বিতর্কিত একাদশের ব্যাখ্যায় যা বললেন মুমিনুল

বিতর্কিত একাদশের ব্যাখ্যায় যা বললেন মুমিনুল
Vinkmag ad

হারারে টেস্টে বাংলাদেশ জিতেছে রেকর্ড করে, বিদেশের মাটিতে সর্বোচ্চ ২২০ রানের জয় জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। তবে এত বড় জয়েও একাদশ নিয়ে হওয়া বিতর্কের অবসান হচ্ছেনা। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে সেসবের উত্তর দিতে হয়েছে কাপ্তান মুমিনুল হককে।

পেস বান্ধব উইকেটই হয়ে থাকে হারারে স্পোর্টস ক্লাবে। সদ্য সমাপ্ত টেস্টে অবশ্য পঞ্চম দিনেও ফ্ল্যাটই ছিল। তবে একাদশ নির্বাচন করতে গিয়ে টাইগার টিম ম্যানেজমেন্ট খানিক চমকই দিয়েছে। মেহেদী হাসান মিরাজকে ব্যাটিং অলরাউন্ডার ধরলে ৯ জন স্বীকৃত ব্যাটসম্যানের জায়গা মিলেছে একাদশে।

দেশের মাটিতেই যেখানে এখন নিয়মিত তিন পেসার খেলায় সেখানে হারারেতে মাত্র দুই পেসার। তাসকিন আহমেদের সাথে বর্তমানে টাইগার টেস্ট দলের অন্যতম সেরা পেসার আবু জায়েদ রাহির পরিবর্তে সুযোগ পান এবাদত হোসেন।

হারারেতে টস জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্তও প্রশ্নবিদ্ধ ছিল। বিশেষ করে স্বাগতিক পেসারদের তোপে যখন ১৩২ রানেই ৬ উইকেট হারাতে হয়েছে। পরে অবশ্য মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, লিটন দাস, তাসকিন আহমেদরা শুধু বিপর্যয়ই কাটাননি, দলকে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণও পাইয়ে দিয়েছেন।

টাইগার টিম ম্যানেজমেন্টের ভাবনা এবার কাজে আসলেও বিতর্কিত সিদ্ধান্তগুলো ভবিষ্যতে ডেকে আনতে পারে বিপদ। অধিনায়ক মুমিনুল অবশ্য ব্যাখ্যা দিয়েছেন সবকিছুরই।

ব্যাটিং নির্ভর একাদশ প্রসঙ্গে করা প্রশ্নের জবাবে তার উত্তর, ‘এই কন্ডিশনে আমার মনে হয়েছিল আটজন ব্যাটসম্যান… এখন তো সাকিব ভাই আছেন। সাকিব ভাই না থাকলে হয়তো দলের সমন্বয় একটু ভিন্ন হতো। উইকেট দেখে মনে হয়েছে হয়তো প্রথমদিন একটু সমস্যা হবে।’

‘দুই-তিনজনের সমস্যা হবে হয়তো। কিন্তু আমাদের যেহেতু লম্বা ব্যাটিং লাইনআপ, আমরা হয়তো সেখান থেকে বেরিয়ে আসতে পারব। আলহামদুলিল্লাহ আমরা সেখান থেকে বের হতে পেরেছি।’

টস নিয়েও আছে মুমিনুলের নিজস্ব ব্যাখ্যা, ‘টস জিতে ব্যাটিং নেওয়ার উদ্দেশ্য ছিল, যেহেতু উইকেট শক্ত ছিল। সূর্য ভালো তাপ দিচ্ছে। সেক্ষেত্রে চতুর্থ, পঞ্চম দিনে হয়তো স্পিনাররা একটু সাহায্য পাবে। স্পিনারদের প্রতি আমাদের সবার আস্থা আছে, একটু স্পিন পেলে হয়তো সেটা আমরা কাজে লাগাতে পারব। এই কারণেই খেলা।’

‘সিদ্ধান্ত গুলো ঠিক ছিল কিনা, এই দোটানা আসে, মাঝে মধ্যে আসে। যদি আসেও চেষ্টা করি যেন না আসে। আমি যেই সিদ্ধান্তটা নিয়েছি, সেটাই ঠিক। এখন যেহেতু জিতেছি, তাই সিদ্ধান্তগুলো একরকম। হারলে হয়তো অন্যরকম হতো।’

আবু জায়েদ রাহির পরিবর্তে এবাদতের অন্তর্ভূক্তি প্রসঙ্গে টাইগার কাপ্তান জানান, ‘উইকেট অনেক ফ্ল্যাট ছিল। স্লো ছিল। এমন উইকেটে রাহির চেয়ে একজন জোরে বল করা পেসার দরকার ছিল। এমন না যে রাহিকে আমরা একেবারে ফেলে দিচ্ছি। এই উইকেটে একটু জোরে বল করা পেসার দরকার ছিল, তাই এবাদতকে নেওয়া।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

মাহমুদউল্লাহর অবসরে মন খারাপ মুমিনুলের

Read Next

ইউরো ফাইনালে ইংল্যান্ডের হার, নিশামের খোঁচা

Total
6
Share