অবসরের ঘোষণা দিলেন বিজে ওয়াটলিং

অবসরের ঘোষণা দিলেন বিজে ওয়াটলিং

নিউজিল্যান্ডের উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান বিজে (ব্রাডলি-জন) ওয়াটলিং সব ধরণের ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দিয়েছেন। ইংল্যান্ডের মাটিতে নিউজিল্যান্ডের আসন্ন টেস্ট সফর শেষে ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়ে গ্লাভস জোড়া তুলে রাখবেন ওয়াটলিং।

আজ (১১ মে) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট (এনজেডসি) নিশ্চিত করেছে ওয়াটলিংয়ের অবসরের খবর। সেখানে জানানো হয়েছে শুক্রবার প্রকাশিতব্য নিউজিল্যান্ডের কেন্দ্রীয় চুক্তিবদ্ধ (২০২১-২২) ক্রিকেটারদের তালিকায় থাকবে না তার নাম।

সম্প্রতি দ্বিতীয় সন্তানের বাবা হওয়া ওয়াটলিং অবসরের ঘোষণা দিয়ে বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডকে প্রতিনিধিত্ব করা বিরাট গর্বের, বিশেষ করে টেস্ট ক্যাপ পরাটা। টেস্ট ক্রিকেট খেলাটার চূড়া। আমি সাদা পোশাকে সতীর্থদের সঙ্গে মাঠের প্রতিটা সময় উপভোগ করেছি।’

‘ড্রেসিং রুমে বসে পাচ দিনের পরিশ্রম শেষ বি-য়ার খাওয়াটা মিস করব।’

আমি দারুণ কিছু খেলোয়াড়ের সঙ্গে খেলেছি, দারুণ কিছু বন্ধু বানিয়েছি। অনেক সাহায্য পেয়েছি যার জন্য আমি কৃতজ্ঞ থাকব আজীবন।’

‘আমার স্ত্রী জেস আমাকে টানা সমর্থন দিয়ে গেছে। আমি নিশ্চিতভাবেই তার সাথে ও আমার সন্তানদের সঙ্গে আরও অনেক বেশি সময় কাটাতে চাই। আমি আমার মায়ের কাছে ঋণী যে কিনা আমাকে খুব দ্রুতই সঠিক পথের দিশা দিয়েছে এবং সবসময় আমার পাশে থেকেছে।’

‘যদিও আমি ইংল্যান্ড সফরের আগে অবসরের ঘোষণা দিচ্ছি তবুও আমার ফোকাস আছে সামনের ৩ টেস্টের দিকে। সেখানে পারফর্ম করার জন্য আমি প্রস্তুত হচ্ছি।’

‘এই সফর আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জিং হবে। আমরা জানি সফল হতে গেলে আমাদের সেরাটা দিতে হবে।’

১৯৮৫ সালের ৯ জুলাই দক্ষিণ আফ্রিকার ডারবানে জন্ম ব্রাডলি-জন ওয়াটলিংয়ের। ১০ বছর বয়সে পরিবার সহ নিউজিল্যান্ডে চলে আসেন ওয়াটলিং। ২০০৩-০৪ এ বাংলাদেশে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ড যুবাদের প্রতিনিধিত্ব করেন তিনি।

২০০৬ থেকে ২০০৯ অব্দি ঘরোয়া ক্রিকেটে রানের বন্যা বইয়ে দেওয়া ওয়াটলিংয়ের আন্তর্জাতিক অভিষেক হয় ২০০৯ সালের নভেম্বরে। দুবাইয়ে পাকিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি দিয়ে। সেবছরেই ডিসেম্বরে টেস্ট অভিষেক, নেপিয়ারে প্রতিপক্ষ সেই পাকিস্তানই। ২০১০ সালের আগস্টে যেয়ে ওয়ানডে অভিষেক, ডাম্বুলায় শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে।

২০১০ সালে ব্রেন্ডন ম্যাককুলাম কেবল ওয়ানডেতে কিপিং করার সিদ্ধান্ত নিলে টেস্টে নিউজিল্যান্ডের দীর্ঘমেয়াদী কিপার হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেন, ২০০৯ থেকে ২০১২ সালে কেবল ৮ টেস্ট খেলা ওয়াটলিং মাত্র ২ টি খেলেছেন উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান হিসাবে। ২০১৩ থেকে কিউইদের উইকেটরক্ষক হিসাবে প্রথম পছন্দ ওয়াটলিংই।

৩৬ ছুঁইছুঁই বিজে ওয়াটলিং এখন অব্দি খেলেছেন ৭৩ টেস্ট, ২৮ ওয়ানডে ও ৫ টি-টোয়েন্টি। রান করেছেন যথাক্রমে ৩৭৭৩, ৫৭৩ ও ৩৮।

টেস্ট ক্রিকেটে নিউজিল্যান্ডের পক্ষে সর্বোচ্চ ২৫৭ টি ডিসমিসালের রেকর্ড বিজে ওয়াটলিংয়ের। বর্তমান সময়ে খেলছেন এমন উইকেটরক্ষকের মধ্যে তার চেয়ে বেশি টেস্ট ডিসমিসাল নেই আর কারও।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

করোনার প্রভাবে ইসিবির ক্ষতি ১৬.১ মিলিয়ন পাউন্ড

Read Next

বাংলাদেশের বিপক্ষে শ্রীলঙ্কার ওয়ানডে স্কোয়াড ঘোষণা

Total
5
Share