অজুহাত নেই আবার অজুহাত আছে টাইগার কোচ রাসেল ডোমিঙ্গোর

টেস্ট ড্র করাকে বিশাল সাফল্য মনে করায় হতাশ ডোমিঙ্গো

শ্রীলঙ্কান স্পিনারদের দাপটের দিনে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ২৫১ রানে অলআউট হয়ে ফলো অনে পড়ে বাংলাদেশ। মুমিনুল হকের দলকে ফলো অন না করালেও হাতে ৮ উইকেট নিয়ে ২৬৯ রানের লিডে পাল্লেকেলে টেস্ট জয়ের পথেই আছে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশের ব্যাতিং ব্যর্থতার কোণ অজুহাত দিতে না চাইলেও মানসিকভাবে ক্লান্তিকে টেনে আনছেন টাইগারদের প্রধান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো।

আগের দিন ৬ উইকেটে ৪৬৯ রানে দিন শেষ করা শ্রীলঙ্কা আজ সকালে ১ উইকেট হারিয়ে ২৪ রান যোগ করেই ইনিংস ঘোষণা করে। দ্বিতীয় দিন থেকেই উইকেটে স্পিনারদের সাহায্য পাওয়া দেখে দ্রুতই বাংলাদেশকে ব্যাট করানোর ভাবনা স্বাগতিকদের।

পরিকল্পনা কাজে লাগতে বেশি সময় নেয়নি লঙ্কান দুই স্পিনার রমেশ মেন্ডিস ও প্রবীন জয়াবিক্রমা। তামিমের ৯২ রানের দারুণ এক ইনিংসের পর মুশফিক, মুমিনুলরাও সেট হয়ে উইকেট দিয়ে আসতে বাধ্য হয়েছেন। শেষদিকে ৩৭ রানের ব্যবধানে বাংলাদেশ হারিয়েছে ৬ উইকেট। অভিষেকেই স্পিন ছোবলে ৬ উইকেট জয়াবিক্রমার, রমেশ মেন্ডিসের শিকার দুইটি। শেষদিকে পেসার সুরাঙ্গা লাকমলও নেন দুই উইকেট।

বাংলাদেশের ব্যাটিং ব্যর্থতা নিয়ে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে কোন অজুহাত দিতে চাননি রাসেল ডোমিঙ্গো। তবে দুই টেস্টের মাঝে ব্যবধান কম হওয়াতে সর্বশেষ কয়েকদিনে প্রায় ৩৫০ ওভার ফিল্ডিং করতে হয়েছে বাংলাদেশকে। ফলে মানসিকভাবে অবসাদ গ্রাস করতে পারে বলে মনে করছেন টাইগার কোচ।

তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয় এটা (ব্যাটিং ধস) বেশ কিছু জিনিসের সমন্বয়। ছেলেরা গত ৪-৫ দিনে অনেক সময় মাঠে কাটিয়েছে, তারা হয়ত মানসিকভাবে একটু ক্লান্ত। আমার মনে হয় আমরা শেষ ৪-৫ দিনে প্রায় ৩৭০ (মূলত ৩৪৫.২ ওভার) ওভারের জন্য মাঠে ছিলাম, যা অবশ্যই একজন ক্রিকেটারকে ক্লান্ত করে ফেলে। শারীরিক এবং মানসিকভাবে।’

‘সেটি একটি কারণ হতে পারে। অবশ্যই সেখানে একটি বা দুটি সফট ডিসমিসাল ছিল। কিন্তু আমাদের দ্বিতীয় ইনিংস এখনও বাকি আছে এবং আমাদের নিজেদেরকে মানসিকভাবে প্রস্তুত করতে হবে সেটির জন্য যা গুরুত্বপূর্ণ হবে।’

তবে পরের বক্তব্যেই জানান দিলেন মানসিক অবসাদের পাশাপাশি উইকেটের আচরণ ও ব্যাটিংয়ের সময় নেয়া কিছু বাজে সিদ্ধান্তও ব্যর্থতার পেছনে দায়ী।

ডোমিঙ্গো বলেন, ‘আমার মনে দুটি মিলিয়েই হয়েছে (মানসিকভাবে ক্লান্ত ও উইকেটের আচরণ)। তারা সেট ছিল এবং ভালো খেলছিল। কিন্তু ছেলেরা পরিশ্রম করছে, অনেক চেষ্টা করছে, তারা মাঠে পরিশ্রম করছে, নেটে করছে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমরা ব্যাটিংয়ের সময় কিছু বাজে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমরা মঠে এত সময় কাটিয়েছি যে সব দলেরই ব্রেকিং পয়েন্ট থাকে, আমাদের ব্রেকিং পয়েন্ট ছিল আজকে যখন আমরা ব্যাটিং করছিলাম।’

‘আজকে আমাদের জন্য কঠিন দিন ছিল। কিন্তু আমাদের ইতিবাচক থাকতে হবে এবং এখনও অনেক ক্রিকেট বাকি। কালকে আমরা দ্রুত কিছু উইকেট নেয়ার চেষ্টা করব এবং আপনি জানেন না ক্রিকেটে কখন কী হয়। আমাদের চতুর্থ দিনে ইতিবাচক মানসিকতা নিয়ে যেতে হবে।’

‘কোন অজুহাত নেই। ছেলেরা তাদের সর্বোচ্চটা দিয়েছে, তারা অনেক পরিশ্রম করছে, তারা চেষ্টা করছে। অজুহাত নয়, কিন্তু মাঠে অনেক সময় কাটানোয় তারা হয়ত মনোযোগে একটু ঘাটতি হয়েছিল ব্যাটিংয়ের সময়। আপনাদের মনে রাখতে হবে ছেলেরা প্রায় ৩৮০ ওভার মাঠে কাটিয়েছে। সেটা মানসিক ও শারীরিকভাবে প্রভাব রাখে এবং সেটিই হইয়ত আজকে আমাদের ব্যাটিং ধসের আংশিক কারণ।

Vinkmag ad

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

অভিষিক্ত জয়াবিক্রমার স্পিনে নাজেহাল বাংলাদেশ

Read Next

শ্রীলঙ্কাকে ধন্যবাদ দিতে চান না ডোমিঙ্গো

Total
10
Share