সাহায্যের জন্য পোলার্ড, ব্রাভোর প্রশংসায় ক্রিস গেইল

সাহায্যের জন্য পোলার্ড, ব্রাভোর প্রশংসায় ক্রিস গেইল

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের সিরিজের তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে গেইল ৩৮ বলে ৬৭ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলেন। আর তাতেই অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে উইন্ডিজের ছয় উইকেটের বড় জয়। রান পেয়ে দারুণ খুশি গেইল; ইনিংস উৎসর্গ করেন কাইরন পোলার্ড ও ডোয়াইন ব্রাভোকে। বয়স ৪২ এর পথে, তবুও গেইল ছুটছেন। আপাতত ইউনিভার্স বসের লক্ষ্য টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে ক্রিস গেইলের ফর্মে ফেরা ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলের জন্য বড় স্বস্তি। ক্রিস গেইলের এই দুর্দান্ত ইনিংসের জন্য তিনি ম্যাচসেরা নির্বাচিত হন। গেইল তার ইনিংসটি ডোয়াইন ব্রাভো এবং কাইরন পোলার্ডকে উৎসর্গ করেছেন। ম্যাচের পরে বলেন ব্রাভো এবং পোলার্ড কঠিন সময়ে তাকে সমর্থন করেছিলেন।

জয়ের পরে গেইল অধিনায়ক নিকোলাস পুরানকেও অভিনন্দন জানান, অজিদের বিরুদ্ধে এমন অসাধারণ পারফর্ম্যান্সের জন্যে। রান পেয়ে দারুণ খুশি ক্রিস গেইল বললেন,

‘এটি একটি দুর্দান্ত যাত্রা। আমি সিরিজ জয় পেয়ে অনেক খুশি এবং সন্তুষ্ট। অস্ট্রেলিয়ার মতো দারুণ এই দলের বিপক্ষে এমন অর্জনের জন্য স্ট্যান্ড-ইন অধিনায়ককে (নিকোলাস পুরান) অভিনন্দন। ব্যক্তিগত দৃষ্টিকোণ থেকে আমরা সবাই জানি যে আমি লড়াই করে যাচ্ছিলাম, তাই রান পেয়ে আনন্দিত হয়েছি। আমি এই রানগুলি আমার সতীর্থদের উৎসর্গ করতে চাই, বিশেষত কাইরন পোলার্ড এবং ডোয়াইন ব্রাভো।’

অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে তৃতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচে খেলার সময়ই অনন্য এক নজিরের মালিক হন গেইল। ৩৮ বলে ৬৭ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলেন গেইল। নিজের ইনিংসে ৭টি ছক্কা ও চারটি বাউন্ডারি হাঁকান গেইল। ২০১৬ সালের পর থেকে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে এটাই গেইলের এক ইনিংসে সর্বোচ্চ রান। এদিন পোলার্ড ও ব্রাভোকে বারবার প্রশংসায় ভাসিয়েছেন গেইল।

‘কাইরন পোলার্ড এই খেলাগুলোর কোনটিতে না খেলেও বড় ভূমিকা রেখেছেন। আমি যে ব্যক্তি এবং আমি কী অর্জন করেছি তার জন্য তিনি আদর্শ হয়ে দাঁড়িয়ে আছেন। মিডিয়াতে পোলার্ড এবং ডোয়াইন ব্রাভো বড় সমর্থন দিয়েছিলেন, আমাকে এই অভিজ্ঞ ছেলেদের প্রশংসা করতে হবে। আজ যা অর্জন হয়েছে তাতে দুর্দান্ত ভূমিকা তাঁদের। এই শক্তি ও ঐক্যের সাথে আমরা দুর্দান্ত অলরাউন্ড ক্রিকেট খেলছি এবং আমি এই সিরিজ জিতে সত্যিই সন্তুষ্ট।’

ক্রিস গেইল এই বছর ৪২ বছর বয়সী হয়ে যাবেন। তবে এই বয়সের সংখ্যা নিয়ে মোটেও চিন্তা করছেন না। গেইল এখনও খেলছেন, আনন্দ যোগাচ্ছেন প্রতিনিয়ত। আপাতত ইউনিভার্স বসের লক্ষ্য টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ মাতানো।

‘আমি সংখ্যা নিয়ে কিছু মনে করি না, শীঘ্রই ৪২ বছর বয়সী হওয়ার জন্য আপনারা সকলেই আনন্দিত হন যে ক্রিস গেইল এখনও খেলছেন। আমার আসল লক্ষ্য টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ এবং আশা করি আমি ততদিনে টিকে থাকব।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে ইতিহাস গড়ল আয়ারল্যান্ড

Read Next

দ্বিতীয় সারির ইংল্যান্ডের কাছেই হোয়াইটওয়াশ হল পাকিস্তান

Total
15
Share