি সফল হতে পারি, তাহলে দলের জন্য ভালো। পাওয়ার প্লে ভালোভাবে পার করে দেওয়া যায়। দেখা গেলে আপনি একটা ওভার ভালো করতে পারলে অন্য প্রান্ত থেকে বেশি রান হতে পারে। এই কম্বিনেশনটা ধরে রেখে বল করতে হয়। দলের মূল অফ স্পিনার হিসেবে দায়িত্ব তো থাকেই।’

‘এছাড়াও আমাদের দলে আরও অলরাউন্ডার আছেন, যারা অফ স্পিন করে থাকেন, রিয়াদ ভাই, মোসাদ্দেক, আফিফ। মূল অফ স্পিনার হিসেবে আমার তো একটু দায়িত্ব থাকেই।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বিশ্বকাপ ভাবনায় সাকিব-মুস্তাফিজের আইপিএল খেলাকে ইতিবাচক বলছে বিসিবি

Read Next

উপরে ব্যাটিংয়ের সুযোগ কাজে লাগাতে না পারার আক্ষেপ শেখ মেহেদীর

Total
1
Share