টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ, আয়োজক ভারত যা ভাবছে

ভারতে সেরা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আয়োজন হবেঃ সৌরভ
Vinkmag ad

করোনার থাবায় ভারতে দিশেহারা অবস্থা। এ বছর ভারতে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের। তবে বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে সংযুক্ত আরব আমিরাতে আয়োজনের চিন্তাভাবনা করছে ভারতীয় ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থা (বিসিসিআই)। ১৬টি দেশের সমন্বয়ে অক্টোবর-নভেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ টুর্নামেন্টের পরিচালক ধীরাজ মালহোত্রা এ সপ্তাহে বিবিসি পডকাস্টকে জানান, ‘টুর্নামেন্টটি সর্বাত্নকভাবে আয়োজনে আমি আশাবাদী। সাধারণ অবস্থা, করোনাকালীন অবস্থা, সবচেয়ে খারাপ অবস্থা আমরা বিবেচনায় রাখছি। এ মুহুর্তে এসব নিয়ে আইসিসির সাথে আমাদের কথা চলছে।’

সম্প্রতি পুরো ভারতে করোনা সংক্রমণ অনেক বেশি বেড়েছে। মৃতের সংখ্যা বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে। এ অবস্থায় ৬ মাস পরে ভারতে বিশ্বকাপ আয়োজনের ব্যাপারে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ক্রিকেটের অধীন সংস্থাগুলো।

ফ্রেব্রুয়ারি মাসে বিসিসিআই-এর ক্রিকেট অপারেশন্স এবং গেম ডেভেলপমেন্টের জেনারেল ম্যানেজার নিযুক্ত হয়েছেন মালহোত্রা। তিনি জানান, ‘ভারত যদি অনিরাপদ থাকে, তবে বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে সংযুক্ত আরব আমিরাতকে রাখা হয়েছে। যেহেতু বিসিসিআই এবারের বিশ্বকাপের তত্ত্বাবধানে রয়েছে, তাই বিসিসিআই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিবে।’

সম্প্রতি ৯টি স্টেডিয়ামে খেলা হওয়ার প্রস্তাবনা প্রকাশ করেছিল বিসিসিআই। এগুলো হচ্ছেঃ আহমেদাবাদ, ব্যাঙ্গালোর, চেন্নাই, দিল্লি, ধর্মশালা, হায়দ্রাবাদ, কোলকাতা, লক্ষ্ণৌ এবং মুম্বাই। বিশ্বের সবচেয়ে স্টেডিয়াম আহমেদাবাদে ফাইনালের সূচি নির্ধারিত হয়।

বর্তমানে আইপিএলের ম্যাচগুলো ২টি ভেন্যু করে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। বিশ্বকাপের ম্যাচগুলো এভাবে করার চিন্তাভাবনা করেছিল বিসিসিআই। করোনা মহামারীর পর এই বিশ্বকাপই হবে প্রথম বৈশ্বিক মেগা ইভেন্ট। আইসিসির একটি বিশেষজ্ঞ দল ভেন্যুর কার্যক্রম,পরিকল্পনা এবং জৈব সুরক্ষা বলয় ব্যবস্থা দেখতে ভারতে যাওয়ার কথা ছিল। তবে করোনার কারণে সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ভারতের মধ্যে ভ্রমণ কার্যক্রম বন্ধ করায় সেটি বাতিল হয়।

মালহোত্রা বলেন, ‘বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে ক্রিকেট পিপাসুরা আসবে। তাই টিকেট বিক্রি করার দিকে মনযোগ দিচ্ছি। কিন্তু আবারও বলছি, অবস্থা কোনদিকে যায়, তা আমরা জানিনা।’

৭ এপ্রিল, আইপিএল শুরুর দুইদিন আগে আইসিসির অন্তর্বর্তীকালীন প্রধান নির্বাহী জিওফ অ্যালারডাইস জানিয়েছিলেন, টুর্নামেন্ট আয়োজনের জন্য বিকল্প ব্যবস্থা রাখা আছে। তবে সূচি অনুযায়ী ভারতেই বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হবে।

তবে এরপর থেকে করোনায় ভারতের অবস্থা আরও খারাপ হতে থাকে। জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্যানুযায়ী, ভারতে ১৮ মিলিয়ন লোক কোভিড পজিটিভ এবং দ্রুতই ভারতে মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। এখন পর্যন্ত সেখানে মৃতের সংখ্যা ২০৮০০০, যা পুরো বিশ্বে ৩য়।

বিভিন্ন দেশ থেকে ভারতে ভ্রমণ ব্যবস্থা বন্ধ রাখা হয়েছে। এমনকি বিপদজনক মনে করায় আইপিএলের ২টি দল থেকে ৪ জন বিদেশি খেলোয়াড় নিজেদের দেশে ফিরেও গিয়েছেন।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

হারপ্রীত ব্রারের দিনে কোহলিদের অসহায় আত্মসমর্পন

Read Next

ফাওয়াদের বিরল রেকর্ড, পাকিস্তানের বড় লিড

Total
1
Share