প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ে হোক কিংবা অন্য কেউ, বাংলাদেশ চায় টিম ওয়ার্ক

সাকিব ছাড়া বাংলাদেশ চলবে না, বিষয়টা এমন নাঃ মুমিনুল
Vinkmag ad

দুই দলের মুখোমুখি ১৭ টেস্টে জয় সমানে সমান (৭ টি করে)। তবে সর্বশেষ ১০ দেখায় ৬ বারই জিতেছে বাংলাদেশ। কিন্তু ৮ বছর আগে সর্বশেষ জিম্ববাবুয়ে সফরে এসে ২ ম্যাচ টেস্ট সিরিজ ১-১ ব্যবধানে ড্র করেছে টাইগাররা। এবার অবশ্য একমাত্র টেস্টে জয় নিয়েই বাড়ি ফিরতে চায় মুমিনুল হকের দল। জিম্ববাবুয়ে বলে নিজেদের খেলায় কোনো ভিন্নতা আনবেনা বাংলাদেশ। বিদেশের মাটিতে সাফল্য পেতে তিন বিভাগেই ভালো করা প্রয়োজন বলছেন অধিনায়ক মুমিনুল।

আগামীকাল (৭ জুলাই) থেকে হারারে স্পোর্টস ক্লাবে অনুষ্ঠিত হবে একমাত্র টেস্ট ম্যাচটি। ২০০১ সাল থেকে জিম্বাবুয়ের মাটিতে বাংলাদেশ খেলেছে ৭ টেস্ট, জয় মাত্র একটি!। আর সেটি সর্বশেষ ২০১৩ সালের সফরে।

সাম্প্রতিক সময়ে জিম্বাবুয়ে-বাংলাদেশের ব্যবধানটা এতই বেড়েছে যে জিম্ববাবুয়ের কাছে ঘরে-বাইরে যেখানেই হারুক সমালোচনার ঝড় উঠে টাইগারদের নিয়ে। ফলে এক ম্যাচ টেস্ট সিরিজ বলে এবার হারলেই মুমিনুলদের কটু কথা শুনতে প্রস্তুত থাকতে হবে।

তবে ম্যাচ পূর্ববর্তী দিন ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে টাইগার কাপ্তান জানালেন বিদেশের মাটিতে শিধু জিম্বাবুয়ে নয় যেকোন দলের বিপক্ষে সফল হওয়া কঠিন। দায়িত্ব নিতে হবে ব্যাটসম্যান, বোলার ও ফিল্ডারদের।

তিনি বলেন, ‘শুধু জিম্বাবুয়ে না যে কোন দলের সঙ্গেই যখন অ্যাওয়েতে খেলবো তখন ব্যাটিং-বোলিং-ফিল্ডিং তিন দিকটাই ভাল করতে হয়, ফোকাস রাখতে হয়। সেই সাথে টিম ওয়ার্কটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। এদিকটায় ভাল করলে আশা করি টেস্ট ম্যাচটা জিততে পারবো।’

একাদশ কেমন হতে পারে ধারণা দিতে গিয়ে মুমিনুল জানালেন ৪ কিংবা ৫ বোলারের সাথে ৬ কিংবা ৭ ব্যাটসম্যান নিয়ে নামতে পারে তার দল। যার পুরোটাই নির্ভর করছে উইকেট দেখার উপর।

‘বেশিরভাগ সময় এটা নির্ভর করে কন্ডিশনের ওপর। বাংলাদেশে আমরা স্পিনার বেশি খেলাই বিদেশে পেসার বা ব্যাটসম্যানরা বেশি থাকে। এটা নির্ভর করে কন্ডিশন ও উইকেটের ওপর, ৫ বা ৪ বোলারের সঙ্গে ৬ বা ৭ ব্যাটসম্যান হতে পারে দল।’

দেশ থেকে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগ (ডিপিএল) খেলে টেস্ট ম্যাচে নামতে হচ্ছে মুমিনুলদের। তবে এক সপ্তাহের অনুশীলন ও প্রস্তুতি ম্যাচ মিলিয়ে লড়াইয়ে নামতে প্রস্তুত টাইগাররা। বাংলাদেশ অধিনায়ক আশাবাদী সব ঠিক থাকলে ফল তাদের দিকেই আসবে।

মুমিনুল বলেন, ‘প্রস্তুতি খুব ভাল হয়েছে। দুদিনের প্রস্তুতিতে ব্যাটসম্যান-বোলাররা সবাই ভাল করেছে। তাই আমরা টেস্ট ম্যাচেও ভাল কিছু আশা করছি। আর শুধু জিম্বাবুয়েতে না, যে কোন দেশেই অ্যাওয়ে ম্যাচ চ্যালেঞ্জিং হয়। তবে প্রস্তুতির দিক থেকে আমি আশাবাদী।’

‘৫ দিন ভাল ক্রিকেট খেললে অবশ্যই ফল আমাদের দিকে আসবে। কন্ডিশন আমাদের কাছে একই মনে হচ্ছে। প্রস্তুতি ম্যাচে যেমন কন্ডিশন ছিল মূল ম্যাচেও তেমন থাকবে আশাকরি। তবে এমনটা না হলেও আমি অবাক হবো না।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

উইকেট দেখতে না পারা ও অনেক প্রশ্নের উত্তর যখন মুমিনুলের অজানা

Read Next

হারারে টেস্ট প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে বলছেন টেইলর

Total
3
Share