৬ বলে ডাক, ৭ বলের ওভার ও তামিম-শান্ত জুটি

৬ বলে ডাক, ৭ বলের ওভার ও তামিম-শান্ত জুটি

পাল্লেকেলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ফল আসা চার ম্যাচের তিনটিতেই জিতেছিল আগে ব্যাট করা দল। ফলে ক্যান্ডির এই মাঠে আজ থেকে শুরু হওয়া বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কা প্রথম টেস্টে টসটা ছিল বেশ গুরুত্বপূর্ণ। টাইগার অধিনায়ক মুমিনুল হক সেদিক থেকে ভাগ্যবানই, টস জিতে ব্যাটিংই নিয়েছেন। শুরুতেই ওপেনার সাইফ হাসান বিদায় নিলেও তামিম ইকবাল-নাজমুল হোসেন শান্তের ৯৮ রানের জুটিতে প্রথম সেশন বাংলাদেশেরই।

লাঞ্চের আগে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১ উইকেটে ১০৬ রান। ৬৫ রানে তামিম ও ৩৭ রানে অপরাজিত আছেন শান্ত।

দুই দলেরই স্পিন আক্রমণ সমানে সমান, ফলে সফরকারী বাংলাদেশকে স্পিনের চাইতে পেস দিয়ে ঘায়েল করতে চায় শ্রীলঙ্কা। আর সে কারণেই স্পিনারদের জন্য সবসময়ই লোভনীয় জায়গা হলেও এই সিরিজে পেস বান্ধব উইকেট তৈরি কর স্বাগতিকরা। লঙ্কানদের পেসের জবাব পেস দিয়েই দিতে চায় বাংলাদেশও। দুই স্বীকৃত স্পিনারের সাথে একাদশে আছে তিন পেসার।

মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলামের সাথে তিন পেসার আবু জায়েদ রাহি, এবাদত হোসেন চৌধুরী ও তাসকিন আহমেদ। সাড়ে তিন বছরের বেশি সময় পর টেস্ট একাদশে জায়গা পেলেন তাসকিন।

টস জিতে ব্যাট করতে নেমে সুরাঙ্গা লাকমলের করা প্রথম ওভারেই দুই বাউন্ডারি তামিমের। লাঞ্চের আগ পর্যন্ত ধরে রেখেছেন এই সাবলীল ব্যাটিং। তবে সাদমান ইসলামের পরিবর্তে তামিমের ওপেনিং সঙ্গী হওয়া সাইফ হাসান টিকেননি ৬ বলের বেশি। কোন রান না করে ফিরেছেন বিশ্ব ফার্নান্দোর করা দ্বিতীয় ওভারের শেষ বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়ে। আম্পায়ার কুমারা ধর্মসেনা ফার্নান্দোর আবেদনে সাড়া না দিলেও রিভিউ নিয়ে ঠিকই সাইফকে সাজঘরের পথ দেখায় লঙ্কানরা।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by cricket97 (@cricket97bd)

সাইফের বিদায়ের পর আর কোন বিপদ ঘটেনি বাংলাদেশের। ইনিংসের তৃতীয় ওভারে অবশ্য ঘটেছে অদ্ভুত এক কান্ড। সুরাঙ্গা লাকমলের করা ওভারটিতে বল করতে হয়েছে ৭ টি। মূলত আম্পায়ার রুচিরা পল্লিয়াগুরুগের ভুলেই বাড়তি এক বল করতে হয় লঙ্কান পেসারকে।

সুরাঙ্গা লাকমল, বিশ্ব ফার্নান্দোর সাথে লাহিরু কুমারা, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসদের সামলে ২৯তম টেস্ট ফিফটি তুলে নেন তামিম। ৫৩ বলে ফিফটি ছোঁয়ার পথে চার হাঁকিয়েছেন ১০ টি। তামিমের সাথে সাথে নাজমুল হোসেন শান্তও ছিলেন ছন্দে। লাঞ্চের আগে অবিচ্ছেদ্য জুটিতে উঠলো ৯৮ রান। তামিম অপরাজিত আছেন ৭২ বলে ১২ চারে ৬৫ রানে। ৮৬ বলে টেস্ট মেজাজে করা ৩৭ রানে অপরাজিত শান্ত।

সংক্ষিপ্ত স্কোর (১ম দিন, ১ম সেশন শেষে):

বাংলাদেশ ১০৬/১ (২৭), তামিম ৬৫, সাইফ ০, শান্ত ৩৭*; বিশ্ব ৬-১-২৭-১।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

ম্যাচ হারের পর জরিমানা গুনলেন অধিনায়ক রোহিত

Read Next

বল হাওয়ায় ভাসিয়ে মুম্বাইকে চেপে ধরেছিলেন অমিত মিশ্র

Total
7
Share