শরিফুলের পরিবার শূন্যতা ভুলিয়ে দিচ্ছেন সতীর্থরা

রুবেলের প্রশ্ন, শরিফুলের উত্তর

পেশাদার ক্রিকেটারদের জন্য পরিবার ছেড়ে থাকাটা খেলোয়াড়ি জীবনে স্বাভাবিক বিষয়। জিম্বাবুয়ে সফরে যাওয়া বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারার ঈদুল আযহায় পাশে পায়নি পরিবারকে। সিনিয়র ও অভিজ্ঞরা আগেই এসবে অভ্যস্ত হলেও তরুণদের জন্য কিছুটা কষ্টের হওয়ার কথা ছিল। তবে বাঁহাতি পেসার শরিফুল ইসলাম বলছেন সতীর্থরা সে অভাব ভুলিয়ে দিয়েছেন।

খেলোয়াড়ি জীবনে ক্রিকেটাররা পরিবারের চাইতে বেশি সময় কাটায় সতীর্থদের সাথে। নিজেদের মাঝে সম্পর্কগুলো পরিবারের চেয়ে কোনো অংশে কম হয়না। সুখে-দুঃখে সতীর্থদেরই সবার আগে পাশে পান, বিদেশ সফরেও তারাই পরিবারের শূন্যতা দূর করেন, অনুপ্রেরণা দেন।

ধর্মীয় উৎসবগুলো খুব বেশি পরিবারকে পাশে পাওয়া হয়না ক্রিকেটারদের। জিম্বাবুয়ে সফরের দলে থাকা টাইগার ক্রিকেটাররা এবার যেমন মিস করেছেন সদ্য সমাপ্ত ঈদুল আযহা।

জাতীয় দলের হয়ে প্রথমবার বিদেশে ঈদ করতে গিয়ে বাঁহাতি পেসার শরিফুল ইসলাম অবশ্য সে অভাব একদমই অনুভব করেন নি। নিজের ছোট বেলার স্বপ্নের ক্রিকেটারদের সাথে একই ড্রেসিং রুম ভাগাভাগি করছেন বলে উচ্ছ্বসিত এই পেসার।

আজ (২৪ জুলাই) বিসিবির পাঠানো এক ভিডিও বার্তায় ২০ বছর বয়সী এই পেসার বলেন, ‘যখন ছোট ছিলাম, ক্লাস থ্রি ফোরে পড়তাম তখন সবার খেলা দেখছি। তামিম, সাকিব, মুশফিক, রিয়াদ ভাই সবার খেলা দেখছি। এখন তাদের সঙ্গে খেলতেছি এটা একটা স্বপ্ন। তাদের সঙ্গে এখন আল্লাহর রহমতে খুব ভালো সম্পর্ক হয়ে গেছে। সবাই আমরা একটা পরিবারের মতো হয়ে আছি। মনে হয় না যে পরিবারের বাইরে আছি।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

শামীমকে নিয়ে জাতীয় দলে দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে চান শরিফুল

Read Next

কোচের মতই শরিফুলকে তালিম দিচ্ছেন মুস্তাফিজ

Total
1
Share