লর্ডসে এগিয়ে ভারত, লড়ছেন ইংলিশ অধিনায়ক

লর্ডসে এগিয়ে ভারত, লড়ছেন ইংলিশ অধিনায়ক

চোটের কারণে লর্ডস টেস্টে অনিশ্চিত ছিলেন, শেষ মুহূর্তে অবশ্য ঠিকই একাদশে দেখা যায় জিমি অ্যান্ডারসনকে। ব্যস এতটুকুই কেবল অনিশ্চয়তা। এরপর মাঠে নামলেন, বড় সংগ্রহের পথে হাঁটা ভারতকে আটকালেন। ৩৯ বছর পেরিয়েও অ্যান্ডারসন যেন চির তরুণ। তবে দ্বিতীয় দিন শেষেও সুবিধা জনক অবস্থায় সফরকারী ভারতই।

৩ উইকেটে ২৭৬ রান নিয়ে দিন শুরু করা ভারত দ্বিতীয় দিন চা বিরতির আগেই অল আউট ৩৬৪ রানে। ১২৯ রানে থামতে হয় লোকেশ রাহুলকে। রবীন্দ্র জাদেজা ৪০, রিশাব পান্ট করেন ৩৭ রান।

যেখানে অ্যান্ডারসনের শিকার ৬২ রানে ৫ উইকেট। দুইটি করে শিকার ওলি রবিনসন ও মার্ক উডের।

জবাবে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ইংলিশরা ৩ উইকেটে ১১৯ রান তুলে দিন শেষ করে। অধিনায়ক জো রুট অপরাজিত আছেন ৪৬ রানে, ৪৯ রান করে আউট হন ররি বার্নস।

১২৭ রান নিয়ে লোকেশ রাহুল ও ১ রান নিয়ে দিন শুরু করেন অজিঙ্কা রাহানে। ওলি রবিনসনের করা দিনের প্রথম বলে ২ রান নেন রাহুল, তবে পরের বলেই ফিরেছেন ডমিনিক সিবলেকে ক্যাচ দিয়ে। আগেরদিনই লর্ডসের অনার্স বোর্ডে নাম লেখিয়ে রাহুল থেমেছেন ২৫০ বলে ১২ চার ১ ছক্কায় ১২৯ রানে।

৪ রানের ব্যবধানে জিমি অ্যান্ডারসন ফেরান রাহানেকে (১)। অফ স্টাম্পের বাইরে পিচড হওয়া ডেলিভারিতে ক্যাচ দেন স্লিপে জো রুটকে। এরপর রিশাব পান্ট ও রবীন্দ্র জাদেজার ৪৯ রানের জুটি। দারুণ কিছু শটে ৫৮ বলে ৩৭ রান করেন পান্ট। ফিরেছেন মার্ক উডের নিরীহ ডেলিভারিতে অলস কাট শট খেলতে গিয়ে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে।

এরপর জাদেজা একপাশ আগলে রাখলেও অন্য প্রান্তে ব্যর্থ হন মোহাম্মদ শামি (০), ইশান্ত শর্মা (৮) ও জাসপ্রীত বুমরাহ (০)। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে জাদেজা ফেরেন উডের দ্বিতীয় শিকার হয়ে। ১২০ বলে ৩ চারে তার ব্যাট থেকে আসে ৪০ রান। তার আগেই বুমরাহকে কট বিহাইন্ড বানিয়ে টেস্ট ক্রিকেটে ৩১তম পাঁচ উইকেট শিকার করেন অ্যান্ডারসন।

এ নিয়ে লর্ডসে ভারতের বিপক্ষে ৯ ইনিংস বল করে অ্যান্ডারসনের উইকেট ৩৩ টি। যেখানে ইনিংসে পাঁচ উইকেট শিকার চতুর্থবার।

৩৯ বছর বয়সী অ্যান্ডারসনই গত ৭০ বছরে সবচেয়ে বেশি বয়সী পাঁচ উইকেট শিকারি। এই নিয়ে লর্ডসের অনার্স বোর্ডে তার নাম উঠলো ৭ বার, সর্বোচ্চ ৮ বার উঠেছে ইয়ান বোথামের নাম।

৮৮ রানের ব্যবধানে ৭ উইকেট হারিয়ে ৩৬৪ রানেই থামে ভারতের প্রথম ইনিংস। জবাবে ২৩ রানেই ২ উইকেট হারিয়ে বসে ইংলিশরা। ইনিংসের ১৫তম ওভারে মোহাম্মদ সিরাজ এনে দেন জোড়া সাফল্য।

ওপেনার ডমিনিক সিবলেকে (৪৪ বলে ১১) লোকেশ রাহুলের ক্যাচে পরিণত করার পরের বলেই গোল্ডেন ডাক উপহার দেন হাসিব হামিদকে। ৪ বছর পর টেস্ট দলে জায়গা পেয়ে প্রথম বলেই বোল্ড হলেন এই ডানহাতি।

এরপর অবশ্য আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান অধিনায়ক জো রুট ও আরেক ওপেনার ররি বার্নস ভালোই সামলেছেন ভারতীয় বোলারদের। দুজনে মিলে জুটিতে যোগ করেন ৮৫ রান। দিনের শেষ ভাগে বার্নসকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন মোহাম্মদ শামি। ১৩৬ বলে ৭ চারে সাজান ৪৯ রানের ইনিংসটি।

শেষ পর্যন্ত জনি বেয়ারস্টোকে নিয়ে দিন শেষ করেন রুট। ৩ উইকেটে ইংলিশদের সংগ্রহ ১১৯। এখনো ভারতের চেয়ে পিছিয়ে ২৪৫ রানে। ৭৫ বলে ৬ চারে ৪৮ রানে রুট ও ৬ রানে অপরাজিত আছেন বেয়ারস্টো।

এদিন গ্রাহ গুচকে (৮৯০০) পেছনে ফেলে ইংল্যান্ডের হয়ে টেস্টে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক বনে যান রুট (৮৯০৫)। ১২৪৭২ রান নিয়ে সবার উপরে স্যার অ্যালিস্টার কুক।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

লর্ডসে ‘বুড়ো’ হাড়ের ভেলকি দেখালেন অ্যান্ডারসন

Read Next

চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে গিয়েও ক্রিকেটে মজেছেন আবুল হাসান রাজু

Total
13
Share