অলরাউন্ড পারফরম্যান্সে দোলেশ্বরকে জেতালেন শামীম

অলরাউন্ড পারফরম্যান্সে দোলেশ্বরকে জেতালেন শামীম

মিরপুরের উইকেটে ১৪৪ এমনিতেই টি-টোয়েন্টিতে লড়াইয়ের জন্য যথেষ্ট ভালো পুঁজি। তার উপর একদিনে একই উইকেটে তিন ম্যাচ অনুষ্ঠিত হলে সেখানে ব্যাটসম্যানদের জন্য যে কিছুই থাকেনা তা বলার অপেক্ষা রাখেনা। প্রাইম দোলেশ্বরের বিপক্ষে তাই ১৪৫ রান তাড়া করতে নেমে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের ব্যাটসম্যানরা করেছে অসহায় আত্মসমর্পণ।

সৌম্য সরকার, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মুমিনুল হক, আকবর আলিদের নিয়ে গড়া ব্যাটিং লাইন আপ গুটিয়ে গেছে ১০৭ রানে। শেষদিকে আরিফুল হক পেসার কামরুল ইসলাম রাব্বির উপর ছোট খাটো একটা ঝড় বইয়ে না দিলে পড়তে হত আরও বড় লজ্জায়। গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সকে ৩৭ রানে হারিয়ে টানা দ্বিতীয় জয় পেলে প্রাইম দোলেশ্বর।

লক্ষ্য তাড়ায় নেমে উদ্বোধনী জুটিতে ২২ রান তোলে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের দুই ওপেনার শাহদাত হোসেন দিপু (১৩) ও সৌম্য সরকার (৯)। শামীম হোসেনের বলে দিপু ফেরার পরই শুরু হয় আসা যাওয়ার মিছিল। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে ৮ উইকেটে ৬৬ রানে পরিণত হয় গাজী গ্রুপ।

আগের ম্যাচে ফিফটি হাঁকানো অধিনায়ক রিয়াদ ও মুমিনুল হক এদিন ছিলেন বিবর্ণ। রিয়াদ ফিরেছেন খালি হাতে, মুমিনুলের নামের পাশে ৭ রান। রান আউটে কাটা পড়া জাকির হোসেনের ব্যাট থেকে আসে ১৪ রান।

৯ম উইকেট জুটিতে মুকিদুল ইসলাম মুগ্ধকে নিয়ে ৩৫ রানের জুটি আরিফুল হকের। প্রথম ২৮ বলে ২০ রান আরিফুলের ব্যাটে। কামরুল ইসলাম রাব্বির করা ১৮ তম ওভারে ১ চার ২ ছক্কায় নেন ১৬ রান, ওভারের শেষ বলে ছক্কা হাঁকান মুকিদুলও। ঐ ওভারে রাব্বির খরচ ২৪ রান।

তবে এই ঝড়ও বেশিক্ষণ টিকেনি, পরের ওভারের প্রথম বলেই আরিফুল ফেরেন ৩৪ বলে ৩৭ রান করে। একই ওভারের পঞ্চম বলে নাহিদ হাসানও (৬) রান আউট হলে গাজী গ্রুপ ইনিংসের ইতি ঘটে। মুকিদুল অপরাজিত ছিল ১০ রানে। প্রাইম দোলেশ্বরের হয়ে সর্বোচ্চ দুইটি করে উইকেট মোহাম্মদ শরিফউল্লাহ, শামীম হোসেন ও এনামুল হক জুনিয়রের।

আগের ম্যাচেই ঝড়ো ইনিংস খেলে দলের জয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন দোলেশ্বর ওপেনার ইমরান উজ্জামান। তবে আজ ৮ বলে ১০ রান করেই থামতে হয় তাকে। দোলেশ্বর ইনিংসে শুরুর আঘাতটা বাঁহাতি স্পিনার নাসুমের হাত ধরেই, ইমরান উজ্জামানের পর ফিরিয়েছেন আরেক ওপেনার তৌফিক খানকে (১৫)।

৪৬ রানে ২ উইকেট হারানোর পর ফজলে মাহমুদ রাব্বি ও সাইফ হাসানের ৬৫ রানের জুটি। এবার আঘাত হানেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। নিজের টানা ২ ওভারে ফিরিয়েছেন সাইফ ও ফজলেকে।

৩৭ বলে ৩৭ রান রান করে সাইফ ফিরেছেন শাহাদাত হোসেন দিপুকে ক্যাচ দিয়ে। ৩১ বলে ৩ চার ১ ছক্কায় ফজলের ব্যাট থেকে আসে ৩৯ রান। গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স অধিনায়ক রিয়াদ এদিন ৭ বোলার ব্যবহার করেন।

শেষদিকে শামীম হোসেন পাটোয়ারীর ১৮ বলে ২৫ রানের ইনিংসে ৬ উইকেটে ১৪৪ রানে থামে দোলেশ্বর। শামীমের সাথে ফরহাদ রেজাকেও (৪) ফেরান পেসার মুকিদুল ইসলাম মুগ্ধ। গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের হয়ে সমান দুইটি করে উইকেট শিকার রিয়াদ, নাসুম ও মুগ্ধের।

বল হাতে ৪ ওভারে ১৭ রান খরচায় ২ উইকেটের সাথে ব্যাট হাতে ১৮ বলে ২৫ রান করা প্রাইম দোলেশ্বর অলরাউন্ডার শামীম হোসেন পাটোয়ারী হয়েছেন ম্যাচ সেরা।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টিং ক্লাব ১৪৪/৬ (২০), ইমরান ১০, তৌফিক ১৫, সাইফ ৩৭, রাব্বি ৩৯, শামীম ২৫, ফরহাদ ৪, শরিফউল্লাহ ১*, মার্শাল ০*; নাসুম ২-০-১১-২, মুগ্ধ ৪-০-২৩-২, মাহমুদউল্লাহ ৪-০-২৯-২

গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স ১০৮/১০ (১৮.৫), শাহাদাত ১৩, সৌম্য ৯, মুমিনুল ৭, মাহমুদউল্লাহ ০, জাকির ১৪, আরিফুল ৩৭, আকবর ২, মেহেদী ৩, নাসুম ২, মুগ্ধ ১০*, নাহিদ ৬; ফরহাদ ১.৫-০-১৮-১, শরিফউল্লাহ ৪-০-২১-২, শামীম ৪-০-১৭-২, এনামুল জুনিয়র ৩-০-১০-২, রাজা ৪-০-১১-১

ফলাফলঃ প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টিং ক্লাব ৩৬ রানে জয়ী

ম্যাচসেরাঃ শামীম হোসেন (প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টিং ক্লাব)।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

ফেসবুকে দেখা যাবে পিএসএলের খেলা

Read Next

সহজ জয়ে সিরিজে সমতা ফেরাল আয়ারল্যান্ড

Total
8
Share