পাল্লেকেলেতে টাইগারদের হতাশার এক দিন

পাল্লেকেলেতে টাইগারদের হতাশার এক দিন
Vinkmag ad

৪ উইকেটে ৪৭৮ রান নিয়ে বাংলাদেশ দ্বিতীয় দিন শেষ করার পর সংবাদ সম্মেলনে শ্রীলঙ্কান পেসার বিশ্ব ফার্নান্দো বলেছিলেন তারা বিচলিত নন। কারণ তাদের অভিজ্ঞ ব্যাটিং লাইন আপের সামর্থ্য আছে বাংলাদেশের চেয়েও বড় সংগ্রহ দাঁড় করানোর। ক্যান্ডি টেস্টের চতুর্থ দিন শেষে ফার্নান্দোর দেয়া ভবিষ্যত বাণী অক্ষরে অক্ষরে মেলার পথে। অধিনায়ক দিমুথ করুণারত্নের ডাবল সেঞ্চুরির সাথে ধনঞ্জয়া ডি সিলভার দেড়শো পেরনো ইনিংসে পুরো একদিন উইকেট শূন্য থাকতে হয়েছে টাইগার বোলারদের।

পাল্লেকেলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে চলমান টেস্টের সম্ভাব্য পরিণতি হতে যাচ্ছে ড্র। ৭ উইকেটে বাংলাদেশের ৫৪১ (ইনিংস ঘোষণা) রানের জবাবে ইতোমধ্যে ৩ উইকেট ৫১২ রান লঙ্কানদের স্কোরবোর্ডে। ক্যারিয়ারের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি তুলে নিয়ে ২৩৪ রানে করুণারত্নে ও ১৫৪ রানে অপরাজিত আছেন ধনঞ্জয়া। চতুর্থ দিন আলোক স্বল্পতায় দুই দফা খেলা বন্ধ হয়। প্রথম দফায় ৩০ মিনিট পর খেলা শুরু হলেও, দ্বিতীয় দফা খেলা বন্ধ হলে আর মাঠে নামতে পারেনি দুই দল।

৩ উইকেটে ২২৯ রান নিয়ে দিন শুরু করে শ্রীলঙ্কা, ৮৫ রানে দিমুথ করুণারত্নে ও ২৬ রানে অপরাজিত ছিলেন ধনঞ্জয়া ডি সিলভা। আগেরদিন দুজনের ৩৯ রানের অবিচ্ছেদ্য জুটি আজ খেলা শেষ হওয়ার আগে রেকর্ড গড়েও অবিচ্ছেদ্য আছে। ৩২২ রানের অবিচ্ছেদ্য জুটি যেকোনো উইকেটে শ্রীলঙ্কার ৭ম সর্বোচ্চ রানের জুটি, চতুর্থ উইকেটে যা দ্বিতীয়। বাংলাদেশের বিপক্ষে এটিই এখন যেকোনো উইকেট জুটিতে লঙ্কানদের সর্বোচ্চ।

দিনের ৯ম ও ইনিংসের ৮২ তম ওভারে দ্বিতীয় নতুন বল নেয় বাংলাদেশ। নতুন বলে দ্বিতীয় বলেই তাসকিনের শিকার হতে পারতেন ধনঞ্জয়া ডি সিলভা। আউট সাইড পিচ হওয়া ফুলার লেংথের ডেলিভারি কাভার ড্রাইভ খেলার চেষ্টা ধনঞ্জয়ার। তবে ইনসাইড এজ হয়ে স্টাম্পের কানা ঘেঁসে চলে যায়। পরের ওভারে আবু জায়দের রাহির জোরালো আবেদন দিমুথ করুণারত্নের বিপক্ষে। আম্পায়ার সাড়া না দিলেও রিভিউ নেয় বাংলাদেশ। সামনের প্যাড স্পর্শ করা আড়াআড়ি লেংথের বল মিস করে লাইন। রিভিউ হারায় বাংলাদেশ।

তখন ৯৮ রানে ব্যাট করা করুণারত্নে দুই ওভার পরই পেয়ে যান ১১ তম টেস্ট সেঞ্চুরির দেখা, বাংলাদেশের বিপক্ষে যা দ্বিতীয়। ২৪৭ বলে ৮ চারে তিন অঙ্ক ছুঁয়েছেন লঙ্কান অধিনায়ক। নতুন বলে কয়েক ওভার কিছুটা চাপ তৈরি করলেও এরপরই আবার সাবলীল দুই লঙ্কান ব্যাটসম্যান। করুণারত্নের সেঞ্চুরির সাথে ফিফটির দেখা ধনুঞ্জয়ার। লাঞ্চের আগে স্কোরবোর্ডে কোন উইকেট না হারিয়ে ৯৮ রান। করুণারত্নে অপরাজিত ১৩৯ ও ধনঞ্জয়া ৭৪ রানে।

লাঞ্চের পরের সেশনে দুজনে রান তোলাতে গতি বাড়িয়েছেন আরও। টাইগার বোলারদের হতাশ করে এই সেশনে আসে ১১১ রান। ততক্ষণে ক্যারিয়ারে পঞ্চম বারের মত দেড়শো ছুঁয়ে ফেলেন করুণারত্নে, ধনঞ্জয়া তুলে নেন ক্যারিয়ারের ৭ম ও বাংলাদেশের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্ট শতক। ১৫৩ বলে ১৪ চারে শতক ছুঁয়েছেন ধনঞ্জয়া। ৩ উইকেটে ৪৪২ রান নিয়ে চা বিরতিতে যায় স্বাগতিকরা।

চা বিরতির পর ৫ ওভার মাঠে গড়াতেই আলোক স্বল্পতায় খেলা বন্ধ ছিল প্রায় আধাঘন্টা। খেলা শুরু হওয়ার পর দ্বিতীয় ওভারেই করুণারত্নে তুলে নেন ক্যারিয়ারের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি। ১৪১ তম ওভারের শেষে বলে তাসকিনের ওয়াইড ফুলার লেংথে বলকে সামনে খেলার চেষ্টা করলেও এজ হয়ে উইকেট রক্ষক ও প্রথম স্লিপের মাঝ দিয়ে থার্ড ম্যান অঞ্চলে চার পেয়ে যান করুণারত্নে।

তাতেই পাল্লেকেলে স্টেডিয়াম সাক্ষী হয় প্রথম ডাবল সেঞ্চুরির। ৩১০ বলে ১৫০ ছোঁয়া করুণারত্নে ডাবলে পৌঁছেছেন ৩৮৭ বলে ২১ চারের সাহায্যে। অন্যদিকে ধনঞ্জয়া ক্যারিয়ারের দ্বিতীয়বার ছুঁয়ে ফেলেন দেড়শো পেরোনো ইনিংস।

স্থানীয় সময় ৪ টা ৫২ মিনিটে আলোক স্বল্পতায় খেলা বন্ধ হয়, ৫ টা ২৭ মিনিটে আনুষ্ঠানিকভাবে দিনের খেলা শেষ বলে ঘোষণা করেন আম্পায়ার। তখনো দিনের খেলা বাকি ছিল ২২ ওভার। শেষ পর্যন্ত ২৯ রানে পিছিয়ে থাকা শ্রীলঙ্কার দিন শেষ করে ৩ উইকেটে ৫১২ রানে। ৪১৯ বল খেলে ২৩৪ রানে অপরাজিত আছেন করুণারত্নে, যা অধিনায়ক হিসেবে কোনো শ্রীলঙ্কান ব্যাটসম্যানের চতুর্থ সর্বোচ্চ রানের ইনিংস। ধনঞ্জয়া অপরাজিত ২৭৮ বলে ১৫৪ রানে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর (৪র্থ দিন শেষে):

বাংলাদেশ ১ম ইনিংসে ৫৪১/৭ (১৭৩ ওভারে ইনিংস ঘোষণা), তামিম ৯০, সাইফ ০, শান্ত ১৬৩, মুমিনুল ১২৭, মুশফিক ৬৮*, লিটন ৫০, মিরাজ ৩, তাইজুল ২, তাসকিন ৬*; লাকমল ৩৬-১৪-৮১-১, বিশ্ব ৩৫-৯-৯৬-৪, কুমারা ২৮-৪-৮৮-১, ধনঞ্জয়া ৩০-১-১৩০-১

শ্রীলঙ্কা ১ম ইনিংসে ৫১২/৩ (১৪৯), করুনারত্নে ২৩৪*, থিরিমান্নে ৫৮, ওশাদা ২০, ম্যাথুস ২৫, ধনঞ্জয়া ১৫৪*; তাসকিন ২৫-৬-৯১-১, মিরাজ ৫২-৬-১২৩-১, তাইজুল ৩৯-৯-১৩৬-১

শ্রীলঙ্কা ২৯ রান পিছিয়ে।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

সেরা পাঁচ দলের একটি হওয়ার দিন আর বেশি দূরে নয়ঃ পাপন

Read Next

একটানা বল করা, তাসকিন বলছেন বড় শিক্ষা

Total
1
Share