সিরিজ জিতলেও মন ভরেনি অধিনায়ক তামিমের

সিরিজ জিতলেও মন ভরেনি অধিনায়ক তামিমের

৩ ম্যাচ সিরিজের প্রথম দুইটি জিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম বারের মত ওয়ানডে সিরিজ জয় নিশ্চিত করলো বাংলাদেশ। গতকাল (২৫ মে) এক প্রকার লঙ্কানদের উড়িয়ে দিয়েও অতৃপ্ত অধিনায়ক তামিম ইকবাল। তার মতে এখনো পারফেক্ট ক্রিকেট খেলতে পারেনি তার দল, শেষ ওয়ানডেতে সেটি দেখাতে চায় টাইগাররা।

তামিম বলছেন ভাগ্যক্রমে ইতোমধ্যে সিরিজ তাদের হয়ে আছে। তার কথার বাস্তব প্রমাণও অবশ্য মিলে। দুই ম্যাচেই মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ছাড়া ব্যাট হাতে বাকিদের অবস্থা যাচ্ছেতাই। প্রথম ওয়ানডেতে অবশ্য অবদান ছিল অধিনায়ক তামিমেরও।

তামিমের ফিফটির (৫২) পরও প্রথম ম্যাচে ৯৯ রানে ৪ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। সেখান থেকে মুশফিকের ৮৪ ও রিয়াদের ৫৪ রানে ভর করে ২৫৭ রানের সংগ্রহ বাংলাদেশের। ব্যর্থ হয় লিটন দাস, সাকিব আল হাসান, মোহাম্মদ মিঠুনরা। ৩৩ রানে জয় পেলেও ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গার ৬০ বলে ৭৪ রানের ঝড়ে চিন্তার ভাঁজ ঠিকই পড়েছিল তামিমের কপালে।

দ্বিতীয় ম্যাচেও একই চিত্র, ৭৪ রানে নেই ৪ উইকেট। এবার তামিম সহ ব্যর্থ লিটন, সাকিব, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। আবার ত্রান কর্তা মুশফিক-রিয়াদ, দুজনের ৮৭ রানের জুটি, মুশফিকের সেঞ্চুরি। রিয়াদের (৪১) বিদায়ের পর একা হাতেই টানতে হয় মুশফিককে, খেলেছেন ১২৫ রানের ইনিংস। বোলারদের কল্যাণে ১০৩ রানের বড় জয় পেলেও দলের কাছে পারফেক্ট ক্রিকেটের খোঁজে অধিনায়ক তামিম।

গতকাল ম্যাচ শেষে পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে টাইগার দলপতি বলেন, ‘ভাগ্যক্রমে আমরা সিরিজ জিতে গিয়েছি। সিরিজ জিতেছি বলে খুবই খুশি। তবে আমি মনে করি এই সিরিজে আমরা এখনো পারফেক্ট খেলা খেলিনি। আশা করি তৃতীয় ওয়ানডেতে আমরা পারফেক্ট খেলাটা খেলতে পারব।’

‘যদি আপনি আজকের ম্যাচের দিকে তাকান, আমরা শুরুতে বেশ কিছু উইকেট হারিয়ে বসেছিলাম। এক পর্যায়ে ২০০ রানও অনেক কঠিন মনে হচ্ছিল। এরপর মুশফিক দুর্দান্ত খেলেছে, মাহমুদউল্লাহ কিছু অবদান রেখেছে। শেষমেশ আমরা কোনরকম এক স্কোর করেছি আমি বলবো। প্রথম ম্যাচের চেয়ে আজকের উইকেট ভালো ছিল।’

এদিন বোলারদের নৈপুণ্য আলাদা করে তুলে ধরলেন তামিম। স্পিনার মেহেদী মিরাজ প্রথম ম্যাচে ৪ উইকেটের পর দ্বিতীয় ম্যাচে নিলেন ৩ উইকেট। মুস্তাফিজুর রহমান ছিলেন চেনা ছন্দে, শিকার ৩ উইকেট। সাকিবের পকেটে ২ উইকেট, উঠে এসেছেন মাশরাফি বিন মর্তুজার সাথে দেশের হয়ে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারির তালিকায় শীর্ষে। ওয়ানডে অভিষেক হওয়া শরিফুল ইসলাম ছিলেন দুর্দান্ত, উইকেট কেবল একটি হলেও লঙ্কান ব্যাটসমায়নদের ভুগিয়েছেন বেশ।

আগের ম্যাচে উইকেট শূন্য থাকা তাসকিন আহমেদ একাদশে ছিলেন না। তবে ব্যাটিং ইনিংসে মাথায় আঘাত পেয়ে হাসপাতালে যাওয়া মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের কনকাশন বদলি হিসেবে নেমে বল হাতে আগুন ঝরান তাসকিন। উইকেট শূন্য থাকলেও অধিনায়কের মন কেড়েছেন।

বোলারদের নিয়ে তামিমের ভাষ্য, ‘বোলাররা ছিল অসাধারণ। যেভাবে অভিষেকে শরিফুল ইসলাম বল করেছে, কনকাশন ইস্যুর পর তাসকিন হুট করে এসেই যেভাবে বল করেছে তা দারুণ কিছু। মিরাজ আরও একবার ব্রিলিয়ান্ট ছিল, সাকিবও ভালো করেছে। বোলিং ডিপার্টমেন্ট নিয়ে আমি খুশি, ফিল্ডিং ডিপার্টমেন্টে আমরা ভালো ফিল্ডিং করা শুরু করেছি।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

হতাশ পেরেরা বসবেন ব্যাটসম্যানদের সঙ্গে

Read Next

বাংলাদেশের ম্যাচ বাড়ানোর প্রস্তাবে রাজি হয়েছে অস্ট্রেলিয়া

Total
11
Share