আতশী কাঁচের নিচে থেকেও চিন্তিত নন মুমিনুল

আতশী কাঁচের নিচে থেকেও চিন্তিত নন মুমিনুল

বাংলাদেশের অন্যতম সেরা টেস্ট ব্যাটসম্যান বলা হয় মুমিনুল হককে। তবে দেশের মাটিতে মুমিনুল যতটা সাবলীল ততটাই নিষ্প্রভ বিদেশের মাটিতে। এদিকে অধিনায়ক হিসেবে এখনো পর্যন্ত বাংলাদেশকে সাদা পোশাকে এনে দিতে পারেননি বলার মত কোন সাফল্য। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজকে কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো ও টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুলের শেষ পরীক্ষাও বলছে অনেকে। তবে মুমিনুল নিজে বলছেন বিদেশের মাটিতে পারফর্ম করতে না পারা কিংবা অধিনায়কত্ব নিয়ে সমালোচনা কোন কিছু নিয়েই চিন্তিত নন তিনি।

ঘরের মাঠে মুমিনুল হকের গড় যেখানে ৫৬.৩৯ সেখানে বাইরের দেশে গড় মাত্র ২২.৩০। ১০ সেঞ্চুরির সবকটিই দেশের মাটিতে, বিদেশে সাফল্য বলতে ৩৩ ইনিংসে ৬ ফিফটি। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে পরিসংখ্যান অবশ্য মুমিনুলের হয়েই কথা বলে, ৭ ম্যাচে ১৩ ইনিংস ব্যাট করেই ৫৪.৪২ গড়ে রান করেছেন ৬৫৩, আছে তিন সেঞ্চুরির সাথে ৩ ফিফটি। শ্রীলঙ্কার মাটিতে ৫ ইনিংসে দুই ফিফটিতে ১৬৮ রান করা মুমিনুলের গড় অবশ্য ৩৪ এর নিচে।

ক্যান্ডির পাল্লেকেলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আগামীকাল থেকে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রথমটি। ম্যাচ পূর্ববর্তী ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে আজ (২০ এপ্রিল) কথা বলেছেন টাইগার টেস্ট কাপ্তান মুমিনুল হক। দেশে কিংবা বিদেশে যেখানেই খেলেন নিজের সেরাটা দিয়ে দলে অবদান রাখতে চেষ্টা করেন বলে জানান মুমিনুল।

তিনি বলেন, ‘অধিনায়ক হিসেবে সবসময় চাই ব্যাটসম্যানরা দায়িত্ব নিয়ে ব্যাটিং করবে। ফিল্ডাররা শতভাগ চেষ্টা করবে। আমার ব্যাটিং পজিশন নিয়ে আমি চিন্তিত নই। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট যখন খেলবেন, হয়ত আপনার আশা পূরণ করতে পারব না। তখন এসব কথা হবেই। এসব কথা আমি নিতে পারি কি না এটার উপর নির্ভর করে। আমি সবসময় চেষ্টা করি, দেশে খেলি বা বিদেশে খেলি, দলের জন্য শতভাগ কন্ট্রিবিউট করার চেষ্টা করি।’

এদিকে নিয়োগের পর কোচ হিসেবে বাংলাদেশকে উল্লেখযোগ্য কোন সাফল্য এনে দিতে না পারা রাসেল ডোমিঙ্গোর সাথে ধারণা করা হচ্ছে টেস্ট কাপ্তান মুমিনুল হকেরও শেষ সুযোগ হতে পারে লঙ্কা সিরিজ। ৬ টেস্টে নেতৃত্ব দিয়ে হেরেছেন পাঁচটিতেই, একমাত্র জয় জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। সর্বশেষ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ঘরের মাঠে বাংলাদেশ ধবল ধোলাইও হয়েছে। তবে সেসব নিয়ে বিন্দু পরিমাণ ভাবছেন না এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান।

মুমিনুল বলেন, ‘আমি শ্রীলঙ্কায় এসেছি, মাঠে নামব, বোলার বল করবে, আমি ব্যাটিং করব, আর আমার বোলাররা বল করবে, ওদের ব্যাটসম্যানরা ব্যাটিং করবে, আমাদের ফিল্ডাররা ফিল্ডিং করবে। আমরা আমাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী খেলব। আমি আসলে এসব নিয়েই কনসার্ন। আপনি যেগুলা বললেন এগুলা নিয়ে কনসার্ন না। একজন পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে আমার কাছে মনে হয় এসব নিয়ে এত ভাবার দরকার নেই।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বাংলাদেশের বিপক্ষে শ্রীলঙ্কার টেস্ট স্কোয়াড ঘোষণা

Read Next

ক্যান্ডির নতুন এক সকালে নতুন শুরুর অপেক্ষায় বাংলাদেশ দল

Total
31
Share