আরেক দফা ব্যক্তিগত অর্জনের গান শোনালেন মুমিনুল

আরেক দফা ব্যক্তিগত অর্জনের গান শোনালেন মুমিনুল

দল হিসেবে টানা ব্যর্থতার বৃত্তে থাকা বাংলাদেশ দল প্রতিটি সিরিজ থেকেই কিছু প্রাপ্তি খুঁজে নেয়। লঙ্কানদের বিপক্ষে সদ্য সমাপ্ত টেস্ট সিরিজে হারের পরও কিছু ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সকে প্রাপ্তি হিসেবে তুলে ধরলেন টাইগার অধিনায়ক মুমিনুল হক। অবশ্য দল হিসেবে খেলতে না পারার আক্ষেপও লুকালেন না সাদা পোশাকে বাংলাদেশ দলপতি।

ক্যান্ডির পাল্লেকেলের ফ্ল্যাট উইকেটে প্রথম টেস্টে দুই দলই ব্যাট হাতে ঝলক দেখিয়েছে। নাজমুল হোসেন শান্ত, মুমিনুল হকের সেঞ্চুরির সাথে তামিম ইকবালের ৯২, ফিফটি ছিল লিটন, মুশফিকেরও। পঞ্চম দিনে এসেও বোলারদের কোন সাহায্য করতে পারেনি। যে কারণে ড্র হওয়া ম্যাচে ডিমেরিট পয়েন্ট যোগ হয় পাল্লেকেলের উইকেটের পাশে।

তবে দ্বিতীয় টেস্টেই স্পিনাররা করেছেন রাজত্ব। বিশেষ করে লঙ্কান অভিষিক্ত বাঁহাতি স্পিনার প্রবীন জয়াবিক্রমের রেকর্ড গড়া বোলিংয়ে ২০৯ রানে হেরেছে বাংলাদেশ। ফলো অনে ফেলার সুযোগ পেয়েও তা করেনি শ্রীলঙ্কা, নাহয় হারতে হত ইনিংস ব্যবধানেই। দুই ইনিংস মিলে বাংলাদেশ ১৫ রানে পিছিয়ে ছিল শ্রীলঙ্কার প্রথম ইনিংসের রানের চেয়ে। প্রথম টেস্টে ব্যাট হাতে সফল হওয়া বাংলাদেশ ব্যাটসম্যানরা দ্বিতীয় টেস্টে মুখ থুবড়ে পড়ে।

তবে তামিম খেলেছেন প্রথম ইনিংসে ৯২ রানের ইনিংস। ৪ ইনিংসে তার ৩ ফিফটি। শান্ত, মুমিনুলের সেঞ্চুরি ছাড়াও সিরিজে ব্যক্তিগত অর্জন বিবেচনায় নিলে পেসার তাসকিন আহমেদের আগুন ঝরানো বোলিং, দ্বিতীয় টেস্টে তাইজুল ইসলামের ৫ উইকেট শিকার অন্যতম।

১-০ ব্যবধানে সিরিজ হারের পর আজ (৩ মে) অধিনায়ক মুমিনুল সংবাদ সম্মেলনে তুলে ধরেন সিরিজের প্রাপ্তিগুলো, ‘অবশ্যই প্রাপ্তির কিছু না কিছু আছে। আমি সিরিজ হেরেছি এর মানে এই না যে সব কিছু হেরে গিয়েছি। হয়তো আমি জানি একটু সমালোচনা হবে, অনেকেই অনেক কথা বলবে। এর ভেতরেও অনেক ইতিবাচক দিক আছে আমার কাছে মনে হয়। প্রথম টেস্টে আমি যেটা সব সময় চাচ্ছিলাম যে দলগতভাবে খেলব। যেটা আমরা শেষ ২-১টি টেস্ট ম্যাচে খেলতে পারিনি। আমার কাছে মনে হয় প্রথম টেস্টে আমরা দল হিসেবে খেলতে পেরেছি।’

‘আমরা তখনই ভালো খেলি যখন আমরা দলগতভাবে খেলতে পারি। দলের সবাই যখন অবদান রাখে তখন আমরা দল হিসেবে ভালো করতে পারি। আপনি যদি দেখেন তামিম ভাইর দুইটা নব্বই আছে, একটা ৭০ আছে। শান্তর একটা ১৬৩ আছে, মুশফিক ভাই ও লিটনের হাফ সেঞ্চুরি আছে। তাইজুলের ৫ উইকেট আছে।’

‘আমার কাছে মনে হয় যেটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, আপনারাও হয়তো অপেক্ষায় ছিলেন এবার কোন পেসার কি কিছু করতে পারছে কিনা, সেই হিসেবে তাসকিনকে দেখেছেন। আগের চেয়ে অনেক ভালো এখন। অনেক উন্নতি করেছে। আমার কাছে মনে হয় অনেক ইতিবাচক দিক আছে এই টেস্ট সিরিজে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় বললেন থিসারা পেরেরা

Read Next

সিনিয়রদের যে মন্ত্রে সফল হয়েছেন রেকর্ড বয় জয়াবিক্রমা

Total
3
Share