ভারতের জয়ের নায়কদের মনে রাখবেন রমিজ

ভারতের জয়ের নায়কদের মনে রাখবেন রমিজ

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৩য় ওয়ানডেতে রিশাব পান্ট এবং হার্দিক পান্ডিয়ার আক্রমণাত্মক ব্যাটিং বেশ মনে ধরেছে পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক রমিজ রাজার। ভারতীয় তরুণ ক্রিকেটারদের মানসিকতারও প্রশংসা করেছেন তিনি।

ম্যাচের মাঝপথে ৪ উইকেট হারানোর পরও পান্ট ও হার্দিকের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে রানের চাকা সচল থাকে এবং ভারতের পক্ষে ৩০০ রান অতিক্রম করতে সহজ হয়। বিপদের মাঝেও বিন্দুমাত্র খেই হারাননি পান্ট এবং হার্দিক। নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলে তাদের এমন আত্নবিশ্বাসের প্রশংসা করেন রমিজ।

‘একসময় ভারত ১৫৭ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে বসেছিল। তারপর ভারতের তরুণ যোদ্ধারা হাজির হয়। তাদের মানসিকতা,স্কিল এবং খেলার ধরণ ভিন্ন। আক্রমণাত্মক মনোভাব দলের বিপজ্জনক মুহুর্ত পার করে ফেলে। আক্রমণ দিয়েই তাদের পরিচয় তুলে ধরে। তারা নিজেদের প্রতি বেশ আত্নবিশ্বাসী এবং তারা কখনোই হার মানার পাত্র নয়,’ রমিজ বলেন।

১১৭ রানে ২ ওপেনার রোহিত শর্মা এবং শিখর ধাওয়ানের বিদায়ের পর ক্রিজে আসেন পান্ট। এরপর আরও ৪০ রানের মধ্যে অধিনায়ক ভিরাট কোহলি এবং আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান লোকেশ রাহুলের আউটের পর হার্দিক ক্রিজে আসেন। এ দুইজন মাত্র ১২ ওভারে ৯৯ রানের জুটি গড়ে দলকে সুবিধাজনক অবস্থায় পৌঁছে দেন।

‘রোহিত, কোহলি এবং রাহুলের দ্রুত বিদায়ের পর দলের ব্যাটিং লাইনআপে চাপ সৃষ্টি হয়েছিল। তবে পান্ট এবং হার্দিকের ক্রিকেটীয় দৃষ্টিভঙ্গি একদমই ভিন্ন। তারা বাউন্ডারিতে মনোযোগ দিচ্ছিল। যেকোন ধরণের ভুল বা আউটের চেয়ে ছক্কা মারার দিকে তাদের দৃষ্টি ছিল।’

‘যদিও একটি ভুল ম্যাচের চিত্র বদলে দিতে পারতো। কেননা দল বেশ নাজুক অবস্থায় ছিল। কিন্তু দুইজনই অসাধারণ ব্যাটিং করেছে। পান্ট ৭৮ রান করেছে। পেসের বিরুদ্ধে হার্দিক ছিল অনবদ্য। অন্যদিকে মিডিয়াম পেস এবং স্পিনের বিরুদ্ধে দারুণ ব্যাটিং করেছে পান্ট,’ রমিজ বলেন।

‘এছাড়াও শার্দুল ঠাকুর নিচের দিকে নেমে ২১ বলে ৩০ রান করে দলের স্কোর বাড়াতে কার্যকর ভূমিকা রেখেছে। বোলিংয়ে ৪ উইকেটও নিয়েছে। ভুবনেশ্বর দুই ওপেনারকে ফিরিয়ে নিজের জাত চিনিয়েছে। তার ধারাবাহিকতা চমৎকার। ডানহাতি কিংবা বামহাতি ব্যাটসম্যান, কাউকে সে স্বস্তিতে থাকতে দেয় না।’

ছক্কার উৎসবের জন্য সিরিজটি বেশ স্মরণীয় হয়ে থাকবে বলেও মন্তব্য করেন রমিজ। একইসাথে ফাইনাল ম্যাচের নায়কদের মনে রাখবেন তিনি।

‘৩য় ম্যাচ সহ পুরো সিরিজটি আমি বেশ উপভোগ করেছি। তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছে সিরিজে। চ্যাম্পিয়ন দল দুইটি মুখোমুখি হয়ে খেলাকে আরও বেগবান করেছে। ছক্কার জন্য সিরিজটি মনে রাখবো। ফাইনাল ম্যাচে কয়েকজন নায়ককেও মনে রাখবো,’ রমিজ রাজা নিজের বক্তব্য শেষ করেন।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

ঝলক দেখিয়েছে বাংলাদেশ, হতে পারেনি ধারাবাহিক

Read Next

এবারের আইপিএলে দিল্লির অধিনায়ক পান্ট

Total
2
Share