উৎসবের আমেজে মুশফিক-লিটনদের নিয়েই শেষ হল ঈদ পূর্ব অনুশীলন

Vinkmag ad

ইমরুল কায়েসকে দেখে দ্রুত হাত মেলাতে এগিয়ে আসেন ফিল্ডিং কোচ রায়ান কুক। এরপর খানিক আলাপচারিতা, ইমরুলের সাথে দেখা হয়েই প্রধান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো সহ তাসকিন আহমেদ, মেহেদী মিরাজদের খুনসুটি। তবে ইমরুলের সাথে আনুষ্ঠানিকভাবে ট্রেনার ট্রেভর নিক লির প্রথম কাজ করা, বেশ কিছুক্ষণ আলাপ হল দুজনের। শ্রীলঙ্কা সফর সামনে রেখে আজ মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ঈদের আগে শেষ অনুশীলন সেশনে বেশ আনন্দের আবহের দেখাই মিলেছে।

শ্রীলঙ্কা বাংলাদেশে আসবে ১৬ মে, সিরিজ শুরু ২৩ মে থেকে। তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের সবকটি ম্যাচই অনুষ্ঠিত হবে মিরপুরে, সবকটিই দিবারাত্রির ম্যাচ।

সিরিজ সামনে রেখে গত ২ মে থেকে অনুশীলন শুরু করে বাংলাদেশের প্রাথমিক স্কোয়াডে থাকা ক্রিকেটারদের একাংশ। মূলত টেস্ট সিরিজ খেলতে শ্রীলঙ্কায় অবস্থান করা ক্রিকেটারদের বাইরে দেশে থাকা ক্রিকেটাড়দের নিয়ে দেশি কোচদের তত্বাবধানে শুরু হয় অনুশীলন। ৫ মে পর্যন্ত চলার পর সূচি অনুসারে ৬ মে ছিল বিশ্রাম।

৪ মে শ্রীলঙ্কা থেকে ফেরা টেস্ট দলে থাকা ওয়ানডে সিরিজের ক্রিকেটারদের যোগ দেয়ার কথা ছিল। অর্থাৎ ৭ মে থেকে ৯ মে পর্যন্ত পুরো দল পুরোদমের অনুশীলন করবে এমনটাই সূচিতে ছিল। কিন্তু শ্রীলঙ্কা ফেরত ক্রিকেটার, কোচিং স্টাফদের ১৪ দিনের হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। ফলে ৭ ও ৮ মে আগের মত দেশী কোচদের অধীনে অনুশীলন করে কেবল আগে থেকেই দেশে থাকা ক্রিকেটাররা।

শ্রীলঙ্কায় বায়ো বাবলের মধ্যে থাকার ফলে করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট নিয়ে বাংলাদেশে আসা ক্রিকেটারদের জন্য বিশেষ আবেদন করে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। কিন্তু এই আবেদনের মৌখিক সাড়া মিললেও লিখিত অনুমতি পাওয়া যায় গতকাল (৮ মে)। তবে শেষ পর্যন্ত মুশফিকরা মাঠে ফিরতে পেরেছে আজ (৯ মে) ঈদের আগে শেষ অনুশীলন সেশনে। ঈদের ছুটি থাকবে ১০ মে থেকে ১৬ মে পর্যন্ত।

এদিন অবশ্য শ্রীলঙ্কা ফেরত ওয়ানডের প্রাথমিক স্কোয়াডে থাকা ক্রিকেটারদের সবাই অনুশীলনে আসেননি। ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল, পেসার শরিফুল ইসলাম, শহিদুল ইসলাম ও নাজমুল হোসেন শান্তকে দেখা যায়নি।

মুশফিকুর রহিম, লিটন দাস, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ ও মোহাম্মদ মিঠুনরা অবশ্য এদিন যোগ দেন আগে থেকেই অনুশীলন করা সৌম্য সরকার, ইমরুল কায়েস, আফিফ হোসেনদের সাথে।

দুপুর দেড়টায় শুরুর কথা থাকলেও মিনিট বিশেক দেরিতে শুরু হয় টাইগারদের অনুশীলন পর্ব। প্রধান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো, ফিল্ডিং কোচ রায়ান কুক, ট্রেনার ট্রেভর নিক লি ছাড়াও ক্রিকেটারদের সাথে কাজ করেছেন আগে থেকেই অনুশীলন দেখভাল করা মিজানুর রহমান বাবুল, তালহা জুবায়েররা। ছিলেন শ্রীলঙ্কা সফরে টিম লিডার হিসেবে কাজ করা বিসিবি পরিচালক খালেদ মাহমুদ সুজন, বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের ডেপুটি ম্যানেজার শাহরিয়ার নাফীস।

প্রায় ৪০ মিনিট ধরে ক্যাচ অনুশীলনে ব্যস্ত সময় পার করে তাসকিন আহমেদ, লিটন দাস, মুশফিকুর রহিম সহ অনুশীলনে যোগ দেয়া ক্রিকেটাররা। এরপর শের-ই-বাংলার সেন্টার উইকেটে ব্যাট হাতে নেমে পড়েন মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতরা। স্কোয়াডে না থাকলেও শুরু থেকে নেটে বল করে যাওয়া আল আমিন হোসেন, মেহেদী হাসান রানা, আমিনুল ইসলাম বিপ্লবরা এদিনও নেটে সঙ্গ দেন বাকিদের।

আগের দুই দিন পাওয়ার হিটিংয়ে মনযোগ দিতে দেখা গেলেও আজ ম্যাচ পরিস্থিতির মত করেই অনুশীলন করেছেন ব্যাটসম্যানরা। মারার বলে মেরেছেন, ছাড়ার বল ছেড়েছেন, ডিফেন্স করেছেন বলের মেরিট বিবেচনা করে। আর এভাবেই শেষ হয়েছে লঙ্কানদের বিপক্ষে প্রস্তুতি নেয়ার মিশনের ঈদের আগের পর্ব। যদিও একদমই ঐচ্ছিক অনুশীলনের সুযোগ থাকবে আগামীকালও। ঈদের ছুটি শেষে ১৭ মে হোটেলে প্রবেশ করার কথা ক্রিকেটারদের।

আজকের অনুশীলন শেষে মিরপুরে গণমাধ্যমকে টিম লিডার খালেদ মাহমুদ সুজন বলেন, ‘অনুশীলন ঐচ্ছিক ছিল, যেহেতু আমরা সরকারের অনুমতি পেতে দেরি করেছি। অনেকে টিকিট করে ফেলে, অনেকে চলে গিয়েছে। তারপরও আজকে অনেকগুলো ছেলে কাজ করেছে। এক্সাক্ট কতজন সেটা আমি বলতে পারবোনা। তাও ১৫-১৬ জন হবে। আগামীকালও ঐচ্ছিক অনুশীলন রাখা হয়েছে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

তাবিশের গল্প ছুয়েছে হার্শার হৃদয়

Read Next

শ্রীলঙ্কার নবীনদের শক্তিশালী মানছেন খালেদ মাহমুদ সুজনও

Total
24
Share