সাকিবের ফেরার ম্যাচে হারলো মোহামেডান

সাকিবের ফেরার ম্যাচে হারলো মোহামেডান

সব ঠিক থাকলে চলমান বঙ্গবন্ধু ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট লিগ (ডিপিএল) ২০১৯-২০ এর সুপার লিগ খেলা হচ্ছে না সাকিব আল হাসানের। লাথি মেরে স্টাম্প ভেঙে ও উপড়ে ফেলে তিন ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা শেষে ফিরেছিলেন ১৭ জুন। রাউন্ড রবিন পর্বের এই শেষ ম্যাচটিই টুর্নামেন্টে সাকিবের শেষ ম্যাচ বলা যায়। তবে এমন দিনে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের কাছে বৃষ্টি আইনে তার দল মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব হেরেছে ৭ উইকেটে।

শুধু সাকিবদের নয়, এবারের লিগের রাউন্ড রবিন পর্বের শেষ ম্যাচও ছিল এটি। মিরপুরে ফ্লাডলাইটের আলোয় নিজের ফেরাটা রাঙাতে পারেননি এই অলরাউন্ডার। ব্যাট হাতে ধারাবাহিকভাবে ব্যর্থ হয়ে এদিন ফিরেছেন ১৬ বলে ১০ রান করে। অবশ্য বল হাতে ৩ ওভারে ২৪ রান খরচায় নিয়েছেন ১ উইকেট।

সুপার লিগ না খেলে জিম্বাবুয়ে সফরের আগে যুক্তরাষ্ট্রে পরিবারের সাথে কিছুদিন কাটানোর কথা সাকিবের। আগেই সুপার লিগ নিশ্চিত ছিল দুই দলের তবে আজকের জয়ে মোহামেডানকে পয়েন্ট টেবিলে পাঁচে নামিয়ে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ স্থানে উঠে গেল গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স।

আগে ব্যাট করা মোহামেডানকে ১৫০ এর নিচে আটকে দেওয়ার মূল কৃতিত্বটা তরুণ পেসার মহিউদ্দিন তারেকের। যুব দলের এই ডানহাতি পেসার মোহামেডানের সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংস (৪২) খেলা শুভাগত হোম ও সাকিব আল হাসান সহ চার ব্যাটসম্যানকে সাজঘরের পথ দেখান।

৯ উইকেটে ১৪৯ রানের সংগ্রহ সাদা-কালোদের। জবাবে বৃষ্টি আইনে ১৪ ওভারে ১১৫ রানের লক্ষ্য ঠিক হলে তা ইয়াসির আলি রাব্বি (৪৫) ও মুমিনুল হকের (২৮) ব্যাটে চড়ে ৭ উইকেট হাতে রেখেই জেতে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স।

লক্ষ্য তাড়ায় নেমে শুরু থেকেই ঝড়ো গতিতে রান তোলার চেষ্টা গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের দুই ওপেনার শেখ মেহেদী হাসান ও সৌম্য সরকারের। ইয়াসিন আরাফাত মিশুর করা ইনিংসের প্রথম বলেই ডিপ পয়েন্ট অঞ্চল দিয়ে ছক্কা হাঁকান মেহেদী। একই ওভারে সৌম্য হাঁকান টানা দুই চার। ওভার থেকে রান আসে ১৮।

পরের ওভারেই সাকিবকে ডাউন দ্য ট্র্যাকে এসে লং অন দিয়ে ছক্কা মেহেদীর। তবে খানিক নিচু হওয়া পরের বলেই ফিরেছেন একই কায়দায় উড়িয়ে মারতে গিয়ে বোল্ড হয়ে। ১.৫ ওভার স্থায়ী উদ্বোধনী জুটিতে রান ২৬, মেহেদী ফিরেছেন ৭ বলে ১৫ রান করে।

গাজীর ইনিংসের দ্বিতীয় ওভার শেষেই নামে বৃষ্টি। আধ ঘন্টার বেশি সময় ধরে ঝরা বৃষ্টি শেষে খেলা শুরু হলে নতুন লক্ষ্য ঠিক হয়। ১৪ ওভারে করতে হবে ১১৫ রান। অর্থাৎ পরের ১২ ওভারে সমীকরণ ৮৯।

খেলা শুরুর হওয়ার পর ৬ষ্ঠ বলেই ফিরেছেন সৌম্য, মাহমুদুল হাসানের স্পিন বুঝতে না পেরে বোল্ড হওয়ার আগে রান ১০ বলে ১৪। ৩২ রানে ২ উইকেট হারানো গাজীকে এর পর সহজ জয় এনে দেয় মুমিনুল হক ও ইয়াসির আলি রাব্বির ৭১ রানের জুটি।

৯.৩ ওভারেই স্কোরবোর্ডে ১০০। ৮ম ওভারের দ্বিতীয় বলে আবু জায়েদ রাহিকে ডিপ মিড উইকেট দিয়ে দারুণ এক ছক্কা হাঁকান রাব্বি। ঐ ওভারে আরও দুই চারে রাব্বি-মুমিনুল নেন ১৮ রান।

টুর্নামেন্টে নিজের প্রথম ফিফটি ও দলের জয়ের দ্বারপ্রান্তে গিয়ে সাজঘরে ফেরেন রাব্বি। আবু হায়দার রনির করা ১১তম ওভারের দ্বিতীয় বলে ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে ধরা পড়েন ২৫ বলে ৪ চার ২ ছক্কায় ৪৫ রান করে। জয় থেকে দল মাত্র ১২ রান দূরে তখন।

রাব্বির বিদায়ের পর অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ আরেক সেট ব্যাটসম্যান মুমিনুলকে নিয়ে ৫ বলেই পৌঁছে যান লক্ষ্যে। শেষ পর্যন্ত ৭ উইকেট ও ২৩ বল হাতে রেখে পাওয়া জয়ের পথে মুমিনুল অপরাজিত ২২ বলে ২৮ রানে, রিয়াদ ৩ বলে ৭ রানে।

টস জিতে ব্যাট করতে নেমে দারুণ শুরুর আভাস দেয় মোহামেডান ওপেনার আব্দুল মজিদ। আরেক ওপেনার মাহমুদুল হাসানকে এক পাশে রেখে আগের ম্যাচে ফিফটি হাঁকানো মজিদ দ্রুতগতিতে রান তোলার চেষ্টা করেন। তবে ৩ রানের ব্যবধানে ফিরেছেন দুজনেই। ১৪ বলে ১ চার ২ ছক্কায় ২০ রানে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের বলে ফেরেন মজিদ। তরুণ পেসার মহিউদ্দিন তারেকের শিকার মাহমুদুল (২)।

নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ফেরা সাকিব ব্যাট হাতে ব্যর্থ আরেক দফা। ১৬ বলে ১০ রান করে তারেকের বলে ক্যাচ দেন শর্ট লং অফে। এরপর ইরফান শুক্কুর দারুণ শুরু করেও থেমেছেন ১৩ বলে ১৮ রান করে। ২৪ বলে ক্রিজে টিকে ১৯ রান করে নাসুম আহমেদের বলে আরিফুল হককে ক্যাচ দেন শামসুর রহমান শুভ।

৯১ রানে ৫ উইকেট হারানোর পর নাদিফ চৌধুরী ও শুভাগত হোমের ৪৫ রানের জুটি। মুমিনুল হকের করা ১৬তম ওভারে দারুণ দুইটি ছক্কা হাঁকান শুভাগত। তারেকের করা ১৭তম ওভারে হাঁকান টানা দুই চার। মুকিদুল ইসলাম মুগ্ধের বলে নাদিফ চৌধুরী ২০ বলে ২৩ রান করে আউট হলে ভাঙে জুটি।

তারেকের করা ১৯তম ওভারে বিদায় নেন শুভাগতও, লং অফে মুগ্ধের হাতে ধরা পড়েন ২০ বলে ৪২ রান করে। একই ওভারে এই পেসার ফেরান আবু হায়দার রনিকেও (২)। ৪ ওভারে ২৯ রান খরচায় এই তরুণের শিকার ৪ উইকেট। শেষ পর্যন্ত ৮ উইকেটে ১৪৯ রানে থামে মোহামেডান।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

ফাইনালের আগের দিন ভারতের একাদশ ঘোষণা

Read Next

হার না মানা সেঞ্চুরিতে দলকে জেতালেন উসমান খাজা

Total
1
Share