সাকিবের ভূতুড়ে ওভার নয়, মাহমুদউল্লাহর কাঠগড়ায় ব্যাটসম্যানরা

সাকিবের ভূতুড়ে ওভার নয়, মাহমুদউল্লাহর কাঠগড়ায় ব্যাটসম্যানরা

১০৪ রানের পুঁজি নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে চতুর্থ টি-টোয়েন্টি লড়াই করে বাংলাদেশ হেরেছে ৩ উইকেটে। যে ম্যাচে সাকিব আল হাসান এক ওভারেই দেন ৩০, ৪ ওভারের স্পেলে ৫০। তবে ম্যাচ শেষে অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বলছেন এমনটা হতেই পারে। যদিও আক্ষেপ ঝরেছে নিজেদের ইনিংসে ১০-১৫ রান কম করার।

প্রথম ৩ ম্যাচ জিতে সিরিজ আগেই নিশ্চিত করে বাংলাদেশ। সবকটি ম্যাচই হয়েছে লো স্কোরিং, সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ বাংলাদেশের ১৩১। আজ (৬ আগস্ট) মিরপুরের যে পিচে খেলা হয়েছে সেটি ১৩০ রানের বলেছে ধারাভাষ্যকার পারভেজ মাহরুফ।

ব্যাটিং ব্যর্থতায় বাংলাদেশ করতে পেরেছে ১০৪ রান। এমন পুঁজিতেও সাকিব এক ওভারে হজম করেন পাঁচ ছক্কা। ড্যান ক্রিশ্চিয়ানের ভয়ংকর রূপ নেওয়া ঐ ওভার ছাড়াও সাকিব বাকি ৩ ওভারে দেন ২০ রান। অর্থাৎ নিজেদের পুঁজির প্রায় অর্ধেক রান বোলিং ইনিংসে একাই দেন সাকিব।

সাকিবের এমন বোলিং য়ের পরও মুস্তাফিজুর রহমান, শরিফুল ইসলাম, শেখ মেহেদী হাসান অরা কঠিন পরীক্ষা নেন অজিদের। ৬৫ রানেই হারায় ৬ উইকেট, শেষ পর্যন্ত অ্যাশটন আগার ও অ্যাশটন টার্নারের ব্যাটে ৩ উইকেটের জয় সফরকারীদের।

ম্যাচ শেষে সাকিবকে দোষ না দিয়ে নিজেদের ব্যাটিং ইনিংসে ব্যর্থতাকেই সামনে আনলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘সাকিবের ওভারটা গুরুত্বপূর্ণ ছিল। ওই ওভারে উইকেট পেলে পরিস্থিতি পাল্টে যেত। ড্যান ক্রিশ্চিয়ান ক্রিজে এসেই দ্রুত রান করেছে, টানা ৪ (আসলে ৩) ছক্কা মেরেছে। টি-টোয়েন্টি ম্যাচে এমন হতে পারে। আমরা জানি সাকিব চ্যাম্পিয়ন বোলার। সে ভালো ভাবেই ঘুরে দাঁড়াবে।’

‘এই মাঠে রান তাড়া করা সবসময়ই কঠিন। তাই আমরা আগে ব্যাট করেছি। আমরা মনে হয় উইকেট ভালো মতো বুঝতে পারিনি। এই উইকেটে ১২০ রান হলে ভালো হতো। আমরা ১০-১৫ রান কম করেছি। এর মধ্যেও বোলাররা ভালো করেছে। এই রান নিয়েও খেলাটা আমরা ১৯তম ওভারে এনেছি। তবে ব্যাটসম্যানদের আরও সতর্ক ও বুদ্ধিদীপ্ত ব্যাটিং করতে হবে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

লো স্কোরিং ম্যাচে জয়ের মুখ দেখল অস্ট্রেলিয়া

Read Next

ক্রিশ্চিয়ানের লক্ষ্য ছিল না সাকিব, তবুও…

Total
7
Share