খাদের কিনারায় দাঁড়িয়েও লিটন-মিরাজে স্বপ্ন বুনছেন শান্ত

সামর্থ্য নিয়ে বিশ্বাসের ফলই পেলেন শান্ত
Vinkmag ad

জিততে হলে ৫ উইকেটে শেষদিনে করতে হবে ২৬০ রান, ড্র করতে হলে কাটিয়ে দিতে হবে সারাদিন। চতুর্থ দিন ৪৮ ওভার ব্যাট করেই ৫ উইকেট হারানো বাংলাদেশের লোয়ার মিডল অর্ডারের জন্য কাজটা কত কঠিন সেটি ব্যাখ্যার প্রয়োজন নেই। লঙ্কান স্পিনারদের তোপে বাংলাদেশের পরাজয়ই পাল্লেকেলের দ্বিতীয় টেস্টে সম্ভাব্য ফল। তবে অপরাজিত দুই ব্যাটসম্যান লিটন দাস ও মেহেদী হাসান মিরাজের ব্যাটে এখনো ভালো কিছুর স্বপ্ন দেখছেন নাজমুল হোসেন শান্ত।

তৃতীয় দিন শেষেই পরাজয় চোখ রাঙাচ্ছিল বাংলাদেশকে। বাংলাদেশকে বড় লক্ষ্য ছুঁড়ে দিতে গিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে শ্রীলঙ্কার কিছুটা বেশি সময় ব্যাটিং ও শেষদিকে আলোক স্বল্পতায় কয়েক ওভার নষ্ট হওয়াতে ম্যাচ গড়িয়েছে পঞ্চম দিনে।

বাংলাদেশের জন্য লক্ষ্য ৪৩৭, যা তাড়া করা মানে নিজেদের তো বটেই ক্রিকেট ইতিহাসের সর্বোচ্চ রান তাড়া করার রেকর্ড গড়তে হবে। চতুর্থ দিন ১২ ওভার কম খেলা হলেও ইতোমধ্যে ৫ উইকেট হারিয়ে পরাজয়ের দ্বারপ্রান্তে বাংলাদেশ। ১৪ রানে লিটন ও ৪ রানে অপরাজিত মিরাজ। নিশ্চিত হারের অপেক্ষায় থাকা বাংলাদেশকে ম্যাচ বাঁচাতে করতে হবে অবিশ্বাস্য কিছু।

দিনশেষে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বাঁহাতি ব্যাটসম্যান নাজমুল হোসেন শান্ত অবশ্য শোনালেন আশার বাণী। তবে সেক্ষেত্রে এই তরুণ ব্যাটসম্যান তাকিয়ে অপরাজিত দুই ব্যাটসম্যানের দিকে।

তিনি বলেন, ‘এখনও দুইজন ব্যাটসম্যান ব্যাটিং করছে। এই পরিকল্পনাই থাকবে যে দুইজন ব্যাটসম্যান যতক্ষণ ব্যাটিং করতে পারে আমাদের জন্য ভালো। প্রথম দুইটা ঘণ্টা, প্রথম সেশন যদি আমাদের ব্যাটসম্যানরা ভালো ব্যাটিং করতে পারে তাহলে পরবর্তীতে ভালো কিছু চিন্তা করতে পারব।’

৪৩৭ তাড়া করতে নেমে ইতিবাচক ক্রিকেট খেলার চেষ্টা করেছিল তামিম ইকবাল, সাইফ হাসান থেকে শুরু করে মুশফিকুর রহিমও। তবে ক্রিজে টিকেও ইনিংস লম্বা করতে পারেননি কেউই। ৫ উইকেট হারিয়ে ১৭৭ রান তোলার পথে ইনিংসে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ মুশফিকের ৪০। টাইগারদের ৫ উইকেটের সবকটিই শিকার দুই স্পিনার প্রভীন জয়াবিক্রমা ও রমেশ মেন্ডিসের। শান্ত বলছেন ৫ উইকেতের পরিবর্তে ৩ উইকেট হারালে দিনটা নিজেদের বলতে পারতেন।

বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যানের ভাষ্য, ‘টেস্ট ক্রিকেটে চতুর্থ ও পঞ্চম দিনে স্পিনারদের সহায়তা থাকবে এটাই স্বাভাবিক। আমরা সবাই ভালো শুরু পেয়েছিলাম। ভালো শুরুর পরও ইনিংসগুলো বড় করতে পারেনি। হয়ত ৩ উইকেটের বেশি না পড়লে দিনটা আমাদের আরও ভালো হত।’

এদিকে ৭ উইকেটে ৪৯৩ রানে শ্রীলঙ্কার প্রথম ইনিংসের জবাবে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ২৫১ রানেই গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ। ফলো অনের লজ্জায় পড়লেও তা করায়নি স্বাগতিকরা। শান্তের মতে প্রথম ইনিংসের ব্যাটিং ব্যর্থতাই বাংলাদেশকে ম্যাচ থেকে দূরে সরিয়ে নেয়।

২২ বছর বয়সী এই এই ব্যাটসম্যান যোগ করেন, ‘প্রথম ইনিংসে আরও ভালো ব্যাটিং করা উচিৎ ছিল। ওখানে আমরা একটু পেছনে পড়ে গেছি। আমরা ভালো শুরু করেছিলাম। ৩ উইকেটে ২০০ রানের মত ছিলাম। ওখান থেকে পরে আর পার্টনারশিপ হয়নি। ঐ জায়গাতেই আমরা পিছিয়ে পড়েছি।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

ইমরুল জানতেন তিনি পাশেই আছেন

Read Next

বিশ্বকাপ ভাবনায় এবারের ডিপিএল টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে

Total
1
Share