শ্রীলঙ্কাতেও কন্ডিশনই ইস্যু হচ্ছে শান্তদের

শ্রীলঙ্কাতেও কন্ডিশনই ইস্যু হচ্ছে শান্তদের

বিদেশের মাটিতে খেলতে গেলে বিরুদ্ধ কন্ডিশনের চ্যালেঞ্জে পড়াটা স্বাভাবিক। তবে উপমহাদেশের দল হয়ে শ্রীলঙ্কায় গিয়েও কন্ডিশন, উইকেট নিয়ে টাইগারদের দুশ্চিন্তা যেন কমছেইনা। নিউজিল্যান্ড সফরে ব্যর্থতার ষোলকলা পূর্ণ করা বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কাতে তিন দিনের কোয়ারেন্টাইন শেষেই পেয়েছে অনুশীলনের সুযোগ। আজ থেকে শুরু হয়েছে নিজেদের মধ্যে ভাগ হয়ে দুইদিনের প্রস্তুতি ম্যাচও। ব্যাটসম্যানদের কাটানো দারুণ এক দিনশেষে কন্ডিশনের সাথে মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টায় টাইগার শিবির।

প্রস্তুতি ম্যাচের প্রথমদিনে ইতিবাচক ব্যাটিং দেখিয়েছে তামিম ইকবাল, সাইফ হাসান, নাজমুল হোসেন শান্তরা। ফিফটি তুলে স্বেচ্ছায় সাজঘরে যান তামিম, সাইফ, শান্ত, মুশফিকরা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর (১ম দিন শেষে):

টিম রেড ৩১৪/৬ (৭৯.২), তামিম ৬৩ (রিটায়ার্ড আউট), সাইফ ৫২ (রিটায়ার্ড আউট), শান্ত ৫৩ (রিটায়ার্ড আউট),মুশফিক ৬৬ (রিটায়ার্ড আউট), সোহান ৪৮ (রিটায়ার্ড আউট), মিরাজ ২৪*, তাইজুল ২; এবাদত ১০-৩-২৪-০, শরিফুল ১০-৩-৪২-০, মুগ্ধ ১৩-০-৬১-০, হোম ১১.২-০-৪৬-১, নাইম ১৬-২-৭২-০, মুমিনুল ৮-০-৩১-০।

কন্ডিশন ও উইকেট সম্পর্কে ধারণা পেতে প্রস্তুতি ম্যাচটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ বলছেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু। দুইদিন আগে একই কথা জানিয়েছেন ওপেনার সাইফ হাসান। আজ (১৭ এপ্রিল) ব্যাট হাতে ফিফটি হাঁকানো নাজমুল হোসেন শান্তও বলছেন একই কথা, এমনকি তার মতে কন্ডিশনের সাথে মানিয়ে নেওয়ার কাজটা কঠিনই হচ্ছে।

বিসিবির পাঠানো এক ভিডিও বার্তায় এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান বলেন, ‘অবশ্যই চ্যালেঞ্জিং (কন্ডিশন)। আসলে এটা নিয়ে খুব বেশি কিছু বলার সুযোগ নেই। কারণ এই আবহাওয়াতেই আমাদের খেলতে হবে। কিন্তু আমার কাছে মনে হয় শুরুতে বোলাররা ভালো বল করেছে (প্রস্তুতি ম্যাচে)। ২০-২৫ ওভার পর ব্যাটিংটা অনেক সহজ ছিল। আমার মনে হয় ব্যাটসম্যানরা যারা আমরা ব্যাট করছি খুব ভালো শেইপে ব্যাট করছি।’

‘ওয়েদারের সঙ্গে মানিয়ে নিয়েছি। এখনো কঠিন কিন্তু। আমরা দুই তিন সেশন প্র্যাক্টিস করেছি। আজকে একটা ম্যাচ খেললাম কালকেও খেলব। সবমিলিয়ে ওয়েদারের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছি। খুব বেশি আসলে চিন্তা করার অপশন নাই। এই ওয়েদারেই খেলতে হবে।’

নিজেদের প্রস্তুতি সম্পর্কে শান্ত বলেন, ‘আমার মনে হয় এটা খুব ভালো একটা প্রস্তুতি টেস্ট ম্যাচ শুরুর আগে। যেটা করতে চেয়েছিলাম আজকে, ওই পরিকল্পনা অনুযায়ী ব্যাটিং করতে পেরেছি। আশা করছি যে এই শেপে যদি ব্যাট করতে পারি তাহলে আমাদের টেস্ট ম্যাচের জন্য ভালো হবে।’

‘টেস্ট খেলাটাই এ রকম। আমার কাছে মনে হয় যে যত ধৈর্য্য নিয়ে সময় নিয়ে ব্যাটিং বা বোলিং করবে। সফল হওয়ার সম্ভাবনা ওই টিমেরই বেশি থাকবে। আমার মনে হয় যে অত লম্বা চিন্তা না করে আমরা যদি সেশন বাই সেশন চিন্তা করি। তাহলে আরেকটু সহজ হবে। তো ওটাই প্ল্যান যে আমরা কীভাবে সেশন বাই সেশন ভালো করতে পারি।’

উল্লেখ্য, কাতুনায়েকেতে চলমান প্রস্তুতি ম্যাচের শেষদিন আগামীকাল, এরপর ২১ এপ্রিল পাল্লেকেলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মাঠে গড়াবে দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রথমটি। ২৯ এপ্রিল থেকে একই ভেন্যুতে দ্বিতীয় টেস্ট অনুষ্ঠিত হবে।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

‘ট্রেমেন্ডাস’ তামিম-শান্তদের নিয়ে সন্তুষ্ট মিনহাজুল আবেদিন নান্নু

Read Next

ব্যাটসম্যানদের দিনে একমাত্র সাফল্য শুভাগত’র

Total
2
Share