সিনিয়রদের পাশাপাশি সময়টা এখন মোসাদ্দেকদেরও

featured photo updated v 5

একমাত্র টেস্টে বড় জয় পাওয়া বাংলাদেশ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের মিশনে নামার অপেক্ষায়। ১৫ জুলাই তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথমটি মাঠে গড়াবে। অলরাউন্ডার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত বলছেন দলে অভিজ্ঞ ও তরুণ ক্রিকেটারদের যে সমন্বয় তা বিশ্বের অন্য অনেক দলেই নেই। তার মতে সিনিয়রদের পাশাপাশি বেশ কয়েকজন ক্রিকেটারেরই এখন সময় দলে জায়গা পাকা করার।

তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের জন্য ঘোষিত স্কোয়াডে আছেন তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সাকিব আল হাসানের মত সিনিয়রের সাথে আছেন লিটন দাস, মোহাম্মদ মিঠুন, আফিফ হোসেন, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, মোসাদ্দেক হোসেনরা।

মোসাদ্দেক বলছেন সিনিয়রদের পাশাপাশি নিজেদের জায়গা পাকা করার এখনই সময় তরুণদের। আজ (১৩ জুলাই) হারারেতে অনুশীলন শেষে বিসিবির পাঠানো এক ভিডিও বার্তায় মোসাদ্দেক এমনটা জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘আমরা যারা একসাথে খেলা শুরু করেছিলাম তাদের জন্য পারফর্ম করা ও দলে থিতু হওয়ার এটাই সঠিক সময়। ধারাবাহিকতার ওপরে কিছু নেই। আমরা ধারাবাহিক হতে পারলে দলে জায়গাও পোক্ত হবে। এতে দলও উপকৃত হবে। পারফরম্যান্সের ওপর কিছুই নেই, অবশ্যই পারফরম্যান্সের দিকেই নজর দিচ্ছি।’

জিম্বাবুয়েতে আগের সফরে ওয়ানডে সিরিজ হারতে হয়েছে বাংলাদেশকে। তবে ৮ বছর পর আফ্রিকান দেশটিতে সিরিজ জয়ের ব্যাপারে বেশ আশাবাদী অলরাউন্ডার মোসাদ্দেক। দলে অলরাউন্ডারদের আধিক্যতাই আত্মবিশ্বাসী করছে তাকে।

তার মতে, ‘আমাদের দলে যে চারজন অভিজ্ঞ পারফর্মার আছেন আর সাথে তরুণরা আছে, আমাদের ওয়ানডে দল অন্যান্য দলের চেয়ে এদিক থেকে এগিয়ে আছি। অন্যান্য অনেক দলেই হয়ত এটা নেই। এদিক থেকে আমি মনে করি আমাদের অবস্থান খুব ভালো। আমাদের অপশন অনেক বেশি। বেশিরভাগ খেলোয়াড় বোলিং ব্যাটিং দুইটাই করতে পারে। দলের জন্য যা খুবই ভালো দিক।’ 

ফিনিশার হিসেবে আখ্যা পেলেও শেষ কয়েকটি ম্যাচে কাজটা ঠিকঠাকভাবে সম্পন্ন করতে পারেননি মোসাদ্দেক। ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডের সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে সুযোগ পেয়ে নিজের ফিনিশ করতে পারেননি, ফিফটি করার পর হেলায় হারিয়েছেন মঞ্চ।

তবে তার অধীনেই ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে (ডিপিএল) শিরোপা জিতেছে আবাহনী লিমিটেড। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে সেসবও আত্মবিশ্বাসী করছে এই অলরাউন্ডারকে।

মোসাদ্দেক বলেন, ‘নিউজিল্যান্ড সফরে চোট পাওয়ার পর তা সারিয়ে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজ খেলি। শেষ ম্যাচে ভালো করলেও শেষ করে আসতে পারিনি। এখানে ভূমিকা থাকবে দায়িত্ব পেলে শেষ করা। ডিপিএলে চ্যাম্পিয়ন হয়েছি, বড় দলে খেলেছি এটা অবশ্যই ভালো লাগার বিষয়।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

‘আইসিসি নয়, টেকনিক্যালি আমিই বস’

Read Next

অল্পের জন্য আমলাকে ছোয়া হলনা বাবরের

Total
6
Share