অনুরোধ করে হলেও আবাহনীতে উপরের দিকে খেলতে চান সাইফউদ্দিন

অনুরোধ করে হলেও আবাহনীতে উপরের দিকে খেলতে চান সাইফউদ্দিন

শ্রীলঙ্কা সিরিজ চলাকালীনই মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন বলেছেন ৫-৬ নম্বরে ব্যাট করতে চান। যেখানে কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো আবার জানিয়েছেন সাইফউদ্দিনকে শীর্ষ ছয়ে ব্যাট করার মত উপযুক্ত মনে করছেন না এখনই। লঙ্কা সিরিজ শেষে আগামীকাল থেকে শুরু হওয়া ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগেও (ডিপিএল) ভাগ্য বদলাচ্ছেনা এই অলরাউন্ডারের। জাতীয় দলের বেশিরভাগ তারকা ক্রিকেটার নিয়ে গড়া আবাহনীতেও উপরের দিকে ব্যাট করার সম্ভাবনা নেই তার।

লিটন দাস, নাইম শেখ, মুশফিকুর রহিম, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, আফিফ হোসেন, নাজমুল হোসেন শান্তদের নিয়ে গড়া ব্যাটিং লাইনআপে সাইফউদ্দিনের ৫-৬ নম্বরে ব্যাট করার সম্ভাবনা ক্ষীণ। নিজেও সে বাস্তবাতা মানছেন, তবে টিম ম্যানেজমেন্টকে অনুরোধ করে হলেও কিছু ম্যাচে উপরের দিকে ব্যাট করতে চান।

আগামীকাল (৩১ মে) পারটেক্স স্পোর্টিং ক্লাবের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে ডিপিএল শুরু করবে আবাহনী। আজ (৩০ মে) মিরপুরে অনুশীলনের ফাঁকে গণমাধ্যমের সাথে আলাপে নিজের ব্যাটিং পজিশন নিয়ে ২৪ বছর বয়সী এই অলরাউন্ডার কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘সুযোগ আসবে না (৫-৬ নম্বর পজিশনে), এটাই বাস্তবতা। শুধু শুধু বলে তো লাভ নেই! ঘুরে-ঘারে সাতেই ব্যাট করতে হবে। অবশ্যই টিম ম্যানেজমেন্ট আফিফের আগে আমাকে নামাবে না। তারপরও এক-দুইটা ম্যাচে সুযোগ দেওয়ার জন্য টিম ম্যানেজমেন্টকে অনুরোধ করবো। যদি দল সুযোগ দেয়, যেহেতু গতবার আবাহনীর হয়ে ব্যাট হাতে দারুণ অবদান রেখেছি। যদি উনারা মনে করে তাহলে অবশ্যই। আমি উপরে খেলতে আগ্রহী।’

পেস বোলিংয়ের সাথে শেষদিকে ব্যাটিংটাও ভালো পারেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। তাকে দিয়েই একজন পেস বোলিং অলরাউন্ডার আক্ষেপ ঘুচাতে চায় বাংলাদেশ। তবে ঘরোয়া লিগে ফিনিশিং দায়িত্বটা কিছুটা প্রমাণ করলেও জাতীয় দলে ব্যাট হাতে সেই সুযোগটাই খুব একটা পাননি।

খনো পর্যন্ত খেলা ২৬ ওয়ানডেতে ১৭ ইনিংসে ব্যাট করার সুযোগ পেয়ে সাইফউদ্দিন ৩২৬ রান করেছেন। সব ইনিংসেই লোয়ার মিডলে স্লগ ওভারে ব্যাট করতে হয়েছে। যেখানে পরিসংখ্যান মতে বেশ সফলই এই অলরাউন্ডার।

১৭ ইনিংসে সবচেয়ে বেশি ৮ নম্বর পজিশনে ব্যাট করেছেন ১০ বার, ৭ ও ৯ নম্বরে যথাক্রমে ব্যাট করেছেন ৩ ও ৪ বার। ৮ নম্বরে নেমে ১০ বার ব্যাটিং করে ৫ বারই থেকেছেন অপরাজিত, আছে দুইটি ফিফটিও। ৭ ও ৯ নম্বরেও তার ব্যাট থেকে এসেছে চল্লিশোর্ধ্ব ইনিংস।

জাতীয় দলে নিজের ফিনিশিং ভূমিকা নিয়ে সাইফউদ্দিন বলেন, ‘সন্তুষ্টি বললে একেবারেই না। কিছুই করতে পারিনি, এটা সত্য। আর উন্নতির তো শেষ নেই। উন্নতির কথা মুখে বললে হবে না। নিজের তাগিদ থাকতে হবে। আর ম্যাচ ও অনুশীলনে অনেক সুযোগ পেতে হবে।’

‘আজ-কাল বললাম আর এক সপ্তাহ বা মাসের মধ্যে সেরা ফিনিশার হয়ে যাব- এটা কঠিন। হয়ত ঘরোয়া ক্রিকেটে নিজেকে কিছুটা প্রমাণ করতে পেরেছি। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ফিনিশারের ভূমিকা পালন করতে হলে আরও বড় ভূমিকা পালন করতে হবে, আরও অনেক বেশি সুযোগ পেতে হবে; সেটা প্র্যাকটিস হোক বা ম্যাচে হোক।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বঙ্গবন্ধু ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের টাইটেল স্পন্সর ওয়ালটন

Read Next

‘সাকিব থাকা যেকোন দলের জন্যই বাড়তি কিছু’

Total
14
Share