ম্যাড়ম্যাড়ে ম্যাচে লেজেন্ডস অব রুপগঞ্জের প্রথম জয়ের দেখা

ম্যাড়ম্যাড়ে ম্যাচে লেজেন্ডস অব রুপগঞ্জের প্রথম জয়ের দেখা

অবশেষে অধরা জয়ের দেখা পেল লেজেন্ডস অব রুপগঞ্জ। মিরপুরে বৃষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচে শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাবকে তারা হারিয়েছে ১৪ রানে। দুই দলের টপ অর্ডারের ব্যর্থতার পর ম্যাচের পার্থক্য গড়েছে মিডল ও লোয়ার মিডল অর্ডার।

ব্যাট হাতে ২৪ রানের অতি প্রয়োজনীয় এক ইনিংসের পর বল হাতেও শাইনপুকুরকে শুরু থেকে চেপে রাখার কাজটা করেছেন সানজামুল ইসলাম। যেখানে বল হাতে মূল নেতৃত্বটা দিয়েছেন আরেক স্পিনার নাবিল সামাদ।

৬ উইকেটে রুপগঞ্জের তোলা ৮১ রানের জবাবে ৬ উইকেট হারিয়ে শাইনপুকুরের সংগ্রহ ৬৭ রান। এ জয়ে ৪ ম্যাচ পর জয়ের দেখা পেল রুপগঞ্জ, আগের ৪ ম্যাচের তিনটিতে হার, একটি ম্যাচ বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হয়েছিল।

১২ ওভারে নেমে আসা ম্যাচে শুরুটা যেমন হওয়ার দরকার ছিল তার উল্টো চিত্র দেখা যায় লেজেন্ডস অব রুপগঞ্জ ইনিংসে। পেসার সুমন খান ও স্পিনার তানভীর ইসলামের তোপে ৯ রানেই হারায় ৩ উইকেট। পাওয়ার প্লের ৪ ওভারে আসে ১৫ রান। ওপেনার মেহেদী মারুফ (১) ও তিন নম্বরে নামা জাকের আলি অনিককে (০) ফেরান সুমন। আরেক ওপেনার আজমির আহমেদ (৫) স্টাম্পিং হয়েছেন তানভীরের বলে।

সেখান থেকে ৩৯ রানের জুটি গড়েন সাব্বির রহমান ও সানজামুল ইসলাম। জুটিতে অবশ্য বেশি অবদান সানজামুলের। দুজনে মিলে ভালো কিছুর আভাস দিলেও সাব্বির ফিরলে ভাঙে জুটি।

৯ম ওভারে রবিউল হকের করা অফ স্টাম্পের বেশ বাইরের একটি বলকে উইকেট রক্ষকের মাথার উপর দিয়ে তুলতে গিয়ে। থেমেছেন ২০ বলে ১ ছক্কায় ১৬ রান করে। একই ওভারে শেষ বলে ফেরেন সানজামুলও, শর্ট কাভারে ক্যাচ দেন তৌহিদ হৃদয়কে। তার আগে খেলেছেন ১৭ বলে ১ চার ২ ছক্কায় ২৪ রানের ইনিংস।

শেষ দিকে অধিনায়ক নাইম ইসলাম ও সোহাগ গাজীর ব্যাটে ৬ উইকেটে ৮১ রানে থামে রুপগঞ্জ। ৭ বলে ১৩ রান করে আউট হন গাজী, ১৩ বলে ১৮ রানে অপরাজিত ছিলেন নাইম। শাইনপুকুরের হয়ে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট সুমন খানের।

লক্ষ্য তাড়ায় নেমে শাইনপুকুরের শুরুটা হয়েছে আরও বাজে। বাঁহাতি স্পিনার নাবিল সামাদের ঘূর্ণিতে ৫ রানেই হারায় .৪ উইকেট। ইনিংস ও নিজের প্রথম ওভারেই ফিরেছেন ওপেনার তানজিদ হাসান তামিম (০), ওভারে রান এসেছে ১। সানজামুলের করা দ্বিতীয় ওভারে রান এসেছে ৪।

ইনিংসের তৃতীয় ও নিজের দ্বিতীয় ওভার করতে এসেই নাবিল সামাদ ফেরান রবিউল ইসলাম রবি (১) ও অধিনায়ক তৌহিদ হৃদয়কে (০), খরচ করেননি কোন রান। পরের ওভারেই সানজামুলের বলে এলবিডিব্লিউর ফাঁদে সাব্বির হোসেন (৪), নেন উইকেট মেডেন। ৪ ওভারের পাওয়ার প্লে তে রান ৫! ২ ওভারের স্পেলে নাবিলের ফিগার ২-১-১-৩! সানজামুলের ফিগার ২-১-৪-১।

সেখান থেকে আর জয়ের পথ খুঁজে পায়নি শাইনপুকুর। ৬ উইকেটে ৬৭ রানে থামার পথে মাহিদুল ইসলাম অঙ্কনের ২৩ বলে ১ চার ২ ছক্কায় ৩০ রানের ইনিংস কেবল হারের ব্যবধানটাই কমিয়েছে। এ ছাড়া সুমন খানের ব্যাট থেকে ১২ ও রবিউল হকের ব্যাট থেকে ১৫ রান। নাবিল সামাদের ৩ উইকেটের সাথে মুক্তার আলির শিকার দুইটি ও সানজামুলের একটি।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

লেজেন্ডস অব রুপগঞ্জ ৮১/৬ (১২), আজমির ৫, মারুফ ১, সাব্বির ১৬, জাকের ০, সানজামুল ২৪, গাজী ১৩, নাইম ১৮*, মুক্তার ০*, সুমন ৩-০-২০-৩, তানভীর ৩-০-১৩-১, রবিউল ২-০-৯-২

শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাব ৬৭/৬ (১২), সাব্বির ৪, তানজিদ ০, রবি ১, হৃদয় ০, অঙ্কন ৩০, সুমন ১২, রবিউল ১৫*, অন্তর ১*; নাবিল ২-১-১-৩, সানজামুল ২-০-১০-১, মুক্তার ৩-০-১৪-২

ফলাফলঃ লেজেন্ডস অব রুপগঞ্জ ১৪ রানে জয়ী

ম্যাচসেরাঃ নাবিল সামাদ (লেজেন্ডস অব রুপগঞ্জ)।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

ইমরান-শামীমদের পাওয়ার হিটিংয়ের সামনে সাকিবদের নির্বিষ ব্যাটিং

Read Next

ইমন-জয়ের ব্যাটে ওল্ড ডিওএইচএসের ২য় জয়

Total
1
Share