জয়ের হ্যাটট্রিকে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে আবাহনী

জয়ের হ্যাটট্রিকে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে আবাহনী

বৃষ্টি বাগড়ায় ম্যাচের ওভার কমে যাওয়া যেন অবধারিত হয়ে পড়েছে চলতি ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে (ডিপিএল)। আবাহনীর জয়রথও ছুটছে অনেকটা একইভাবে। ১১ ওভারে নেমে আসা ম্যাচে আজ মিরপুরে ব্রাদার্স ইউনিয়নকে ৯ উইকেটে হারিয়েছে আবাহনী। এতে মুশফিকুর রহিমের নেতৃত্বাধীন দলটির নিশ্চিত হল টানা তৃতীয় জয়, দলটি আছে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে।

আবাহনী পেসার তানজিম হাসান সাকিব ও স্পিনার আরাফাত সানির তোপে টস হেরে ব্যাট করতে নামা ব্রাদার্স ইউনিয়ন ৫১ রানে ৫ উইকেট হারায়। সেখান থেকে আলাউদ্দিন বাবু ও জাহিদুজ্জামানের শেষ ১৮ বলের ঝড়ে ১০১ রানের পুঁজি পায়। তবে মুশফিকুর রহিম, নাইম শেখদের ব্যাটে তা অনায়েসেই টপকায় আবাহনী।

জিততে হলে ১১ ওভারে প্রয়োজন ১০২ এমন সমীকরণ বেশ সহজেই মিলিয়েছে আবাহনী। ৩.৩ ওভার স্থায়ী উদ্বোধনী জুটিতে নাইম শেখ ও মুনিম শাহরিয়ার যোগ করেন ৩৮ রান। আউট হওয়ার আগে মুনিমের ব্যাট থেকে আসে ১২ বলে ৪ চার ও ১ ছক্কায় ২৫ রান। তৃতীয় ওভারে আব্দুল গাফফারকে হাঁকান টানা তিন চার।

মুনিমের বিদায়ের পর কোন প্রকার অস্বস্তি ছাড়াই জয়ের বন্দরে পৌঁছায় আবাহনী। ৪৪ বলের অবিচ্ছেদ্য জুটিতে মুশফিকুর রহিম ও নাইম শেখের রান ৬৪। ৯ উইকেটে জয় পাওয়া ম্যাচে ৭ বল আগেই কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছায় মুশফিকুর রহিমের দল। জয়সূচক বাউন্ডারি হাঁকানো নাইম অপরাজিত ছিলেন ২৬ বলে ২ চার ১ ছক্কায় ৩৬ রানে। ২১ বলে ৬ চারে মুশফিক অপরাজিত ছিলেন ৩৭ রানে।

ব্রাদার্স ইনিংসকে ভাগ করতে হবে দুই ভাগে। দলীয় সংগ্রহ ১০১ রানের ৫০ এসেছে শেষ ৩ ওভারে। যেখানে আলাউদ্দিন বাবু ও জাহিদুজ্জামান আলমগীর রীতিমত ঝড় তুলেছেন শের-ই-বাংলায়। অথচ প্রথম ৮ ওভারে গল্পটা আবাহনী পেসার তানজিম হাসান সাকিবের। ২ ওভারের প্রথম স্পেলে ৯ রান খরচায় তুলে নেন ৩ উইকেট। ৮ম ওভারের তৃতীয় ও চতুর্থ বলে জুনায়েদ সিদ্দিকী (২০) হাবিবুর রহমান জনিকে (৪) ফিরিয়ে জাগান হ্যাটট্রিক সম্ভাবনাও। তার আগেই অবশ্য ফিরিয়েছেন আরেক ওপেনার মিজানুর রহমানকে (২০)। স্কয়ার লেগে দুর্দান্ত ক্যাচ নেন আফিফ হোসেন।

মিজানুরের বিদায়ের আগে অবশ্য ভালো শুরুই পেয়েছিল ব্রাদার্স। ৩৮ রান আসে উদ্বধনী জুটিতে। কিন্তু তানজিমের ঐ স্পেলের সাথে আরাফাত সানিও হ্যাটট্রিক সম্ভাবনা তৈরি করলে ৫১ রানেই ৫ উইকেট হারায় ব্রাদার্স। মাইশুকুর রহমান ও রাহাতুল ফেরদৌস খালি হাতে ফিরেছেন সানির শিকার হয়ে।

তবে শেষ ৩ ওভারের ঝড়টা শুরু করেন আগের ম্যাচে হ্যাটট্রিক তুলে নেয়া ব্রাদার্স পেসার আলাউদ্দিন বাবু। তাইজুল ইসলামের করা ৯ম ওভারে হাঁকান দুই ছক্কা, সব মিলিয়ে রান আসে ১৫। মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের করা ১০ম ওভারে বাবুর হাঁকানো ১ চার ১ ছক্কায় আসে ১৩ রান। তবে ১১তম ওভারে এসে সব ছাপিয়ে যান জাহিদুজ্জামান। ওভারে রান আসে ২২, যার ২১ রানই আসে জাহিদুজ্জামানের ব্যাট থেকে। মেহেদী হাসান রানাকে হাঁকিয়েছেন ২ চার ২ ছক্কা।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

ব্রাদার্স ইউনিয়ন ১০১/৫ (১১), মিজানুর ২০, জুনায়েদ ২০, মাইশুকুর ০, রাহাতুল ০, হাবিবুর ৪, বাবু ২৪*, জাহিদুজ্জামান ২৫*; সানি ২-০-৫-২, সাকিব ২-০-৯-৩

আবাহনী লিমিটেড ১০২/১ (৯.৫), নাইম ৩৬*, মুনিম ২৫, মুশফিক ৩৭*; হাবিবুর ২-০-১৯-১

ফলাফলঃ আবাহনী লিমিটেড ৯ উইকেটে জয়ী।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

যুব বিশ্বকাপ মাতানো জেইডেন সিলস ওয়েস্ট ইন্ডিজের টেস্ট স্কোয়াডে

Read Next

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বিশ্রাম দিয়ে খেলানো হবে ক্রিকেটারদের

Total
15
Share