শান্তর বাদ পড়া ও সাকিবের তিনে ফেরা নিয়ে তামিমের ভাষ্য

শান্তকে একাদশে রাখতে চারে সাকিব, দলের সিদ্ধান্ত মেনেছেন সাকিব

ভবিষ্যত পরিকল্পনার অংশ হিসেবে নাজমুল হোসেন শান্তকে ওয়ানডেতে তিন নম্বরের জন্য পরিকল্পনা করে টিম ম্যানেজমেন্ট। তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ব্যর্থ হওয়ার পর নিউজিল্যান্ড সফরে একাদশ ও আসন্ন শ্রীলঙ্কা সিরিজের স্কোয়াড থেকেই বাদ দেয়া হয় এই বাঁহাতিকে। শ্রীলঙ্কা সিরিজ দিয়ে আবারও তিন নম্বরে ফিরছেন সাকিব আল হাসান। শান্তের বাদ পড়া ও সাকিবের আবারও তিন নম্বরে খেলা নিয়ে ব্যাখ্যা দিলেন অধিনায়ক তামিম ইকবাল।

শান্তকে ২০২৩ বিশ্বকাপ ভাবনায় তিন নম্বরে খেলানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিল টিম ম্যানেজমেন্ট। জানুয়ারিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজে এই পজিশনে খেলিয়ে অবশ্য লাভ হয়নি। তিন ম্যাচে রান করেছেন সাকূল্যে ৩৮। তখন থেকেই ফের পরিবর্তনের আভাস। ২০১৯ বিশ্বকাপে তিন নম্বরে দুর্দান্ত খেলা সাকিবেই আস্থা রাখছে দল।

গতকাল (২০ মে) ঘোষিত শ্রীলঙ্কা সিরিজের প্রথম দুই ওয়ানডের স্কোয়াডে নাম নেই শান্তর। দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনায় থাকা এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের বাদ পড়া প্রশ্নের সুযোগ তৈরি করে।

আজ (২১ মে) সিরিজ সামনে রেখে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক তামিম দিয়েছেন ব্যাখা। তার মতে এক সিরিজে বাদ পড়েই শান্তর সব শেষ হয়ে যায়নি। ঘরোয়া ক্রিকেটে ভালো খেলে ফিরে আসার সুযোগ থাকছে।

তামিম বলেন, ‘সে ৮-৯টা (মূলত ৮ ওয়ানডে) ওয়ানডে খেলেছে, দুর্ভাগ্যবশত যে পারফরম্যান্স তার কাছ থেকে আশা করেছি তা পাইনি। কিন্তু ব্যাক্তিগত ভাবে আমি , টিম ম্যানেজমেন্ট ও নির্বাচকরাও মনে করি যে শান্ত আমাদের ভবিষ্যত। একটা সিরিজে দলে না থাকায় সব শেষ হয়ে যায়নি। অধিনায়ক হিসেবে আমি মনে করি শান্তর দলকে দেয়ার এখনও অনেক কিছু আছে।’

‘হয়ত এখন এই ফরম্যাট থেকে তার একটু বিশ্রাম দরকার। এরপর ঘরোয়া ক্রিকেটে রান করুক এবং আবার দলে শক্ত ভাবে ফিরে আসুক। এটা শুধু এ সিরিজ থেকে বাদ পড়াতেই আমরা তার প্রতি ধৈর্য্য দেখাইনি বা সে আমাদের পরিকল্পনায় নেই এমন কিছু না।’

এদিকে ইংল্যান্ডে বিশ্বকাপে তিন নম্বরে খেলে ৬০৬ রান করা সাকিব যখন আবারও তিনে ফিরতে যাচ্ছে তখন তার কাছে প্রত্যাশা কেমন থাকবে সেটাও ব্যাখ্যা করেছেন তামিম। তার মতে সবসময় সাকিবের কাছে একই রকম রান আশা করাটা ভুল হবে। বাড়তি চাপ না বাড়িয়ে বরং তাকে তার খেলাটাই খেলতে দিতে চায় টিম ম্যানেজমেন্ট।

তামিম বলেন, ‘সাকিব তিন নম্বরে ব্যাট করবে। প্রত্যাশা অবশ্যই বেশি থাকবে। তবে মনে রাখতে হবে, সাকিব বিশ্বকাপে যা করেছে, সেটা ব্যতিক্রমী। আমি তো চাইবো, প্রতি ম্যাচেই অমন (বিশ্বকাপের মত পারফরম্যান্স) হোক, সেও চাইবে। তবে এটা তো প্রতি ম্যাচে সম্ভব না। একটা ছেলে ৮-৯ ম্যাচে ৬০০ রান করে ফেলেছে, এটা তো আসলে সচরাচর দেখি না। …টেনশনের ব্যাপার নাই।’

‘আমি নিশ্চিত সে ভাল করবে। এক নাম্বার, সে এখানে ভাল করেছে। সে সেটি চালিয়ে যাবে। তবে এটাও মনে রাখতে হবে যে, যদি শুধু বিশ্বকাপের কথা চিন্তা করে দেখেন যে ওই ৬০০টা রান, এভাবে করে ক্রিকেট খেলাটা একটু কঠিন। যদি এভাবে না হয়, তাহলে প্যানিক করার কিছু নেই, আমি নিশ্চিতভাবেই প্যানিক করব না।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটের সভাপতি হলেন শাম্মি সিলভা

Read Next

বিরক্ত তামিম সাংবাদিকদের যে অনুরোধ করলেন

Total
3
Share