ওয়ানডেতে টেস্টের প্রক্রিয়া প্রয়োগ করে সফল হলেন লিটন

ওয়ানডেতে টেস্টের প্রক্রিয়া প্রয়োগ করে সফল হলেন লিটন

হারারে স্পোর্টস ক্লাবের পেস বান্ধব উইকেটে আগে ব্যাট করা বেশ কঠিন কাজ সবারই জানা। জেনেও অবশ্য লাভ হয়নি বাংলাদেশের, শুরুর ব্যাটিং বিপর্যয় এড়ানো যায়নি প্রথম ওয়ানডেতে। দলের বাজে সময় দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরিতে টেনে তুলেছেন লিটন দাস। তার ব্যাটে চড়ে বড় সংগ্রহের পর রেকর্ড গড়ে বিশাল জয় পায় বাংলাদেশ। ম্যাচের পরিস্থিতি বুঝে টেস্টের প্রক্রিয়া প্রয়োগেই সফল হয়েছেন বলছেন লিটন।

ব্লেসিং মুজারাবানি, টেন্ডাই চাতারাদের তোপে ৭৪ রানেই নেই ৪ উইকেট। তবে এক প্রান্ত আগলে ছিলেন ওপেনার লিটন দাস। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে নিয়ে ৯৩ রানের জুটিতে বিপর্যয় কাটান, পরিস্থিতি সামলে তুলে নেন ক্যারিয়ারের চতুর্থ সেঞ্চুরি। শেষদিকে আফিফ হোসেন, মেহেদী হাসান মিরাজদের নৈপুণ্যে ২৭৬ রানের পুঁজি স্কোরবোর্ডে।

সাকিব আল হাসানের তৃতীয়বার ৫ উইকেতে শিকারের দিনে ১২১ রানেই থেমেছে স্বাগতিকরা। দেশের বাইরে সবচেয়ে বড় ১৫৫ রানের জয় পেল টাইগাররা।

লিটন শুরুতে পরিস্থিতি সামাল দিতে খেলেছেন ধীরে, ফিফটি ছুঁয়েছেন ৭৮ বলে। তবে ভীত শক্ত করে সেঞ্চুরিতে পৌঁছেছেন ১১০ বলে, অর্থাৎ পরের ফিফটি এসেছে মাত্র ৩২ বলে। শেষ পর্যন্ত ১১৪ বলে ১০২ রান করে আউট হয়েছেন।

ম্যাচ সেরার পুরষ্কার জেতা এই উইকেট রক্ষক ব্যাটসম্যান সংবাদ সম্মেলনে নিজের ইনিংসটিকে বর্ণনা করতে গিয়ে বলেন, ‘আজকে কন্ডিশন ব্যাটিং সহায়ক ছিল না। প্রথম ২০ ওভার। আবহাওয়া ও ওদের বোলারদের বোলিং মিলিয়ে কঠিন কন্ডিশন ছিল। আমি এমনিতেও ম্যাচের আগে একটু চাপে ছিলাম যে অনেকদিন ধরে রড় রান করতে পারছি না। পাশাপাশি অপরপ্রান্ত থেকে যখন দেখছিলাম উইকেট পড়ছে, দল চাপে, দলকে একটা ভাল অবস্থানে নেয়ার দায়িত্ব আমার ছিল।’

‘ওভারঅল আমি ওখানে কিছু কাজ করেছি যে উইকেটে থাকতে হবে। চেষ্টা করেছি ২০-২৫ ওভার পর্যন্ত টেস্ট ব্যাটিং করে যাওয়ার। চিন্তা করেছি যে কন্ডিশন এখন আমার অনুকূলে না, এখান থেকে রিকভার করতে হলে উইকেটে থাকতে হবে তখন আমি পরের ধাপে যেতে পারবো। রিয়াদ ভাই আসার পর খেলাটা বদলে যায়, ওরা যখন স্পিন আনে তখন পিচে ব্যাটিং করাও সহজ হয়।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

মাশরাফিকে টপকে রেকর্ড গড়া সাকিব টপকেছেন ডোনাল্ড-ক্যালিসদেরও

Read Next

দুঃসময় কাটিয়ে লিটনের ফেরার নৈপথ্যে স্ত্রী, পরিবারের সমর্থন

Total
1
Share