পাল্লেকেলেতে টাইগার বোলারদের দুঃস্বপ্নের এক দিন

পাল্লেকেলেতে টাইগার বোলারদের দুঃস্বপ্নের এক দিন
Vinkmag ad

প্রথম টেস্টের পঞ্চম দিনে এসেও বোলারদের সহায়তা করতে না পারার কলঙ্ক গায়ে মেখে পাল্লেকেলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের উইকেট পেয়েছিল ডিমেরিট পয়েন্ট। আজ থেকে শুরু হওয়া বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা দ্বিতীয় টেস্টে ভিন্ন উইকেট দেখা যাবে ভাবা হলেও অন্তত প্রথম দিন শেষে দেখা মেলেনি তেমন কিছুর। সারাদিনে উকেট পড়েছে মাত্র একটি। টস জিতে আগে ব্যাট করতে নামা স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা পায় জোড়া সেঞ্চুরির দেখা।

টাইগার বোলারদের একরাশ হতাশা উপহার দিয়ে ১ উইকেটে ২৯১ রান তুলে প্রথম দিন শেষ করে স্বাগতিকরা। অধিনায়ক দিমুথ করুনারত্নে ক্যারিয়ারের ১২ তম সেঞ্চুরি তুলে ফিরে গেলেও অপরাজিত আছেন আরেক সেঞ্চুরিয়ান লাহিরু থিরিমান্নে। থিরিমান্নে ১৩১ ও ওশাদা ফার্নান্দো অপরাজিত ৪০ রানে।

দিনের প্রথম দুই সেশনে উইকেট শূন্য থাকা বাংলাদেশ চা বিরতির পর ৬ষ্ঠ ওভারে এসে কাঙ্খিত ব্রেক থ্রু পায়। অভিষিক্ত বাঁহাতি পেসার শরিফুল ইসলামের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন করুনারত্নে। চা বিরতির আগেই সেঞ্চুরি তুলে ১০৬ রানে অপরাজিত থাকা লঙ্কান দলপতি থেমেছেন ১১৮ রানে।

ব্যাক অব লেংথে পড়া শরিফুলের অফ স্টাম্পের বাইরে স্কিড করা বলে ড্রাইভ খেলেন করুনারত্নে। বল ব্যাট ছুঁয়ে বন্দী হয় উইকেটের পেছনে লিটনের গ্লাভসে। যদিও লিটনের গ্লাভসে বন্দী হওয়ার আগে মাটি স্পর্শ করেছে কিনা সে নিয়ে ছিল সন্দেহ।

অন ফিল্ড আম্পায়ার সফট সিগন্যাল আউট দিয়ে টিভি আম্পায়ারের কাছে পাঠালে স্পষ্ট দেখা যায় বল মাটি স্পর্শ করেনি। ১৯০ বলে ১৫ চারে ইনিংসটি সাজান করুনারত্নে। প্রথম টেস্টে একমাত্র ইনিংসে ব্যাট করে খেলেছেন ক্যারিয়ার সেরা ২৪৪ রানের ইনিংস। তার বিদায়ে থিরিমান্নের সাথে ২০৯ রানের উদ্বোধনী জুটি ভাঙে।

করুনারত্নে বিদায় নিলেও ওশাদা ফার্নান্দোকে নিয়ে দিনের বাকি অংশ অনায়েসেই পার করে দেন থিরিমান্নে। ততক্ষণে পেয়ে যান ক্যারিয়ারের তৃতীয় টেস্ট শতকের দেখা। চা বিরতির আগে অপরাজিত ছিলেন ৮০ রানে। চা বিরতির পর ২০৩ বলে ৯৯ তে পৌঁছানো থিরিমান্নে সেঞ্চুরি ছুঁতে মাঝে বল খেলেছেন আরও ১২ টি। তাসকিনের করা ৭২ তম ওভারের তৃতীয় বলে ৩ রান নিয়ে সেঞ্চুরি পুর্ণ করে।

দিন শেষে ফার্নান্দোর সাথে তার অবিচ্ছেদ্য জুটি ৮২ রানের। ২৫৩ বলে ১৪ চারে ১৩১ রানে থিরিমান্নে ও ৯৮ বলে ৪ চারে ৪০ রানে অপরাজিত ফার্নান্দো।

দিনের প্রথম সেশনের শুরুতে অবশ্য উইকেট থেকে কিছুটা সাহায্য পেয়েছিল বাংলাদেশের পেসাররা। প্রথম কয়েক ওভারে লঙ্কান দুই ওপেনারকে ভোগাতে পেরেছে তাসকিন আহমেদ, আবু জায়েদ রাহি, শরিফুল ইসলামরা। তবে সময়ের সাথে সাথে সাবলীল হয়েছেন থিরিমান্নে-করুনারত্নে। প্রথম সেশনে অবশ্য ব্যক্তিগত ২৮ রানে তাসকিনের বলে স্লিপে ক্যাচ দিয়ে জীবন পান করুনারত্নে। সেশনে উঠে ৬৬ রান।

লাঞ্চের পরই হাত খুলে খেলতে থাকে থিরিমান্নে-করুনারত্নে। ৩২ রান নিয়ে লাঞ্চে যাওয়া করুনারত্নে সেঞ্চুরির দেখা পান চা বিরতির আগেই। ফিফটি তুলে ৮০ রানে অপরাজিত ছিলেন থিরিমান্নেও। চা বিরতির আগের সেশনে ৩১ ওভার খেলে কোন উইকেট না হারিয়ে লঙ্কানরা স্কোরবোর্ডে তোলে ১২২ রান। প্রথম দুই সেশনে বিনা উইকেটে স্বাগতিকদের সংগ্রহ ছিল ১৮৮।

এদিন একাদশে শ্রীলঙ্কা দুই ও বাংলাদেশ এক পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নামে। এদিন দুই দলই একটি করে অভিষেক করায়। বাংলাদেশ দলে শরিফুল ইসলামের, শ্রীলঙ্কার প্রবীন জয়াবিক্রমার। দুই দলই একাদশ সাজিয়েছে দুই স্বীকৃত স্পিনার নিয়ে। লঙ্কান একাদশে দুই পেসার থাকলেও বাংলাদেশ একাদশে পেসার তিনজন।

বাংলাদেশ একাদশে শরিফুল ইসলামকে জায়গা দিতে বাদ পড়েছেন এবাদত হোসেন। শ্রীলঙ্কা একাদশে প্রবীন জয়াবিক্রমার সাথে ঢুকেছেন রমেশ মেন্ডিসও। বাদ পড়েছেন ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা, ইনজুরির কারণে ১ম টেস্টের মাঝপথেই ছিটকে যাওয়া লাহিরু কুমারা নেই সঙ্গত কারণেই।

সংক্ষিপ্ত স্কোর (১ম দিন শেষে):

শ্রীলঙ্কা ২৯১/১ (৯০), করুনারত্নে ১১৮, থিরিমান্নে ১৩১*, ওশাদা ৪০*; শরিফুল ১৬-৩-৫২-১।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বল হাতে টাইগারদের আরও এক হতাশাময় সেশন

Read Next

পরাজয়ের বৃত্ত ভাঙল মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স

Total
9
Share