ভোগলের মতে মুস্তাফিজের সুযোগ কেবল দিল্লির মাঠে!

ভোগলের মতে মুস্তাফিজের সুযোগ কেবল দিল্লির মাঠে!

চোটের কারণে রাজস্থান রয়্যালসের পেসার জফরা আর্চার এবারের আইপিএলের বেশিরভাগ অংশই মিস করবেন। তার বিকল্প হিসেবে ভারতীয় ধারাভাষ্যকার হার্শা ভোগলে অস্ট্রেলিয়ান অ্যান্ড্রু টাইকেই অগ্রাধিকার দিচ্ছেন। হার্শা ভোগলের একাদশে মুস্তাফিজুর রহমানের সম্ভাবনা কেবলই কারও বিশ্রাম প্রয়োজন হলে এবং সহায়ক ভেন্যুতে খেলা হলে।

জফরা আর্চার ফিট থাকলে রাজস্থান রয়্যালসের একাদশ সাজাতে খুব একটা ভোগান্তি হতনা। একাদশে সুযোগ পাওয়া চার বিদেশির একজন নিশ্চিতভাবেই থাকতেন আর্চার। তার চোটে বিদেশি কোন পেসার খেলাতে হলে বিকল্প কেবল অ্যান্ড্রু টাই ও মুস্তাফিজুর রহমান। তবে গতি আর ধরণ বিবেচনায় টাইকেই এগিয়ে রাখছেন হার্শা ভোগলে। সে ক্ষেত্রে টুর্নামেন্টের যে কোন পর্যায়ে টাইয়ের বিকল্প কিংবা ক্রিস মরিসের বিশ্রামে সুযোগ মিলবে মুস্তাফিজের।

টাই প্রসঙ্গে ক্রিকেট ওয়েবসাইট ক্রিকবাজের টিম প্রিভিউতে ভারতীয় এই ধারাভাষ্যকার বলেন, ‘ব্যাকাপ (আর্চারের) হিসেবে অ্যান্ড্রু টাইকে দেখা যায়, আমি জানি আপনি সবসময় দেখেছেন যে টাই খুব খরুচে। কিন্তু শেষ দুই বছর বিশেষ করে গত বছর সে এমন কিছু করেছে যে প্রতিটি বোলার স্লোয়ার দিতে হত যা সে শুরু থেকেই পেয়েছে। সে মাঝে মাঝে ১৫০ কি.মি গতি ছুঁয়েছে কিন্তু টাই যদি ১৪০ এ বল করে তাহলে স্লো বল খুব গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠে। আর টাই আবারও এটাই করেছে যে স্লোয়ার তাকে অগ্রাধিকার দিতে বাধ্য করছে।’

দিল্লিতে চারটি ম্যাচ খেলবে রাজস্থান। সেখানে মুস্তাফিজুর রহমানকে একাদশে রাখার পরামর্শ হার্শা ভোগলের।

মুস্তাফিজের সুযোগ প্রসঙ্গে হার্শা ভোগলের অভিমত, ‘তারা (রাজস্থান রয়্যালস) ভালো একটা স্কোয়াড নির্বাচন করেছে। কারণ তারা সহজেই মুস্তাফিজুর রহমানের মত কারও সাথে অ্যান্ড্রু টাইয়ের পরিবর্তন করতে পারবে। অথবা যদি মরিসের (ক্রিস মরিস) বিশ্রাম প্রয়োজন হয় তাহলেও তারা মুস্তাফিজকে পাচ্ছে, আমি মনে করি ফিজকে তারা সহজেই কাজে লাগাতে পারবে। দিল্লির মত মাঠে মুস্তাফিজ দলের জন্য হ্যান্ডি হয়ে উঠতে পারেন।’

হার্শা ভোগলের প্রথম একাদশে বেন স্টোকস, ক্রিস মরিস, অ্যান্ড্রু টাইয়ের সাথে পেস বোলার হিসেবে থাকছেন কার্তিক তিয়াগি ও শিবাম দুবে। তার মতে কার্তিক তিয়াগি টুর্নামেন্টটা ভালোভাবে শুরু করলে সুযোগ হবেনা জয়দেব উনাদকাটের। অন্যদিকে একাদশে স্পিনার হিসেবে আছে শ্রেয়াস গোপাল, রিয়ান পরাগ, মাহিপাল লরমর ও রাহুল তেওয়াতিয়া।

হার্শা ভোগলের চোখে যেমন হতে পারে রাজস্থান রয়্যালসের স্টার্টিং ইলেভেন-

জস বাটলার (উইকেট রক্ষক), বেন স্টোকস, সাঞ্জু স্যামসন (অধিনায়ক), মাহিপাল লরমর, শিবাম দুবে, রিয়ান পরাগ, রাহুল তেওয়াতিয়া, ক্রিস মরিস, শ্রেয়াস গোপাল, কার্তিক তিয়াগি, অ্যান্ড্রু টাই।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

ব্যাট হাতে দারুণ শুরু করলেও ইনিংস বড় হয়নি সাকিবের

Read Next

প্রোটিয়াদের হারিয়ে রেকর্ড গড়ল পাকিস্তান

Total
22
Share