বাংলাদেশকে বড় লক্ষ্য ছুঁড়ে দিল জিম্বাবুয়ে

বাংলাদেশকে বড় লক্ষ্য ছুঁড়ে দিল জিম্বাবুয়ে

সিরিজ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে হারারেতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে ১৬৬ রান টপকাতে হবে বাংলাদেশকে।  তরুণ ওয়েসলি মাধেব্রের ৭৩ রানের ইনিংসের সাথে রায়ান বার্লের অপরাজিত ১৯ বলে ৩৪ রানের ক্যামিও। প্রথম ম্যাচে জয় পাওয়া বাংলাদেশের চাইতে ম্যাচটি বেশি গুরুত্বপূর্ণ স্বাগতিকদের জন্য। সফরে এখনো বাংলাদেশকে কোনো পরাজয়ের স্বাদ দিতে পারেনি।

হারারে স্পোর্টস ক্লাবে দুই দলই একাদশে দুইটি করে পরিবর্তন নিয়ে নেমেছে। চোটের কারণে বাংলাদেশ একাদশের বাইরে লিটন দাস, বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে মুস্তাফিজুর রহমানকে। টি-টোয়েন্টি অভিষেক হচ্ছে শামীম হোসেনের, একাদশে ফিরেছেন তাসকিন আহমেদ।

টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় স্বাগতিক জিম্বাবুয়ে। উদ্বোধনী টিকেছে মাত্র ১.৫ ওভার। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে শেখ মেহেদী হাসানের প্রথম দুই বলেই ছক্কা ও চার হাঁকান ওয়েসলি মাধেব্রে। তবে পঞ্চম বলে পরিষ্কার বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফিরতে হয় আরেক ওপেনার তাদিওয়ানাশে মারুমানিকে (৫ বলে ৩)।

মারুমানির উইকেট হারালেও মাধেব্রে ও তিন নম্বরে নামা রেজিস চাকাবভা রানের চাকা সচল রাখার চেষ্টা করেন। পাওয়ার প্লের ৬ ওভারে আসে ৪৮ রান। তবে তার আগেই বিদায় নেন চাকাবভা।

চতুর্থ ওভারে আক্রমণে আসা শরিফুল ইসলামকেও চার, ছক্কা দিয়ে অভ্যর্থনা জানায় চাকাবভা ও মাধেব্রে। ৬ষ্ঠ ওভারে বল হাতে নিয়ে সাকিব আল হাসান ফেরান চাকাবভাকে। শরিফুলকে ক্যাচ দিয়েছেন ৯ বলে ১৪ রান করে।

অবশ্য ফিরতে পারতেন খালি হাতেই, তাসকিন আহমেদের বলে ঠিকঠাক পুল করতে না পেরে ক্যাচ তুলে দিলেও দৌড়ে আসা শরিফুল ও শেখ মেহেদী কেউই কল করেনি, চেষ্টা করেনি ধরারও।

৪২ রানে ২ উইকেট হারালেও ওয়েসলি মাধেব্রের ব্যাটে পথেই ছিল জিম্বাবুয়ে। ডিওন মায়ের্সকে নিয়ে ৫৭ রানের জুটি। তাসকিন আহমেদের করা ১১তম ওভারে অবশ্য জুটি ভাঙার সুযোগ পেয়েছিল বাংলাদেশ।

নাইম শেখ সরাসরি থ্রোতে স্টাম্প ভাঙতে পারেননি। ১ বলের ব্যবধানে আরও একবার দোটানায় ভুগে রান আউট থেকে বেঁচে যায় মাধেব্রে।

২১ বলে ২৬ রান করে শরিফুলের বলে শেখ মেহেদীকে পয়েন্টে ক্যাচ দেন মায়ের্স, তাতে ভাঙে জুটি। এর আগেই অবশ্য ৪৫ বলে ক্যারিয়ারের তৃতীয় টি-টোয়েন্টির দেখা পান মাধেব্রে।

তরুণ এই ব্যাটসম্যান পরে খেলেছেন আরও হাত খুলে, ১৫তম ওভারে তাসকিনকে লং অন দিয়ে হাঁকানো ছক্কায় নিজের সামর্থ্যকে করেছেন পোক্ত। সাকিবের দারুণ কৌশলী চেষ্টায় সিকান্দার রাজা রান আউটে ফিরেছেন ৪ রান করে।

শরিফুলের করা ১৮তম ওভারে ফিরেছেন মাধেব্রেও, ৫৭ বলে ৫ চার ৩ ছক্কায় ক্যারিয়ার সেরা ৭৩ রানের ইনিংস খেলে ক্যাচ দেন আফিফ হোসেনকে।

১৪৯ রানে ৫ উইকেট হারানো জিম্বাবুয়ে ৬ উইকেটে ১৬৬ রানের বড় সংগ্রহ পেল শেষ দিকে রায়ান বার্লের ১৯ বলে অপরাজিত ৩৪ রানে ভর করে। শেষ ওভারের শেষ বলে লুইক জঙ্গেকে (২) সাকিবের ক্যাচে পরিণত করে টাইগারদের সেরা বোলার শরিফুল। ৩৩ রানে তার শিকার ৩ উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর (১ম ইনিংস শেষে):

জিম্বাবুয়ে ১৬৬/৬ (২০), মারুমানি ৩, মাধেভ্রে ৭৩, চাকাবভা ১৪, মায়ের্স ২৬, রাজা ৪, বার্ল ৩৪*, জঙ্গে ২; মেহেদী ১-০-১১-১, শরিফুল ৪-০-৩৩-৩, সাকিব ৪-০-৩২-১।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

সিরিজ জয়ের মিশনে আগে বোলিংয়ে বাংলাদেশ

Read Next

ব্যাটিং ব্যর্থতায় হেরে বসল বাংলাদেশ

Total
4
Share