রুটের মাইলফলক স্পর্শের দিনে পেসারদের দাপটে জিতল ইংল্যান্ড

featured photo updated v 3

মাঠের বাইরের বিতর্ক, মাঠে বাজে পারফরম্যান্স, সাথে চোট সমস্যা! সব মিলিয়ে বর্তমানে ইংল্যান্ড সফরে থাকা শ্রীলঙ্কার সময়টা যেন ভালোর দিকে যাচ্ছেইনা। টি-টোয়েন্টি সিরিজে হোয়াইট ওয়াশড হওয়ার পর ওয়ানডে সিরিজও হার দিয়ে শুরু হল সফরকারীদের। অবশ্য একদম অনভিজ্ঞ একটি দল নিয়ে তাদের হারটা প্রত্যাশিতই ছিল।

চেস্টার-লি-স্ট্রিটে টস হেরে আগে ব্যাট করা শ্রীলঙ্কা ক্রিস ওকস, ডেভিড উইলির বোলিং তোপে ১৮৫ রানেই অলআউট হয়। শুরুর বিপর্যয় কাটিয়ে অধিনায়ক কুশল পেরেরা ও ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গার জোড়া ফিফটির পর লোয়ার মিডল অর্ডার ভেঙে পড়ে দ্রুতই। জবাবে জনি বেয়ারস্টোর ঝড়ো শুরুর পর হঠাত ছন্দপতন ইংল্যান্ড ব্যাটিং অর্ডারে। তবে জো রুটের ৭৯ রানের হার না মানা ইনিংসে ৫ উইকেটের সহজ জয়ই পায় স্বাগতিকরা।

চোটের কারোনে ছিটকে গেছেন আভিষ্কা ফার্নান্দো ও ধনঞ্জয়া ডি সিলভা। বায়ো-বাবল ভেঙে দেশেই ফিরে যেতে হয়েছে সহ অধিনায়ক কুশল মেন্ডিস, নিরোশান ডিকওয়েলা ও ধানুশকা গুনাথিলাকাকে। গুরুত্বপূর্ণ ৫ জন ক্রিকেটার ছাড়া শ্রীলঙ্কাকে একাদশ সাজাতে হয়েছে একদম অনভিজ্ঞদের নিয়ে। অভিষেক হয় তিনজনের।

ছোট লক্ষ্য হওয়া স্বত্বেও ইনিংসের প্রথম ওভার থেকেই তেড়েফুড়ে খেলতে থাকেন ইংলিশ ওপেনার জনি বেয়ারস্টো। লিয়াম লিভিংস্টোনকে নিয়ে ৪.৫ ওভার স্থায়ী জুটিতে তুলে ফেলেন ৫৪ রান। চামিকা করুণারত্নের করা ৫ম ওভারে লিভিংস্টোন বিদায় নিলে ভাঙে জুটি। যেখানে লিভিংস্টোনের অবদান ১২ বলে ৯!

ইনিংসের প্রথম দুই বলেই দুশমান্থ চামিরাকে চার হাঁকিয়ে শুরু বেয়ারস্টোর। আউট হওয়ার আগের ওভার পর্যন্ত হাঁকিয়ে গেছেন বাউন্ডারি। ৬ষ্ঠ ওভারে বিনুরা ফার্নান্দোর বলে বোল্ড হয়ে ফিরেছেন ২১ বলে ৪৩ রান করে।

দুর্দান্ত শুরুর পর লিভিংস্টোন-বেয়ারস্টো বিদায় নেওয়ার পর দ্রুত ফিরেছেন অধিনায়ক এউইন মরগান (৬) ও স্যাম বিলিংসও (৩)। দুজনকেই নিজের পরপর দুই ওভারে ফেরান দুশমান্থ চামিরা। ৮০ রানেই ৪ উইকে হারিয়ে বসে ইংল্যান্ড। ক্রিজে আসা নতুন ব্যাটসম্যান মইন আলিকেও ফেরাতে পারতেন প্রথম বলে, উইকেটের পেছনে সহজ ক্যাচ মিস করেন কুশল পেরেরা।

তবে সেখান থেকে জো রুট ও মঈন আলির ৯১ রানের জুটিতে লক্ষ্য তাড়াতে অস্বস্তিতে পড়তে হয়নি স্বাগতিকদের। ক্যারিয়ারের ১৫০তম ম্যাচ খেলতে নেমে দ্বিতীয় ইংলিশ ব্যাটসম্যান হিসেবে ৬ হাজার ওয়ানডে রানের মাইলফলক স্পর্শ করেন রুট। তার আগে এই কীর্তি গড়েছেন কেবল এউইন মরগান।

এদিন ৫৯৬২ রান নিয়ে ব্যাট করতে নেমেছিলেন। ইনিংসের ২৩তম ওভারে হাসারাঙ্গার দ্বিতীয় বলকে শূন্য স্লিপ অঞ্চলে পাঠিয়ে ৩ রান নিয়ে প্রবেশ করেন ৬ হাজারি ক্লাবে। অভিষিক্ত স্পিনার প্রভীন জয়াবিক্রমাকে লং অনে ঠেলে দিয়ে ৫৮ বলে ৩৩তম ওয়ানডে ফিফটি ছুঁয়েছেন।

দলকে জয় থেকে ১৫ রান দূরে রেখে মইন ফিরেছেন পেসার চামিরার তৃতীয় শিকার হয়ে। জীবন পেয়ে খেলেছেন ২৮ রানের ইনিংস। শেষ পর্যন্ত রুটের ব্যাটে চড়ে ৯১ বল ও ৫ উইকেট হাতে রেখেই লক্ষ্যে পৌঁছায় ইংল্যান্ড। ৮৭ বলে ৪ চারে ৭৯ রানে অপরাজিত ছিলেন এই ডানহাতি। ৯ রানে অপরাজিত স্যাম কারেন।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ইংলিশ পেসার ক্রিস ওকস ও ডেভিড উইলির তোপের মুখে লঙ্কান টপ অর্ডার। দুই অঙ্ক ছোঁয়ার আগেই ফিরতে হয়েছে পাথুম নিশাঙ্কা (৫), চারিথ আসালাঙ্কা (০) ও দাশুন শানাকাকে (১)। যেখানে আসালাঙ্কা খেলতে নেমেছিলেন অভিষেক ম্যাচ।

৪৩ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর দলকে ৯৯ রানের জুটিতে টেনে নেন অধিনায়ক কুশল পেরেরা ও ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা। দুজনে মিলে জুটিতে যোগ করেন ৯৯ রান। ততক্ষনে দুজনেই পৌঁছান ফিফটিতে। ৫৮ বলে ফিফটি তুলে নেওয়া হাসারাঙ্গাকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙেন ওকস। এরপরই আবার ভেঙে পড়ে লঙ্কান ইনিংস।

৪০ রানে হারিয়েছে শেষ ৬ উইকেট। হাসারাঙ্গা লিভিংস্টোনকে ক্যাচ দেওয়া হাসারাঙ্গা থেমেছেন ৬৫ বলে ৫৪ রানে। অধিনায়ক পেরেরাও টিকেননি বেশিক্ষণ। ৪৬ বলে ফিফটি ছুঁয়ে উইলির বলে স্যাম বিলিংসকে ক্যাচ দেন ৮১ বলে ৭ চারে ৭৩ রান করে। এরপর কেবলই চলেছে ব্যাটসম্যানদের আসা যাওয়ার মিছিল।

হাসারাঙ্গা-পেরেরা ছাড়া পুরো ইনিংসে দুই অঙ্ক ছুঁয়েছেন কেবল ৮ নম্বরে নামা চামিকা করুণারত্নে। তার ৩৩ বলে অপরাজিত ১৯ রানে ৪২.৩ ওভারে অলআউট হওয়ার আগে ১৮৫ রানের সংগ্রহ শ্রীলঙ্কার। ১০ ওভারে ৫ মেডেনসহ ১৮ রান খরচায় ৪ উইকেট ক্রিস ওকসের।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

অ্যান্ডি ফ্লাওয়ারকে পাকিস্তানের কোচ হিসাবে চান আজহার মাহমুদ

Read Next

দীর্ঘ ভ্রমণ শেষে হারারেতে পৌঁছাল বাংলাদেশ দল

Total
7
Share