টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর আলাদা দল করার ভাবনায় বিসিবিও

নাজমুল হাসান পাপন তামিম ইকবাল তাইজুল ইসলাম মুস্তাফিজুর রহমান এবাদত হোসেন
Vinkmag ad

টানা ব্যস্ত ক্রিকেটীয় সূচিতে ভারত, ইংল্যান্ড ইতোমধ্যে শুরু করেছে রোটেশন পদ্ধতি। ভারত তো একই সময়ে ভিন্ন দুইটি দেশে আলাদা আলাদা দলও পাঠাচ্ছে। করোনাকালীন সময়ে বায়ো-বাবল ও টানা খেলার ধকল সামলাতে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডও (বিসিবি) টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর একই পথে হাঁটতে চায়।

রোটেশন পদ্ধতি চালু করতে প্রয়োজন একই মানের ক্রিকেটারের সংখ্যা বৃদ্ধি। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে তিন ফরম্যাটের জন্য আলাদা দল করার বাস্তবতা কঠিন মানেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনও। তবে সময়ের প্রয়োজনে এমন কিছু করার বিকল্পও দেখছেন না দেশের ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থার প্রধান।

গতকাল (২৬ জুন) মিরপুরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে পাপন বলের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর ঘরের মাঠে পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজ ও নিউজিল্যান্ড সফর কাছাকাকাছি সময় হওয়া রোটেশন পদ্ধতির প্রয়োজন হবে। বিশেষ করে কোয়ারেন্টাইন, বায়ো-বাবলই বাধ্য করতে পারে বলছেন বিসিবি প্রধান।

বড় দলগুলোর সম পর্যায়ে যেতে আলাদা দল লাগবেই উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘প্রথম কথা হচ্ছে রোটেশন চালু করা তো এখন মনে হচ্ছে সম্ভব না। যে কয়টা দলের (ভারত, ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড) কথা বললাম ঐ লেভেলে যেতে হলে আমার দল আলাদা লাগবেই। টি-টোয়েন্টি স্কোয়াড আর টেস্ট স্কোয়াড এক হতে পারে না। ওদের কোনো সমস্যা হয় না কারণ দল আলাদা। অনেক খেলোয়াড়কে বিশ্রাম দিতে পারে। আমাদের মূল খেলোয়াড়রা তিন ফরম্যাটেই থাকে যার কারণে তাদের ওপর অবশ্যই চাপ পড়ে।’

‘এ মুহূর্তে এটা বদলানো কঠিন। তবে আমি মনে করি টি-২০ বিশ্বকাপ শেষ হওয়ার পর আমরা এটা করতে পারব। আমাদের এটা করতে হবে, অপশন নেই। যেমন ধরুন পাকিস্তান বাংলাদেশে খেলতে আসবে বিশ্বকাপের পর, তখন নিউজিল্যান্ড সফর। দুই দল তো লাগবেই। কোয়ারেন্টিন আছে, আগে চলে যেতে হবে। তাহলে পাকিস্তানের সাথে খেলবে কে? বিশ্বকাপের পর আমরা রোটেশন পলিসি শুরু করব। এবং চেষ্টা করব আলাদা আলাদা দলের।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

মুমিনুল-রাব্বির ব্যাটে জয় দিয়ে শেষ করল গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স

Read Next

শ্রীলঙ্কাকে হোয়াইটওয়াশ করল ইংল্যান্ড

Total
9
Share