মে মাসে আইসিসির সেরা খেলোয়াড় মুশফিক ও ক্যাথরিন

মে মাসে আইসিসির সেরা খেলোয়াড় মুশফিক ও ক্যাথরিন

আইসিসি (ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল) প্রতি মাসে ঘোষণা করে আইসিসি প্লেয়ার অব দ্য মান্থ। নারী ও পুরুষ দুই বিভাগে ৩ জন করে মনোনীত হন, স্বীকৃতি পান ১ জন করে।

ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থা আজ (১৪ জুন) আইসিসি প্লেয়ার অব দ্য মান্থ (মে) এর বিজয়ী ঘোষণা করেছে। মে মাসজুড়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পারফর্ম করে বিজয়ী হয়েছেন বাংলাদেশের মুশফিকুর রহিম (পুরুষ) ও স্কটল্যান্ডের ক্যাথরিন ব্রাইস (নারী)।

মে মাসে বাংলাদেশের মুশফিকুর রহিম শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ১ টেস্ট ও ৩ ওয়ানডে খেলেছিলেন। ওয়ানডে সিরিজে ফর্মের তুঙ্গে থাকা মুশফিকের ব্যাটে চড়েই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথমবারের মত সিরিজ জিতেছিল বাংলাদেশ। মুশফিক করেছিলেন ১ টি করে ফিফটি ও সেঞ্চুরি।

মুশফিকই প্রথম বাংলাদেশি ক্রিকেটার যিনি আইসিসি প্লেয়ার অব দ্য মান্থ অ্যাওয়ার্ডে মনোনয়ন পেয়েছিলেন। প্রথমবার মনোনয়ন পেয়েই হয়েছেন বিজয়ী। মুশফিক পেছনে ফেলেছেন মনোনয় পাওয়া বাকি দুই জনকে (শ্রীলঙ্কার প্রবীন জয়াবিক্রমা ও পাকিস্তানের হাসান আলি)।

নারীদের মধ্যে অলরাউন্ডার ক্যাথরিন ব্রাইস মে মাসে স্কটল্যান্ডের প্রথম ক্রিকেটার (নারী ও পুরুষ মিলিয়ে) হিসাবে আইসিসি র‍্যাংকিংয়ে ব্যাটসম্যান বা বোলারদের তালিকায় সেরা দশে জায়গা করে নিয়েছিলেন। আইরিশ নারীদের সঙ্গে ৪ টি-টোয়েন্টি খেলে ৯৬ রান ও ৫ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। বিজয়ী হবার পথে আয়ারল্যান্ডের গ্যাবি লুইস ও লিহ পলকে পেছনে ফেলেছেন তিনি।

আইসিসি প্লেয়ার অব দ্য মান্থ এর ভোটিং প্রসেসঃ

দুই ক্যাটাগরিতে (নারী ও পুরুষ) মনোনীতরা শর্টলিস্টেড হন এক মাসে অন ফিল্ডে তাদের পারফরম্যান্স ও মাসে তাদের অর্জন দিয়ে।

মনোনীতরা আইসিসির স্বাধীন ভোটিং অ্যাকাডেমি ও বিশ্বজুড়ে সমর্থকদের ভোট পান। সর্বোচ্চ ভোট পাওয়া ক্রিকেটার হন আইসিসি ক্রিকেটার অব দ্য মান্থ। ভোটিং অ্যাকাডেমি তাদের ভোট দেন ই-মেইলের মাধ্যমে, ভোটের ৯০ শতাংশ নির্ধারিত হয় তাদের ভোটের মাধ্যমে। বাকি ১০ শতাংশ থাকে সমর্থকদের আওতায়।

আইসিসি প্রতি মাসের দ্বিতীয় সোমবার বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করে তাদের ডিজিটাল চ্যানেলে।

আইসিসি ভোটিং অ্যাকাডেমিঃ

আফগানিস্তান- হামিদ কাইয়ুমি ও জাভেদ হাকিম, অস্ট্রেলিয়া- মেলিন্দা ফারেল ও লিসা স্থালেকার, বাংলাদেশ- তারেক মাহমুদ ও মোহাম্মদ ইসাম, ইংল্যান্ড- এলিজাবেথ এমন ও ক্লেয়ার টেইলর, আয়ারল্যান্ড- ইয়ান চালেন্ডার ও ইসোবেল জয়েস, ভারত- অন্বেষা ঘোষ ও ভিভিএস লক্ষণ, নিউজিল্যান্ড- মার্ক গিন্টি ও জন রাইট, পাকিস্তান- ফাইজান লাখানি ও রমিজ রাজা, দক্ষিণ আফ্রিকা- ফিরদোস মুন্ডা ও মাখায়া এনটিনি, শ্রীলঙ্কা- নেভিল ভিক্টর অ্যান্থনি ও রাসেল আরনল্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ- ইয়ান বিশপ ও মেরিসা অ্যাগুইলেইরা, জিম্বাবুয়ে- ট্রিস্টান হোম ও পুমেলেলো এম্বাঙ্গুয়া, অন্যান্য- পল রেডলি ও ডার্ক ন্যানেস।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

যাচ্ছেতাই ব্যাটিংয়ে সহজ লক্ষ্য পেয়েও হেরেছে লেজেন্ডস অব রুপগঞ্জ

Read Next

জিম্বাবুয়ের সকল ক্রিকেটীয় কার্যক্রম স্থগিত

Total
96
Share