ব্যাটে-বলে সাকিবের ম্যাচে দারুণ প্রস্তুতি সারলো বাংলাদেশ

ব্যাটে-বলে সাকিবের ম্যাচে দারুণ প্রস্তুতি সারলো বাংলাদেশ
Vinkmag ad

৭ জুলাই থেকে শুরু হতে যাওয়া একমাত্র টেস্ট সামনে রেখে ব্যাটে-বলে জিম্বাবুয়ে নির্বাচিত একাদশের বিপক্ষে প্রস্তুতিটা ভালোই সেরে নিল বাংলাদেশ। দুইদিনের ম্যাচে প্রথম দিন ২ উইকেটে ৩১৩ রান তোলার পর আজ (৪ জুলাই) দ্বিতীয় দিন ব্যাটিংয়ে পাঠায় স্বাগতিকদের। তবে টাইগার বোলারদের তোপে ২০২ রানেই গুটিয়ে যায়, বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংসে বিনা উইকেটে ২২ রান তোলে।

প্রস্তুতি ম্যাচে সাকিব আল হাসান দেখিয়েছেন অলরাউন্ড নৈপুণ্য। ব্যাট হাতে ৫৬ বলে ৭৪ রানের সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংসের পর বল হাতেও যৌথভাবে সর্বোচ্চ তিন উইকেট।

আগেরদিন সাইফ হাসান (৬৫*), নাজমুল হোসেন শান্ত (৫২*) ও সাকিবের (৭৪*) ফিফটিতে বড় সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ। বাকিদের সুযোগ দিতে তিনজনেই স্বেচ্ছায় অবসরে যান। ২ উইকেটে ৩১৩ রানে দিন শেষ করে সফরকারীরা। আজ দ্বিতীয় আর ব্যাট না করে জিম্বাবুয়ে নির্বাচিত একাদশকে ব্যাটিংয়ে পাঠায়।

লাঞ্চের আগে ৩ উইকেটে ৭৪ রান তোলে স্বাগতিকরা। লাঞ্চের পর দ্রুত আরও ২ উইকেট নেই। ৯৫ রানে ৫ উইকেট হারানো জিম্বাবুয়ে নির্বাচিত একাদশকে চা বিরতির আগের এক ঘন্টায় আশা দেখান টিমিসেন মারুমা ও ওয়েস্লি মাধেব্রে। দুজনে ৫৮ রানের অবিচ্ছেদ্য জুটিতে ৫ উইকেটে ১৫৩ রান তুলে চা বিরতিতে যায় স্বাগতিকরা। ৪৯ রানে মারুমা ও ২৮ রানে অপরাজিত ছিলেন মাধেব্রে।

তবে চা বিরতির পর মেহেদী হাসান মিরাজের করা প্রথম ওভারেই ফিরতে হয় মাধেব্রেকে। স্লিপে সাকিব আল হাসানকে ক্যাচ দিয়ে থেমেছেন ঐ ২৮ রানেই। ১২০ বলে ফিফটি ছুঁয়ে মারুমাও টিকেননি বেশিক্ষণ। তাসকিন আহমেদের অফ স্টাম্পের বাইরের বল ড্রাইভ খেলতে গিয়ে ক্যাচ দিয়েছে স্লিপে দাঁড়ানো সাকিবকে।

আউট হওয়ার আগে খেলেছেন ১৩৩ বলে ৫ চার ২ ছক্কায় ৫৮ রানের ইনিংস। মাঝে জয়লর্ড গুম্বি মিরাজের তৃতীয় শিকার হয়ে ফেরেন ৬ রান করে। শরিফুল ইসলামের দ্বিতীয় শিকার হওয়া লুক জঙ্গের ব্যাট থেকে আসে ১০ রান। ১৮৩ রানেই ৯ উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে নির্বাচিত একাদশ। তবে বাংলাদেশী বোলারদের অপেক্ষা দীর্ঘ করে টাপিওয়া মুফুজা ও তানাকা শিভাঙ্গা।

দুজনে ৯.১ ওভার একসাথে ক্রিজে কাটিয়ে যোগ করেন ১৯ রান। এ দফায়ও শিভাঙ্গাকে (৯) বোল্ড করে জুটি ও ইনিংসের ইতি টানেন সাকিব। মুফুজা অপরাজিত ছিলেন ১৫ রানে। ২০২ রানে গুটিয়ে দিয়ে বাংলাদেশ পেয়েছে ১১১ রানের লিড।

বাংলাদেশের হয়ে সাকিব-মিরাজ যৌথভাবে শিকার করেন সর্বোচ্চ তিনটি করে উইকেট। শরিফুলের দুইটি, তাসকিন ও এবাদতের শিকার একটি করে।

হাঁটুর চোটে ভোগা তামিম ইকবালকে নিয়ে ঝুঁকি নিতে চায়নি টিম ম্যানেজমেন্ট। প্রথম ১৩ জনের তালিকায় ছিলনা নাম, তবে প্রস্তুতি ম্যাচ বলে যেকোনো সময়ই যে কেউ খেলার সুযোগ থাকে। প্রথম ইনিংসে ব্যাট না করা তামিমের দেখা মেলে দ্বিতীয় ইনিংসে।

ইনিংসের তৃতীয় ওভারে চার্ল্টন শুমাকে দারুণ এক কভার ড্রাইভে চার মেরে রানের খাতা খোলেন তামিম। ৭ম ওভারে শুমাকে হাঁকান আরও তিনটি চার। আরেক ওপেনার সাদমান ইসলামকে নিয়ে ৭.১ ওভারে স্কোরবোর্ডে ২২ রান তোলার পরই দুই অধিনায়কের সম্মতিতে ম্যাচ ড্রয়ে সমাপ্ত হয়। প্রথম ইনিংসে খালি হাতে ফেরা সাদমান দ্বিতীয় ইনিংসে ৪ ও তামিম ৩০ বলে ৪ চারে ১৮ রানে অপরাজিত ছিলেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

বাংলাদেশিস ১ম ইনিংসে ৩১৩/২ (৯০ ওভারে ইনিংস ঘোষণা), সাদমান ০, সাইফ ৬৫ (স্বেচ্ছা অবসর), শান্ত ৫২ (স্বেচ্ছা অবসর), মুমিনুল ২৯, সাকিব ৭৪ (স্বেচ্ছা অবসর), লিটন ৩৭ (স্বেচ্ছা অবসর), মাহমুদউল্লাহ ৪০*, মিরাজ ৫*; জঙ্গে ১১-৫-২৩-১, শিপুঙ্গু ৮-১-৩৪-১

জিম্বাবুয়ে সিলেক্ট একাদশ ১ম ইনিংসে ২০২/১০ (৭৪.৫), কাইতানো ৩২, শুম্বা ২, মুজিঙ্গানিয়ামা ১৬, মায়ের্স ১৬, মারুমা ৫৮, কায়া ৭, মাধেব্রে ২৮, গুম্বি ৬, জঙ্গে ১০, মুফুজা ১৫*, শিভাঙ্গা ৯; তাসকিন ১০-৪-২০-১, শরিফুল ১১-৪-৩৩-২, এবাদত ১০-১-২৫-১, সাকিব ১২.৫-২-৩৪-৩, মিরাজ ১৬-২-৬৪-৩

বাংলাদেশিস ২য় ইনিংসে ২২/০ (৭.১), তামিম ১৮*, সাদমান ৪*

ম্যাচ ড্র।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

মাধেব্রে-মারুমার ব্যাটে জিম্বাবুয়ের প্রতিরোধ

Read Next

মূল ম্যাচেও প্রচুর রানের আশা মিরাজের

Total
36
Share