প্রস্তুতি ম্যাচে বাংলাদেশের বড় সংগ্রহ

প্রস্তুতি ম্যাচে বাংলাদেশের বড় সংগ্রহ

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ শুরুর আগে একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল তামিম ইকবালের জন্য। টাইগারদের ওয়ানডে অধিনায়ক মূল সিরিজের আগে কতটা ফিট তা দেখার অন্যতম বড় সুযোগ জিম্বাবুয়ে নির্বাচিত একাদশের বিপক্ষে ম্যাচটি। আগে ব্যাট করা বাংলাদেশ তামিমের ব্যাটিংয়ে আশার আলোই দেখছে।

ওপেন করতে নেমে টাইগার কাপ্তান হাঁকিয়েছেন ফিফটি। দারুণ সব শটে দলের পক্ষে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চও এসেছে তার ব্যাট থেকে। বাংলাদেশ পেয়েছে ৬ উইকেটে ২৯৬ রানের সংগ্রহ।

তামিমের ৬৬ রানের ইনিংসের সাথে ত্রিশোর্ধ্ব ইনিংস আছে সাকিব আল হাসান ও স্বেচ্ছায় অবসরে যাওয়া মোহাম্মদ মিঠুন এবং মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের।

পারিবারিক কারণে আজই (১৪ জুলাই) দেশে ফিরে আসছেন মুশফিকুর রহিম। প্রস্তুতি ম্যাচের দলে তার না থাকাটাই স্বাভাবিক। তবে ছিলেন না মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও।

আগে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশের দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও মোহাম্মদ নাইম শেখ ১৭ ওভার স্থায়ী জুটিতে তোলেন ৮৭ রান। চোট নিয়ে বিপাকে পড়া তামিম ওয়ানডে সিরিজের আগে কতটা ফিট হচ্ছেন তার পরীক্ষাও বলা যায় আজকের প্রস্তুতি ম্যাচ।

৫২ বলে ২৫ রান করে নাইম আউট হলে ভাঙে দুজনের জুটি। তবে শুরুর জড়তা কাটিয়ে তামিম ছিলেন চেনা ছন্দে। প্রথম ২৬ বলে ১৩ রান করা এই বাঁহাতি ৪৫ বলে তুলে নেন ফিফটি।

নাইমের বিদায়ের পর সাকিব আল হাসানের সাথে ২৩ রানের জুটি। এ দফায় তামিম আউট হলে ভাঙে জুটি। ৬২ বলে ১১ চার ১ ছক্কায় ৬৬ রান করে ওয়েস্লে মাধেব্রের বলে ফিরেছেন সিকান্দার রাজাকে ক্যাচ দিয়ে।

৮ রানের ব্যবধানে নতুন ব্যাটসম্যান লিটন দাসকেও ফেরান মাধেব্রে। ৬ বলে ২ রানের বেশি করতে পারেননি লিটন। ১১৮ রানে ৩ উইকেট হারায় বাংলাদেশ।

যদিও সাকিবের সাথে মোহাম্মদ মিঠুনের চতুর্থ উইকেট জুটিতে পথেই ছিল বাংলাদেশ। ৩১তম ওভারেই দলীয় রান ১৫০ পেরোয়। ২৯তম ওভারে মিঠুন রায়ান বার্লকে পরপর দুই বলে হাঁকান চার, ছক্কা।

দুজনের ৭২ রানের জুটি ভাঙে ফারাজ আকরামের বলে ডিওন মায়ের্সকে সাকিব ক্যাচ দিলে। ৬০ বলে তার ব্যাট থেকে আসে ৩৭ রান। বাকিদের সুযোগ দিতে মোহাম্মদ মিঠুনও ৪২ বলে ৩৯ রান করে স্বেচ্ছায় অবসরে যান।

আফিফ হোসেনকে নিয়ে ৫০ রানের জুটি গড়ে স্বেচ্ছায় অবসরে যান মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতও। তার আগে করেছেন ৩০ বলে ৩ চার ২ ছক্কায় ৩৬ রান। আফিফ অবশ্য আউট হয়েছেন এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়েন তানাকা শিভাঙ্গার বলে। তার ব্যাট থেকে আসে ২৩ বলে ৩ চার ১ ছক্কায় ২৮ রান।

শেষদিকে ফারাজ আকরামের বলে আউট হওয়ার আগে নুরুল হাসান সোহান করেছেন ১২ বলে ১৮ রান। ১০ বলে ১২ রান করে অপরাজিত ছিলেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। তাতেই বাংলাদেশের স্কোরবোর্ডে ৬ উইকেটে ২৯৬ রান।

জিম্বাবুয়ে নির্বাচিত একাদশের হয়ে ফারাজ আকরাম, ওয়েস্লি মাধেব্রে ও তানাকা শিভাঙ্গা সমান দুইটি করে উইকেট নেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর (১ম ইনিংস শেষে):

বাংলাদেশিস ২৯৬/৬ (৫০), তামিম ৬৬, নাইম ২৫, সাকিব ৩৭, লিটন ২, মিঠুন ৩৯ (রিটায়ার্ড নট আউট), মোসাদ্দেক ৩৬ (রিটায়ার্ড নট আউট), আফিফ ২৮, নুরুল ১৮, সাইফউদ্দিন ১২*, মিরাজ ৫*; আকরাম ১০-০-৭৩-২, শিভাঙ্গা ৮-১-৪৪-২, মাধেভ্রে ৪-০-১২-২।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

টি-টোয়েন্টি র‍্যাংকিংঃ সেরা দশে ঢুকলেন অ্যালেন

Read Next

জিম্বাবুয়ের রয় কায়ার বোলিং অ্যাকশন সন্দেহজনক

Total
4
Share