হাসিমুখে চা বিরতিতে গেল শ্রীলঙ্কা

হাসিমুখে চা বিরতিতে গেল শ্রীলঙ্কা
Vinkmag ad

লাঞ্চের ঠিক আগে ২ উইকেট হারিয়ে ব্যাকফুটে যাওয়া বাংলাদেশ লাঞ্চের পর হারিয়েছে আরও ২ উইকেট। চা বিরতির আগে সেঞ্চুরি মিস করা তামিম ইকবাল ও মুশফিকুর রহিমকে হারিয়ে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ২১৪ রান। উইকেটে স্পিন ধরবে এমন আভাস প্রথম সেশনেই দিয়েছিল লঙ্কান স্পিনাররা। লাঞ্চের পরের সেশনে রীতিমত ভড়কে দেয়ার উপক্রম টাইগার ব্যাটসম্যানদের।

২৭৯ রানে পিছিয়ে থেকে চা বিরতিতে যাওয়ার সময় মুমিনুল হক অপরাজিত ৪৭ রানে। তামিম ইকবাল আউট হয়েছেন আরেক দফা নার্ভাস নাইনটিজে, এবার ফিরলেন ৯২ রান করে।

২ উইকেটে ৯৯ রান নিয়ে দ্বিতীয় সেশন শুরু করেছিল বাংলাদেশ। স্বাগতিক স্পিনারদের ঘূর্ণি জাদুতে অস্বস্তিতে মোড়ানো সময় পার করতে হয়েছে বাংলাদেশকে। লাঞ্চের পর তৃতীয় ওভারের দ্বিতীয় বলেই (ব্যক্তিগত ১ রানে) আউট হওয়ার সুযোগ তৈরি করেন টাইগার কাপ্তান মুমিনুল।

স্পিনার জয়াবিক্রমার শর্ট বলকে পুল শটে উড়িয়ে মারতে গিয়েছিলেন, ব্যাকওয়ার্ড স্কয়ারে ফিল্ডার রমেশ মেন্ডিস নাগালের মধ্যে পেলেও তালুবন্দী করতে পারেননি। জয়াবিক্রমার বলে ব্যক্তিগত ৮০ রানে শর্ট লেগে দাঁড়িয়ে তামিমের দেয়া ক্যাচ লুফে নিতে পারেননি ওশাদা ফার্নান্দো।

৩৬তম ওভারের চতুর্থ বলে জয়াবিক্রমা আবারও বঞ্চিত হন মুমিনুল হকের উইকেট, অভিষিক্ত এই বাঁহাতির ফ্লাইটেড ডেলিভারিকে ডাউন দ্য ট্র্যাকে এসে মিড উইকেট দিয়ে উড়িয়ে মারতে চান মুমিনুল। তবে এবার সহজ ক্যাচ হাত ছাড়া করেন প্রতিপক্ষ অধিনায়ক দিমুথ করুনারত্নে। ব্যক্তিগত ১১ রানে আরেক দফা জীবন পেলেন টাইগার অধিনায়ক।

৪২ তম ওভারের চতুর্থ বলে জয়াবিক্রমার বলে তামিমের ক্যাচ লুফে নিতে ব্যর্থ শর্ট লেগে দাঁড়ানো ফিল্ডার। যদিও বেশ কঠিন সুযোগই বলতে হয়, তালুবন্দী করতে পারলে দুর্দান্ত এক ক্যাচই হত। ২ ওভার পরই অবশ্য তামিমকে ফেরাতে সফল হয়েছেন জয়াবিক্রমা।

শেষ পর্যন্ত জয়াবিক্রমা অভিষেক রাঙিয়ে তামিম ফিরেছেন নার্ভাস নাইনটিজে। লাঞ্চের পর নিজেকে কিছুটা খোলস বন্দী করা তামিম জয়াবিক্রমার বাঁহাতি স্পিনে ক্যাচ দিয়েছেন স্লিপে লাহিরু থিরিমান্নেকে। ১৫০ বলে ১২ চারে সাজান ৯২ রানের ইনিংসটি। এই নিয়ে টেস্টে তৃতীয়বার ও সবমিলিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৬ষ্ঠবার নার্ভাস নাইনটিজে ফিরলেন টাইগার ওপেনার। আগের টেস্টের প্রথম ইনিংসেও ফিরেছেন ৯০ রানে।

৫৫তম ওভারের তৃতীয় বলে রমেশ মেন্ডিস মুমিনুলকে যেভাবে পরাস্ত করেছেন তা দিনে স্পিনারদের আধিপত্যের প্রতিচ্ছবি। অফ স্টাম্প সোজা ফুলার লেংথের ডেলিভারি হাল্কা টার্না করে বেরিয়ে যায়। একটু ভেতর থেকে টার্ন করলেই যে বলে বোল্ড হওয়ার পাশাপাশি আউট সাইড এজ হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা থাকে।

তামিমের বিদায়ের পর ৬৩ রানের জুটিতে বাংলাদেশকে পথেই রেখেছিল মুশফিক-মুমিনুল। তবে সেশনের একদম শেষদিকে এসে জয়াবিক্রমার বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে মুশফিক। ৬২ তম ওভারের চতুর্থ বলটি কিছুটা জোরেই ছুঁড়েছেন এই বাঁহাতি স্পিনার।

ব্যাট মিস করে মুশফিকের প্যাডে আঘাত হানলে জোরালো আবেদন লঙ্কানদের, আম্পায়ার নাকচ করে দিলে শেষ মুহূর্তে রিভিউ নিয়ে সফল স্বাগতিকরা। জয়াবিক্রমার তৃতীয় শিকার হয়ে মুশফিকে ফিরেছে ৬২ বলে ৪০ রানে। তার বিদায়ের পরই চা বিরতিতে যায় দুই দল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর (৩য় দিন, ২য় সেশন শেষে):

শ্রীলঙ্কা ১ম ইনিংসে ৪৯৩/৭ (১৫৯.২ ওভারে ইনিংস ঘোষণা), করুনারত্নে ১১৮, থিরিমান্নে ১৪০, ওশাদা ৮১, ম্যাথুস ৫, ধনঞ্জয়া ২, নিসাঙ্কা ৩০, ডিকওয়েলা ৭৭*, রমেশ ৩৩; তাসকিন ৩৪.২-৭-১২৭-৪, শরিফুল ২৯-৬-৯১-১, তাইজুল ৩৮-৭-৮৩-১।

বাংলাদেশ ১ম ইনিংসে ২১৪/৪ (৬১.৪), তামিম ৯২, সাইফ ২৫, শান্ত ০, মুমিনুল ৪৭*, মুশফিক ৪০; রমেশ ২২-৪-৭৪-১, জয়াবিক্রমা ২১.৪-২-৭৪-৩

বাংলাদেশ ২৭৯ রান পিছিয়ে।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

দারুণ শুরুর পর হঠাৎ ছন্দপতন

Read Next

হায়দ্রাবাদের নতুন অধিনায়ক উইলিয়ামসন

Total
1
Share