শেষ ওভারে নো-বলের ব্যাখ্যায় হারশাল প্যাটেল

শেষ ওভারে নো-বলের ব্যাখ্যায় হারশাল প্যাটেল

আইপিএলের এবারের আসরে রয়্য্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরে যোগ দেওয়া পেসার হারশাল প্যাটেলকে ফ্র্যাঞ্চাইজিটি দায়িত্ব বলে দিয়েছে শুরুতেই। মূলত বল হাতে ডেথ ওভারে গুরুত্বপূর্ণ কাজটা করতে হবে তাকেই। প্রথম ম্যাচে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের বিপক্ষে ৫ উইকেট নিয়ে দলের জয়ে রাখলেন অসামান্য অবদান। গতকাল (১৪ এপ্রিল) সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের বিপক্ষে নাটকীয় জয় পাওয়া ম্যাচেও ছিলেন দুর্দান্ত। তবে শেষ ওভারে দেওয়া নো বল নিয়ে দিলেন ব্যাখ্যা, ঘামের কারণে বল হাত থেকে ছুটে গেলেও অজুহাত দিচ্ছেন না।

প্রথম ম্যাচে ৫ উইকেটের পর গতকাল গুরুত্বপূর্ণ সময়ে নিলেন ২ উইকেট। ৭ উইকেট নিয়ে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারির তালিকায় আছেন সবার উপরে।

১৫০ রানের লক্ষ্য তাড়ায় সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ ছিল সহজ জয়ের পথেই। অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারের ৫৪ রানের সাথে মনীশ পান্ডের ৩৮। তবে স্পিনার শাহবাজ আহমেদের এক ওভারে তিন উইকেট শিকারেই পথ হারায় ওয়ার্নারের দল। হাতে ৮ উইকেট নিয়েও ২৪ বলে ৩৫ রানের সমীকরণ মেলাতে পারেনি।

শেষ ৩ ওভারে প্রয়োজন ৩৪ রান, ১৮ তম ওভারে হারশাল প্যাটেল বিজয় শংকরকে (৩) আউট করার পাশাপাশি খরচ করেন ৭ রান। শেষ দুই ওভারে প্রয়োজন ২৭ রান, ১৯তম ওভারে মোহাম্মদ সিরাজের খরচ ১১ রান। ফলে শেষ ওভারে সানরাইজার্সের প্রয়োজন ১৬ রান।

প্রথম দুই বলে তিন রান খরচ করা প্যাটেল তৃতীয় বলটি দিলেন নো, ইয়র্কার দিতে গিয়ে হয় কোমরের উপরে ফুলটস। যে বলে চারও হাঁকিয়েছে রাশিদ খান। ফলে ৪ বলে সমীকরণ দাঁড়ায় ৮ রান। যদিও মাথা খাটিয়ে পরের বলগুলোতো নিয়ন্ত্রণ নিজের কাছেই রাখেন ডানহাতি এই পেসার।

চতুর্থ বলে রাশিদ খান রান আউট হওয়ার পাশাপাশি পঞ্চম বলে শাহবাজ নাদিমকেও আউট করেন প্যাটেল। শেষ ওভারের নাটকীয়তায় ৬ রানে জিতে শেষ হাসি রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের। শেষ ওভারে গুরুত্বপূর্ণ সময়ে নো বল দেওয়ার ব্যাখ্যা দিয়েছেন হারশাল প্যাটেল।

ম্যচ শেষে ৩০ বছর বয়সী এই পেসারের সহজ স্বীকারোক্তি, ‘আমার হাত ঘামছিল কিন্তু নো-বল করার কোন অজুহাত নেই। এটা একটা বেসিক ভুল, আমি চাইবো এমন কিছু যেন আর না ঘটে।’

৪ ওভারে ২৫ রান খরচায় ২ উইকেট, ডেথ ওভারে ২ ওভারের স্পেলে ১৬ রান খরচায় উইকেট দুটি। অধিনায়কের আস্থা অর্জন করা প্যাটেল প্রকাশ করলেন উচ্ছ্বাস।

তিনি বলেন, ‘আমাকে বলা হয়েছে যে চাপের সময়টা আমাকেই বল করতে হবে। আমি খুবই খুশি যে অধিনায়ক আমাকে এভাবে বিশ্বাস করে। এখনকার খেলাগুলোতে প্রচলিত হয়ে গেছে যে বল শক্ত থাকলে আপনি রান করতে পারবেন কিন্তু নরম হলেই কঠিন হয়ে পড়বে।’

‘দেখুন এখানকার সব খেলাতে কিন্তু এমনই হচ্ছে। এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে শেষ পর্যন্ত খেলায় থাকা এবং কখনোই হাল না ছাড়া।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

ব্যাঙ্গালোরে এসে জাতীয় দলের ভূমিকা পেলেন ম্যাক্সওয়েল

Read Next

উইজডেনের বর্ষসেরা ‘পাঁচ’ ক্রিকেটার

Total
26
Share