জিম্বাবুয়ের ইনিংসের শুরু ও শেষে অমিল

জিম্বাবুয়ের ইনিংসের শুরু ও শেষে অমিল

ওয়ানডে সিরিজের মত প্রথম টি-টোয়েন্টিতেও জিম্বাবুয়ের ব্যাটিং ইনিংসের চিত্র একই রকম। দারুণ শুরু পেয়ে বড় সংগ্রহের পথে হেঁটেও হঠাৎ ছন্দ পতন। হারারেতে আজ (২২ জুলাই) আগে ব্যাট করে ১৫২ রানেই গুটিয়ে গেছে স্বাগতিকরা, ইনিংসের মাঝপথেই নিয়ন্ত্রণ নিজের দিকে নিয়ে নেয় বাংলাদেশী বোলাররা।

প্রথম ১০ ওভারে ২ উইকেটে ৯১ রান তোলার পরেও ১৯ ওভারেই অলআউট হওয়া জিম্বাবুয়ের স্কোরবোর্ডে রান ১৫২! রান আউটে কাটা পড়ে রেজিস চাকাবভার ঝড় থামার পরই মূলত ধীর হয়ে যায় জিম্বাবুয়ে ইনিংস। তার ২২ বলে ৪৩ রানের সাথে ডিওন মায়ের্সের ৩৫ রান।

ইনিংসের দ্বিতীয় ওভাররেই ব্রেক থ্রু এনে দেন মুস্তাফিজুর রহমান। ওপেনার তাদিওয়ানাশেকে (৭ বলে ৭) সৌম্য সরকারের ক্যাচে পরিণত করেন। ডিপ মিড উইকেটে খুব সহজ ক্যাচ ছিল না সৌম্যের জন্য।

দলীয় ১০ রানে প্রথম উইকেট হারালেও ওপেনার ওয়েস্লি মাধেব্রেকে নিয়ে তিন নম্বরে নামা রেজিস চাকাবভা মোটামুটি একট ঝড় বইয়ে দেন। ৩৭ বলের জুটিতে যোগ করেন ৬৪ রান, যার ৪৩ এসেছে তার ব্যাট থেকে।

আউট হওয়ার আগে জুটিতে চাকাবভা নিয়মিত হাঁকিয়েছেন বাউন্ডারি। ৮ম ওভারে স্পিনার শেখ মেহেদী হাসানকে হাঁকান ১ চার ও টানা ২ ছক্কা।

তবে সাকিবের করা পরের ওভারেই মাধেব্রে ফিরতি ক্যাচ দিলে ভাঙে জুটি। ২৩ বলে এই তরুণের ব্যাট থেকে আসে ২৩ রান। নতুন ব্যাটসম্যান ডিওন মায়ের্স ক্রিজে এসেও সাবলীল ব্যাত করেন। ১০ ওভারেই জিম্বাবুয়ের স্কোরবোর্ডে ৯১ রান।

শরিফুল ইসলামের করা ১১তম ওভারেই দুই উইকেট হারায় স্বাগতিকরা। বিপর্যয়ের শুরুও সেখান থেকে। ওভারের প্রথম বলে উইকেট রক্ষক নুরুল হাসান সোহানের দারুণ এক থ্রোতে ফিরতে হয় ভয়ঙ্কর রূপ নেওয়ার অপেক্ষায় থাকা চাকাবভাকে।

থেমেছেন ২২ বলে ৫ চার, ২ ছক্কায় ৪৩ রান। নতুন ব্যাটসম্যান সিকান্দার রাজা টিকেছেন ৩ বল, কোনো রান না করেই ক্যাচ দেন সোহানকে।

রান তোলার গতিতে পড়ে ভাটা, অভিষিক্ত তারিসাই মুসাকান্দাকে ৬ রানেই থামান সৌম্য সরকার। ২২ বলে ৩৫ রান করা ডিওন মায়ের্সকে বোল্ড করে নিজের দ্বিতীয় শিকার শরিফুলের। ১১৯ রানেই ৬ উইকেট নেই জিম্বাবুয়ের।

আর তাতেই বড় সংগ্রহের ইঙ্গিত দিয়েও বেশি দূর যেতে পারেনি স্বাগতিকরা। নিয়মিত বিরতিতে হারিয়েছে উইকেট। ১৯ ওভারে অলআউট হয়ে থেমেছে ১৫২ রানে। ৬১ রানে পড়েছে শেষ ৮ উইকেট।

১ রানে জীবন পাওয়া লুক জঙ্গে ১৬ বলে ১৮ রান করে। এর বাইরে বলার মত রান ছিল না শেষদিকের কোন ব্যাটসম্যানের নামের পাশে।

বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট মুস্তাফিজের, ২ টি করে নেন সাইফউদ্দিন, শরিফুল, একটি করে শিকার সাকিব ও সৌম্যের।

সংক্ষিপ্ত স্কোর (১ম ইনিংস শেষে):

জিম্বাবুয়ে ১৫২/১০ (১৯), মাধেভ্রে ২৩, মারুমানি ৭, চাকাবভা ৪৩, মায়ের্স ৩৫, রাজা ০, মুসাকান্দা ৬, বার্ল ৪, জঙ্গে ১৮, মাসাকাদজা ৪*, এনগারাভা ০, মুজারাবানি ৮; সাইফউদ্দিন ৪-০-২৩-২, মুস্তাফিজ ৪-০-৩১-৩, সাকিব ৪-০-২৮-১, শরিফুল ৩-০-১৭-২, সৌম্য ২-০-১৮-১।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ে জিম্বাবুয়ে

Read Next

ম্যাচ ফি’র সাথে সুপার লিগ পয়েন্ট হারাল শ্রীলঙ্কা

Total
1
Share