মাহমুদউল্লাহর কণ্ঠেও তামিমের সুর

মাহমুদউল্লাহর কণ্ঠেও তামিমের সুর

নিউজিল্যান্ডে ওয়ানডে সিরিজের আগে দলের বোলিং ইউনিট নিয়ে বেশ আশাবাদী ছিলেন অধিনায়ক তামিম ইকবাল। তবে ধবলধোলাই হওয়া সিরিজ শেষে এখন টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরুর অপেক্ষা। আগামীকাল (২৮ মার্চ) হ্যামিল্টনে প্রথম টি-টোয়েন্টির আগে অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও আশার বানী শোনালেন বোলিং ইউনিট নিয়ে।

ওয়ানডেতে দলের ভরাডুবিতে ব্যর্থ ব্যাটিং ইউনিট। দ্বিতীয় ওয়ানডেতে অবশ্য ভালো করলেও হারতে হয়েছে ক্যাচ মিস ও ফিল্ডিংয়ের খেসারত দিয়ে। টি-টোয়েন্টি সিরিজে ফিল্ডিং নিয়েও সচেতন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল।

আজ (২৭ মার্চ) প্রথম টি-টোয়েন্টির আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে রিয়াদ জানান স্বল্প দৈর্ঘ্যের ফরম্যাট বলেই আশাবাদী তারা। নিজেদের দিনে তিন বিভাগে সেরা খেলাটা খেললে যেকোন দলকেই হারানো সম্ভব।

তিনি বলেন, ‘টি-টোয়েন্টি এমন একটা ফরম্যাট যেখানে বড় দল ছোট দল বলতে কিছু নেই। র‍্যাংকিংয়ের এক নম্বর দল হোক বা নয়-দশ নম্বর দল হোক, নির্দিষ্ট দিনে যদি কোনো দল ভালো পারফর্ম করে, এক-দুইজন খেলোয়াড় ভালো পারফর্ম করে, দল হিসেবে যদি ব্যাটিং-বোলিং-ফিল্ডিং ঠিকমত করতে পারি তাহলে যেকোনো দলকে হারাতে পারব। এটা আমাদের বিশ্বাস।’

‘টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটটাই এমন। এটা একটা দিনের খেলা। যে ঐদিন ভালো করবে তাদের পক্ষেই ভালো করা সম্ভব।’

নিজেদের কন্ডিশন বলে নিউজিল্যান্ড বাড়তি সুবিধা পাবে মেনে নিয়েই টাইগারদের টি-টোয়েন্টি অধিনায়কের চাওয়া ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলা, ‘টি-টোয়েন্টিতে কোনো ধরনের জড়তা ছাড়া ভয়ডরহীন ক্রিকেট যদি আমরা খেলতে পারি তাহলে ফল আমাদের পক্ষে নিয়ে আসা সম্ভব। আমি বিশ্বাস করি, আমাদের জয়ের ক্ষুধা তীব্র আকারে আছে।’

‘আমরা এটার জন্য মুখিয়ে আছি। ইন শা আল্লাহ কাল আমাদের সেরা ক্রিকেট খেলার চেষ্টা করব। ব্যাটিং নিয়ে আমরা যেরকম আশা করেছিলাম ওরকম পারফর্ম করতে পারিনি। বোলারদের জয়ের রসদ এনে দিতে ব্যাটিং ইউনিটকে আরও ভালো পারফর্ম করতে হবে।’

বোলারদের নিয়ে আশাবাদী রিয়াদ যোগ করেন, ‘বোলাররা খুব ভালো ছন্দে আছে। আমাদের যে বোলিং ইউনিট আছে- মেহেদী, নাসুম, মিরাজ, সব ফাস্ট বোলাররা… আমাদের বোলিং অ্যাটাক তাদের আটকানোর জন্য যথেষ্ট ভালো। সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার সাথে নিউজিল্যান্ড খুব ভালো ক্রিকেট খেলেছে। কিন্তু আগেও বললাম- টি-টোয়েন্টিতে যে কারও হয়ে যেতে পারে। আমরা যদি জড়তা কাটিয়ে এবং এই তিন ম্যাচের ফলাফল ভুলে… ‘

‘হ্যাঁ যে ভুলগুলো করেছি সেটা মাথায় রাখতে হবে। কিন্তু ওয়ানডে সিরিজের ফলাফল যেন আমাদের এই খেলায় নেতিবাচক প্রভাব না ফেলে, সেজন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত রাখতে হবে। জয়ের বিকল্প নেই, অন্য কোনো পথ নেই। নিউজিল্যান্ডকে যদি নিউজিল্যান্ডকে হারাতে চান তাহলে যে চ্যালেঞ্জ নিতে হয় তার জন্য আমরা মুখিয়ে আছি।’

ওয়ানডে সিরিজে ফিল্ডিংয়ে খুব বাজে প্রদর্শনী দেখানো বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি সিরিজে দারুণ কিছু করতে চায়। অধিনায়ক জানালেন কিভাবে কন্ডিশনের সাথে মানিয়ে নিয়ে ক্যাচের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।

রিয়াদ বলেন, ‘এসব কন্ডিশনে গেইম অ্যাওয়ারনেস খুব গুরুত্বপূর্ণ। সবসময় বাতাস থাকবে, অনেক সময় উঁচু বা ফ্ল্যাট ক্যাচগুলোর জন্য প্রস্তুত থাকা গুরুত্বপূর্ণ কারণ বল এখানে তাড়াতাড়ি ট্রাভেল করে।’

‘প্রত্যেক ফিল্ডার যদি সবসময় এলার্ট থাকে, সুযোগ এলে আমাকে কাজে লাগাতে হবে- সেটা আমি হই বা যেই হোক। এসব ছোট ছোট সুযোগ যদি কাজে লাগাতে পারি তাহলেই পার্থক্য গড়া সম্ভব।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বাংলাদেশে আসছে পাকিস্তান অনূর্ধ্ব-১৯ দল, সূচি ও স্কোয়াড ঘোষণা

Read Next

সাকিব-মাশরাফির মন্তব্য, বেশি গুরুত্ব না দিতে বলছেন সুজন

Total
8
Share