নিজের একাডেমিতে ‘অন্যরকম’ সময় কাটালেন সাকিব

নিজের একাডেমিতে 'অন্যরকম' সময় কাটালেন সাকিব

রাজধানীর অদূরে নারায়ণগঞ্জের রুপগঞ্জের কাঞ্চনে গড়ে উঠেছে সাকিব আল হাসানের স্বপ্নের প্রকল্প। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার বেশ কয়েক বছর ধরেই একটি বিশ্বমানের ক্রিকেট একাডেমি করার ইচ্ছে প্রকাশ করেন। মাসকো গ্রুপের পৃষ্ঠপোষকতায় গড়ে উঠা এই একাডেমিতে আছে বিশ্বমানের সকল সুযোগ সুবিধা।

উন্নতমানের জিম, গ্রাউন্ড, আবাসিক ব্যবস্থা, ইনডোর, আউটডোরের সুবিধা থাকবে ভর্তি হওয়া ক্রিকেটারদের জন্য। ভর্তিচ্ছুক ক্রিকেটারের জন্য নেই নির্দিষ্ট কোন বয়স সীমা।

নিজের এই স্বপ্নের একাডেমিতে আজ (২৫ মার্চ) গিয়েছিলেন সাকিব আল হাসান। সেখানে একাডেমির ছাত্রদের সঙ্গে সময় কাটান, তাদের উপদেশ দেন। একাডেইর উদোগে সাকিবের জন্মদিন (অতকাল ছিল) পালন করা হয় সেখানে।

গণমাধ্যমের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু এখন সাকিব আল হাসান। তার কাছ থেকে কিছু শুনতে মাসকো সাকিব ক্রিকেট একাডেমিতে হাজির হয়েছিলেন সাংবাদিকরা। তবে আজও কথা বলেননি তিনি, কথা বলেছেন তার কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিন।

সালাউদ্দিন বলেন, ‘বাচ্চাদের (একাডেমির) সাথে যেহেতু সাকিবের আগে কোন পরিচয় হয়নি, বাচ্চারা তাকে দেখেওনি সামনাসামনি। তো আজ সরাসরি দেখলো, এটা তাদের জন্য ভালো একটা অভিজ্ঞতা। যেহেতু কাল তার জন্মদিন ছিল সেটাও আমরা উদযাপন করলাম একসাথে।’

বাচ্চাদের উপদেশ দিয়েছেন সাকিব, খুব বেশি কিছু অবশ্য বলেননি তিনি। তবে ভবিষ্যতে একাডেমির ছাত্রদের সঙ্গে একসাথে অনুশীলন করবেন সাকিব, এমনটাই জানান সালাউদ্দিন।

‘ছেলেদের উদ্দেশ্যে বেশি কিছু বলেনি (সাকিব), কিন্তু যতটুকু বলা দরকার ততটুকু বলেছে। যতটুকু উপদেশ দেওয়ার সেটা দিয়েছে। ভবিষ্যতে হয়তো আরও আসবে। ভবিষ্যতে যখন আসবে তখন ও নিজেই তাদের সাথে অনুশীলন করবে, তখন হয়তো আরও বেশি কথা বলবে। একজন খেলোয়ায়ড় হিসেবে ছেলেদের স্বাভাবিকভাবে যা বলা দরকার, কিভাবে কি করতে হবে সে জিনিসগুলোই বলেছে। আসলে ও অপ্রস্তুত ছিল নাহলে আরও… ও আসলে ভাবেইনি যে এখানে এরকম আয়োজন হবে। এখানে আমাদের এই প্রতিষ্ঠান থেকেই করেছে বলে হয়তো হঠাত করে এই জিনিসটা হয়ে গেছে।’

মিডিয়া, পারফরম্যান্সের চাপ কখনো সাকিবের জন্য বাধার কারণ হয়ে ওঠেনি। আরো একবার তার প্রিয় কোচ সালাউদ্দিন জানালেন এতদিনেও সেটা বদলায়নি।

‘আসলে চাপ কথাটা আমার মনে হয় ওর এই অর্থে বলা যাবেনা। কারণ কখনোই ভালো খেলা সম্ভব না যদি আপনি এসব জিনিস মাথায় রাখেন। একজন খেলোয়াড়ের সবসময় চাপ থাকবে, পারফরম্যান্সের চাপ থাকবে, মিডিয়ার চাপ থাকবে। সবকিছু মিলিয়ে যখন প্লেয়াররা মাঠে ঢুকে তখন এসব কাজ করেনা। এটা খুব ভালো যে এতগুলো তরুণ ছেলের সামনে এসে কথা বলতেছে। এটা ভালো লাগার ব্যাপার। যেমন এখানে ৬ বছরের বাচ্চা আছে , এদের সাথে সময় কাটানো যে কোন মানূষের জন্যই ভালো লাগার ব্যাপার।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বরিশালকে হেসেখেলে হারাল ঢাকা মেট্রো

Read Next

মিঠুনের সফল হবার কারণ ব্যাখ্যা করলেন ব্যাটিং কোচ

Total
10
Share