সাইফউদ্দিনের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ওল্ড ডিওএইচএসকে হারাল আবাহনী

সাইফউদ্দিনের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ওল্ড ডিওএইচএসকে হারাল আবাহনী

মিরপুরে ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগের (ডিপিএল) দ্বিতীয় রাউন্ডের ম্যাচে আবারও অভিজ্ঞতার কদর সামনে এলো। প্রায় জাতীয় দল নিয়ে নামা আবাহনী লিমিটেডকে হাতের মুঠোয় পেয়েও জয় ছিনিয়ে নিতে পারেনি ওল্ড ডিওএইচএস। একদম আনকোরা ও তরুণদের গড়া দলটি মুশফিকুর রহিমের আবাহনীর কাছে হেরেছে ২২ রানে। অথচ বৃষ্টিতে ১৯ ওভারে নেমে আসা ম্যাচে বোলারদের কল্যাণে জয়ের মঞ্চ প্রস্তুতই ছিল তাদের জন্য।

ম্যাচে আবাহনীর হয়ে ব্যাটে-বলে আলো ছড়িয়েছেন অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। ব্যাট হাতে দলকে খাদের কিনারা থেকে টেনে তোলা তার ১৯ বলে ৪০ রানের ইনিংসে ১৩৫ রানের পুঁজি আবাহনীর। বল হাতে ৪ ওভারে ১৫ রান খরচায় তুলে নেন প্রতিপক্ষে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহককে।

ওল্ড ডিওএইচএসের দুই ওপেনার আনিসুল ইসলাম ইমন ও রাকিন আহমেদ অবশ্য লক্ষ্য বিবেচনায় ভালো শুরু পান। দুজনে জুটিতে যোগ করে ৫৩ রান। আনিসুল ২৭ বলে ২০ রান করে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিলে ভাঙে জুটি।

এরপর আগের ম্যাচে ফিফটি হাঁকানো মাহমুদুল হাসান জয়কে নিয়ে রাকিনের ৩০ রানের জুটি। কিন্তু দলীয় ৮৩ রানে দুজনেই ফিরে গেলে বিপাকে পড়ে ওল্ড ডিওএইচএস। ততক্ষণে বলের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ে প্রয়োজনীয় রানের সমীকরণও।

৪৪ বলে ৪৩ রান করা রাকিনকে বোল্ড করেন সাইফউদ্দিন, আরাফাত সানিকে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে জয় ফিরেছেন ২০ বলে ১৫ রান করে। আর কোনো উইকেট না হারালেও টপ অর্ডারের ধীরে খেলার মাশুল গুনতে হয় পরের ব্যাটসম্যানদের। অনভিজ্ঞ মোহাইমিনুল খান (১০), রায়হান রাফসানরা (১৯) মেলাতে পারেনি জয়ের সমীকরণ। হাতে ৭ উইকেট রেখেও হেরেছে ২৩ রানে।

জাতীয় দলে উপরের দিকে খেলার সুযোগ না পাওয়া মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন আবাহনীর হয়েও একই বিপাকে পড়েছেন। মোটামুটি জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের নিয়ে গড়া স্কোয়াড বলে ৭ নম্বরের আগে সুযোগ মিলছে এই অলরাউন্ডারের। তবে প্রয়োজনে অনুরোধ করে হলেও দুই একটা ম্যাচে উপরের দিকে খেলতে চান বলে সাইফউদ্দিন জানিয়েছেন লিগ শুরুর আগেই।

আজ মিরপুরে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচেও অবশ্য খেলতে হয়েছে ৭ নম্বরেই। তবে দলের বিপর্যয়ে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত রানের ইনিংস খেলে সাইফউদ্দিন হয়তো জানান দিলেন আমি উপরে খেলতে প্রস্তুত। তার ৪০ রানের ইনিংসে ভর করেই নাইম শেখ, মুশফিকুর রহিম, মোসাদ্দেক হোসেনদের ব্যর্থতার দিনে নির্ধারিত ১৯ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৩৫ রানের পুঁজি পায় আবাহনী।

দুই ওপেনার নাইম শেখ ও মুনিম শাহরিয়ার উদ্বোধনী জুটিতে যোগ করেছেন ২৫ রান। যেখানে নাইমের অবদানই ২৩। ২১ বলে ৩ চার ১ ছক্কার ইনিংসটি থামে মোহাম্মদ রশিদের বলে লং অনে ক্যাচ দিলে।

এরপর নিয়মিত বিরতিতেই উইকেট হারায় বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। ৭৫ রান তুলতেই সাজঘরের পথ ধরেন মুনিম (১৬), নাজমুল হোসেন শান্ত (১১), অধিনায়ক মুশফিক (৬) ও মোসাদ্দেক (৮)। মুশফিককে বোল্ড করা স্পিনার রাকিবুল ফেরান মুনিমকেও।

সেখান থেকে মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ও আফিফ হোসেন ধ্রুবর ৫৮ রানের জুটিতে শুধু বিপর্যয় কাটানো নয় মিরপুর পিচ বিবেচনায় লড়াইয়ের সংগ্রহই পেয়ে যায় আবাহনী। ১৯ বলে ২ চার ৩ ছক্কায় সাইফউদ্দিন খেলেছেন ৪০ রানের ইনিংস। সাঝঘরে ফিরেছেন ইনিংসের ১ বল বাকি থাকতে, আনিসুল ইসলামের ঐ ওভারেও অবশ্য হাঁকিয়েছেন দুই ছক্কা।

তাকে যোগ্য সঙ্গ দেয়া আফিফের ব্যাট থেকে আসে ২৯ বলে ২ চারে ২৭ রান। ৩ ওভারে ১০ রান খরচায় ২ উইকেট তুলে নেন রাকিবুল, ৪ ওভারে ২৫ রান দিয়ে সমান উইকেট মোহাইমিনুল খানের।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

আবাহনী লিমিটেড ১৩৫/৬ (১৯), নাইম ২৩, মুনিম ১৬, শান্ত ১১, মুশফিক ৬, আফিফ ২৭*, মোসাদ্দেক ৮, সাইফউদ্দিন ৪০, শহিদুল ০*; মোহাইমিনুল ৪-০-২৫-২, রশিদ ৪-০-৩০-১, রাকিবুল ৩-০-১০-২, আনিসুল ১-০-১৮-১

ওল্ড ডিওএইচএস স্পোর্টস ক্লাব ১১৩/৩ (১৯), আনিসুল ২০, রাকিন ৪৩, জয় ১৫, মোহাইমিনুল ১০*, রায়হান ১৯*; সাইফউদ্দিন ৪-০-১৫-১, সানি ৪-০-১৩-১, শহিদুল ২-০-২৫-১

ফলাফলঃ আবাহনী লিমিটেড ২২ রানে জয়ী।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

১২৫ বছরের পুরনো রেকর্ড ভাঙলেন কনওয়ে

Read Next

পিএসএল ৬ এর বাকি অংশের সূচি প্রকাশ

Total
3
Share