বল হাওয়ায় ভাসিয়ে মুম্বাইকে চেপে ধরেছিলেন অমিত মিশ্র

হাওয়ায় ভাসিয়ে মুম্বাইকে চেপে ধরেছিলেন অমিত মিশ্র

চেন্নাইয়ের এমএ চিদাম্বরম স্টেডিয়ামে মুম্বাই ইন্ডিয়ায়ন্সকে ৬ উইকেটে হারিয়ে চলমান আইপিএলের পয়েন্ট টেবিলে দুই নম্বরে দিল্লি ক্যাপিটালস। বল হাতে গতকাল (২০ এপ্রিল) দিল্লির হয়ে স্পিন ঘূর্ণিতে ভেলকি দেখিয়েছেন অমিত মিশ্র। তার ৪ উইকেট শিকারের দিনে ১৩৭ এর বেশি করতে পারেনি মুম্বাই। ম্যাচ সেরার পুরষ্কার জেতা এই লেগ স্পিনার জানালেন বাড়তি কিছু চেষ্টা করেননি। নিজস্ব স্টাইলে হাওয়ায় ভাসিয়ে বল সঠিক জায়গায় ফেলেই সফল হয়েছেন।

মুম্বাই ইনিংসের তৃতীয় ধাক্কাটা দেন অমিত মিশ্র, ৩০ বলে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ৪৪ রান করা অধিনায়ক রোহিত শর্মাকে ফেরান স্টিভ স্মিথের ক্যাচ বানিয়ে। এরপর একে একে তুলে নেন ইশান কিশান (২৬), হার্দিক পান্ডিয়া (০) ও কাইরন পোলার্ডকে (২)।

যাদের প্রত্যকেরই সামর্থ্য আছে নিজেদের দিনে প্রতিপক্ষ বোলারদের গুড়িয়ে দেয়ার। অমিত মিশ্রের ২৪ রান খরচায় ৪ উইকেট শিকারের দিনে অবশ্য থাকতে হয়েছে নিস্প্রভই। ২ উইকেটে ৭৬ থেকে ৯ উইকেটে ১৩৭ রানেই থামতে হয় মুম্বাইকে।

শিখর ধাওয়ান (৪৫), স্টিভ স্মিথ (৩৩) ও ললিত যাদবের (২২) ব্যাটে চেন্নাইয়ের স্লো উইকেটে জিততে অবশ্য দিল্লিকেও শেষ ওভার পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়। ৫ বল ও ৬ উইকেট হাতে রেখেই টুর্নামেন্টে নিজেদের তৃতীয় জয় পেল রিশাব পান্টের দল।

বল হাতে দারুণ নৈপুণ্যে ম্যাচ সেরার পুরষ্কার জেতা ৩৮ বছর বয়সী লেগ স্পিনার অমিত মিশ্র সাফল্যের রহস্য জানাতে গিয়ে বলেন, ‘কেবল ভালো জায়গায় বল করতে চেয়েছি, শুধু উইকেট নেওয়ার চেষ্টা। ভিন্ন ভিন্ন বোলারদের ভিন্ন ভিন্ন স্টাইল থাকে। আমার স্টাইল হল বল হাওয়ায় ভাসিয়ে দেওয়া। খুব বেশি পরিবর্তন করতে চাইনি।’

‘কিছু সময় গতির এদিক সেদিক করেছি কেবল। আমি উইকেট বোঝার চেষ্টা করেছি আর সে অনুযায়ী বল করেছি। তারা (যাদের আউট করেছেন) মুম্বাইয়ে ম্যাচ উইনার আর আমি তাদের উইকেট নিতেই সবসময় চাই। আমি কিছুটা চিন্তিত ছিলাম (লক্ষ্য তাড়ার ব্যাপারে) তবে আমি জানতাম আমাদের ব্যাটসম্যানরা যথেষ্ট স্মার্ট, এখানে দুই ম্যাচ খেলে তাদের বেশ অভিজ্ঞতা হয়েছে।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

৬ বলে ডাক, ৭ বলের ওভার ও তামিম-শান্ত জুটি

Read Next

টি-টোয়েন্টি র‍্যাংকিংয়ে বাবরের উন্নতি, হারিসের লম্বা লাফ

Total
8
Share