আইপিএলের বাকি অংশে খেলা হবে না সাকিব-মুস্তাফিজের

সাকিব-মুস্তাফিজদের দেশে ফেরার উপায় জানতে চেয়ে মন্ত্রণালয়ে বিসিবির চিঠি

স্থগিত হওয়া আইপিএলের শেষাংশ আগামী সেপ্টেম্বর, অক্টোবরে অনুষ্ঠিত হবে সংযুক্ত আরব আমিরাতে। কোলকাতা নাইট রাইডার্সের বাংলাদেশি অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান খেলবেন না বাকি পর্বে। কামিন্সের পর এবার সাকিবের না ফেরার সংবাদ কেকেআর (কোলকাতা নাইট রাইডার্স) ফ্র‍্যাঞ্জাইজির জন্য বড় ধাক্কা। রাজস্থান রয়্যালসের হয়ে আইপিএল মাতানো মুস্তাফিজুর রহমানেরও অনাপত্তি পাওয়ার সম্ভাবনা কম।

২০২১ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে একাধিক আন্তর্জাতিক সিরিজ রয়েছে বাংলাদেশের। বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করার আগে সেই প্রতিযোগিতায় সেরা দল নামাতে চায় বিসিবি। সেই সময়ে ঘরের মাঠে নিউজিল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের সিরিজ থাকায় দলের সেরা অলরাউন্ডার সাকিবকে এনওসি দিতে চাইবে না বিসিবি। বাকি অংশে রাজস্থান রয়্যালসের হয়ে মাঠে নামতে পারবেন না মুস্তাফিজুর রহমানও।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) ইঙ্গিত দিয়েছে, আসন্ন ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ ও আইপিএলের শেষ পর্বে খেলার জন্য সাকিবের অনাপত্তিপত্র (এনওসি) পাওয়ার সম্ভাবনা কম। গত রবিবার একাত্তর টেলিভিশনকে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেছেন,

‘আমাদের সূচির পরিপ্রেক্ষিতে এনওসি (নো অবজেকশন সার্টিফিকেট) পাওয়া প্রায় অসম্ভব (সাকিবের পক্ষে)। আমি কোনও সম্ভাবনা বা কোনও সুযোগ দেখছি না। বিশ্বকাপ আসছে, এর আগে আমাদের জন্য প্রতিটি সিরিজ গুরুত্বপূর্ণ।’

সামনে বাংলাদেশ দলের ব্যস্ত সূচি। চলছে ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগ (ডিপিএল)। মোহামেডানের হয়ে সাকিব ডিপিএল খেলার জন্য পাকিস্তান সুপার লিগে না খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

আগামী জুন, জুলাইয়ে জিম্বাবুয়ের মাটিতে বাংলাদেশের তিন ফরম্যাটের সিরিজ। দেশে ফিরে আগস্টে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৫ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ। এরপর একই ফরম্যাট খেলতে বাংলাদেশে আসবে নিউজিল্যান্ড দল, বিশ্বকাপের আগে সেপ্টেম্বরে শেষ দিকে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি খেলতে আসবে ইংলিশরা।

কোলকাতার অস্ট্রেলিয়ান পেসার প্যাট কামিন্স এরমধ্যে জানিয়ে দিয়েছেন, আইপিএলের বাকি পর্বে খেলবেন না তিনি। অধিনায়ক এউইন মরগানেরও খেলার সম্ভাবনা কম।

এরমধ্যেই ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) পক্ষ হতে চূড়ান্তভাবে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে সংযুক্ত আরব-আমিরাতে সেপ্টেম্বর-অক্টোবরের উইন্ডোতে বাকি টুর্নামেন্ট আয়োজন করা হবে। দিনক্ষণ এখনো চূড়ান্তভাবে না জানলেও, ভারত-ইংল্যান্ড টেস্ট সিরিজ শেষের পরেই ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে ১০ অক্টোবরের মধ্যে টুর্নামেন্টের বাকি ৩১টি ম্যাচ খেলানো হবে।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে শ্রীলঙ্কার প্রাথমিক স্কোয়াড ঘোষণা

Read Next

মিরপুরে ১ দিনে ডিপিএলের ৩ টি করে ম্যাচ

Total
37
Share