লর্ডসে ক্ল্যাসিক টেস্ট, শেষ হাসি ভারতের

লর্ডসে ক্ল্যাসিক টেস্ট, শেষ হাসি ভারতের

চতুর্থ দিন শেষে হাতে ৪ উইকেট নিয়ে ১৫৪ রানের লিড ছিল ভারতের। পঞ্চম দিন নতুন বলে দ্রুতই ভারতের লেজ ছেঁটে ফেলে সহজ লক্ষ্য পাবে ইংল্যান্ড। দৃশ্যপটটা এমনই ছিল, ইংলিশ পেসার ওলি রবিনসন সকালের শুরুটা করেছেন সেভাবে। তবে মোহাম্মদ শামি ও জাসপ্রীত বুমরাহ’র ৮৯ রানের ৯ম উইকেট জুটিতে বদলে যায় সমীকরণ। দুই সেশনের কম সময়ে ইংল্যান্ডকে অল আউট করে ভারত পেল দুর্দান্ত এক জয়। ভারতীয় পেসাররা দেখিয়েছে দুর্দান্ত প্রতাপ।

৬ উইকেটে ১৮১ রান নিয়ে দিন শুরু করা ভারত ৮ উইকেটে ২৯৮ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা করে। ইংল্যান্ডের জন্য লক্ষ্য দাঁড়ায় ২৭২। মোহাম্মদ সিরাজ, ইশান্ত শর্মা, মোহাম্মদ শামিদের তোপে ৫১.৫ ওভারে ১২০ রানেই গুটিয়ে গেল স্বাগতিকরা।

রিশাব পান্ট ১৪ ও ইশান্ত শর্মা ৪ রান নিয়ে দিন শুরু করেন। দ্রুত রান তুলতে পান্ট আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ের আভাস দেন। তবে টিকেননি বেশিক্ষণ ২২ রান করে ফিরেছেন রবিনসনের প্রথম শিকার হয়ে। পান্টের পর ১৬ রান করা ইশান্তকেও ফেরান এই ইংলিশ ডানহাতি পেসার।

২০৯ রানে ৮ উইকেট হারানো ভারতকে জয়ের মঞ্চ তৈরি করে দেয় ৯ম উইকেটে শামি-বুমরাহর ৮৯ রানের জুটি। ৭০ বলে ৬ চার ১ ছক্কায় শামি ৫৬ ও ৬৪ বলে ৩ চারে ৩৪ রানে অপরাজিত ছিল বুমরাহ। লাঞ্চের আগে ৮ উইকেতে ২৯৮ রান তোলা ভারত ইনিংস ঘোষণা করলে ইংল্যান্ডের লক্ষ্য ২৭২।

দুই সেশন ও ৬০ ওভারে পাওয়া এই লক্ষ্য যে বেশ কঠিন তা বলার অপেক্ষা রাখেনা। চতুর্থ দিন জয়ের স্বপ্ন দেখা ইংলিশরা ব্যাত করতে নামে অন্তত ড্র করতে। ভারতীয় বোলিং আক্রমণের সামনে সেটিও সম্ভব হয়নি।

লক্ষ্য তাড়ায় মতান্তরে বলা উচিৎ ড্র করতে নেমে শুরু থেকেই ব্যাকফুটে স্বাগতিক ইংল্যান্ড। দুই ওপেনার ররি বার্নস ও ডমিনিক সিবলে ফিরেছেন কোনো রান না করেই। বার্নস পুড়েছেন বুমরাহর গতিতে এজ হয়ে, সিবলে কট বিহান্ড শামির বলে।

৪ বছর পর দলে জায়গা পেয়ে প্রথম ইনিংসে এক বলের বেশি টিকেননি। দলের প্রয়োজনীয় দ্বিতীয় ইনিংসেও ব্যক্তিগত ৪ রানে ফিরতে পারতেন হাসিব হামিদ। শামির বলে স্লিপে ক্যাচ দিয়ে বেঁচে গিয়েও বেশি দূর যেতে পারেননি।

৯ রান করে ইশান্ত শর্মার বলে এলবিডব্লিউ হলে অধিনায়ক জো রুটের সাথে ৪৩ রানের জুটি ভাঙে। জনি বেয়ারস্টো করতে পেরেছেন মাত্র ২ রান। ৬৭ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে লাঞ্চে যায় ইংল্যান্ড। ৩৩ রানে অপরাজিত জো রুট।

চা বিরতির পর আর কোনো রান যোগ করতে পারেনি রুট। বুমরাহর দ্বিতীয় শিকার হয়ে ফিরেছেন ইংলিশ কাপ্তান।

এরপর যা একটু লড়াই করেছেন জস বাটলার। তবে ব্যক্তিগত ৪ রানে স্লিপে ভিরাট কোহলি তার সহজ ক্যাচ না ছাড়লে ইংল্যান্ড পরাজয় বরণ করে নিত আরও আগেই।

জীবন পেয়ে দলকে ড্রয়ের স্বপ্ন দেখিয়েছেন বাটলার, প্রায় ৩০ ওভার ক্রিজে টিকেছিলেন। ৯৬ বল খেলে ২৫ রান করে অবশ্য আউট হয়েছেন ৯ম ব্যাটসম্যান হিসেবে। মোহাম্মদ সিরাজের অফ স্টাম্পের বেশ বাইরের অসময়ে খোঁচা দিয়ে কট বিহান্ড হন।

তার আগেই সিরাজ ফেরান মইন আলি (৪২ বলে ১৩) ও স্যাম কারেনকে (০)। এরপর জিমি অ্যান্ডারসনকে (০) বোল্ড করে ইংল্যান্ডের কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুকেছেন এই ডানহাতি পেসার। তখনো দিনের বাকি ৮.১ ওভার, ১২০ রানে গুটিয়ে ১৫১ রানের বড় হার স্বাগতিকদের। প্রথম ইনিংসে সেঞ্চুরি করা লোকেশ রাহুল পান ম্যাচসেরার পুরষ্কার।

লর্ডসে এই নিয়ে তৃতীয়বার ইংল্যান্ডকে টেস্ট হারালো ভারত। সব মিলিয়ে ইংল্যান্ডের মাটিতে ৮ম টেস্ট জয়ের দেখা পেল সফরকারীরা। পাঁচ ম্যাচ টেস্ট সিরিজে ভারত এগিয়ে গেল ১-০ ব্যবধানে, প্রথম টেস্ট হয়েছিল ড্র।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

নিউজিল্যান্ড সিরিজ সামনে রেখে ক্রিকেটারদের উপর বিসিবির বিধি নিষেধ

Read Next

পাকিস্তান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সম্মান পেলেন ৪ ক্রিকেটার

Total
1
Share