পাঁচ বোলার নিয়ে একাদশ সাজাচ্ছে বাংলাদেশ

পাঁচ বোলার নিয়ে একাদশ সাজাচ্ছে বাংলাদেশ

এর আগে যতবারই নিউজিল্যান্ড সফরে গিয়েছিল বাংলাদেশ ততবারই খালি হাতে ফিরেছে। কোন ফরম্যাটেই দেখা মেলেনি জয়ের। এবার সেই অধরা জয় নিয়ে বেশ আশাবাদী কোচ, অধিনায়ক। ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল বেশি রোমাঞ্চিত দলের তরুণ পেসারদের নিয়ে। ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে জানিয়ে গেলেন প্রথম ম্যাচের একাদশে বোলাররাই প্রাধান্য পাচ্ছে।

নিউজিল্যান্ডের পেস বান্ধব উইকেটে একাদশে পেসারদের জয়জয়কার থাকবে অনুমেয়ই। তামিমও জানালেন ২০ মার্চ ডানেডিনে শুরু হতে যাওয়া প্রথম ওয়ানডেতে অন্তত তিনজন পেসার থাকছেনই। একাদশে মূল বোলার জায়গা পাবে পাঁচ জন।

আজ (১৮ মার্চ) ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে দলের কম্বিনেশন সম্পর্কে বলেন, ‘টিম কম্বিনেশন আমি যেটা বললাম আমরা অবশ্যই অন্তত তিনজন পেসার নিয়ে নামবো বলতে পারি। সাথে অলরাউন্ডার থাকবে। আমি অধিনায়ক হিসেবে অবশ্যই চাই পাঁচজন বোলার নিয়ে নামতে।’

‘কারণ নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশনে আপনি যদি চারজন বোলার নিয়ে খেলেন অনেক সময় এটা কঠিন হতে পারে। এখানে মাঠগুলো একটু ছোট হয়, হাই স্কোরিং গেম হয়। আমার কাছে মনে হয় পাঁচজন প্রোপার বোলার নিয়ে নামা উচিত আর আমরা সেটাই করতে যাচ্ছি।’

সকালে কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো জানিয়েছেন টাইগার শিবিরের তরুণ পেসারদের দিয়ে চমকে দিতে চান প্রতিপক্ষকে। এবার ওয়ানডে অধিনায়কও জানালেন তরুণ হাসান মাহমুদ, শরিফুল ইসলাম, সাইফউদ্দিনদের নিয়ে বেশ রোমাঞ্চিত তিনি। অভিজ্ঞ রুবেল হোসেন, তাসকিন আহমেদ, মুস্তাফিজুর রহমান, আল আমিন হোসেনতো আছেনই।

এবার নিউজিল্যান্ডে অধরা জয় পাওয়ার ব্যাপারে পেসাররাই তামিমকে বেশি আশাবাদী করছে, ‘সত্যি কথা আমাদের এবার যেটা হলো যে, আমাদের পেস বোলিং অ্যাটাক হয়তোবো আগে যতবার এসেছি তার চেয়ে ভালো অবস্থায় আছে। ভালো অবস্থায় আছে অবশ্যই ভালো করাও লাগবে কিন্তু এতটুক বলতে পারি যে এখন যে গ্রুপটা আছে পেস বোলারদের। তারা খুবই ভালো।’

টানা জয়ের মধ্যে থাকা নিউজিল্যান্ড নিশ্চিতভাবেই ফেভারিট, তার উপর নিজেদের মাটিতে খেলা বলে বিশ্বের যে কোন দলের জন্য চ্যালেঞ্জিং। সে ক্ষেত্রে বাংলাদেশ কতটা চাপ তৈরি করতে পারবে কিউইদের উপর? এমন প্রশ্নের জবাবেও তামিমের ট্রা ম্প কার্ড হয়ে সামনে আসলে পেসাররা। আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলার পাশপাশি পেসাররা ভালো করলেই কাজ সহজ হবে বিশ্বাস তার।

তামিম বলেন, ‘চাপ তৈরি করার চাইতে আমাদের ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলতে হবে, আমাদের আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলতে হবে। আক্রমণাত্মক ক্রিকেট বলতে প্রতি ১০ ওভারে ১০০ রান করতে হবে সেটা বুঝাইনি বা প্রথম ৫ ওভারে ৫ উইকেট নিয়ে নিতে হবে। আমাদের সবকিছুতে ইতিবাচক থাকতে হবে, যাই করিনা কেন। যেহেতু আমাদের অতীত রেকর্ড ভালোনা এখানে সেহেতু ভিন্নভাবে কাজ করতে হবে, ভিন্নভাবে ভাবতে হবে।’

‘আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ হল বোলিং বিভাগ। আমরা যদি বোলিংয়ে আক্রমণাত্মক থাকতে পারি… আমি আসলে আমাদের নতুন পেসারদের নিয়ে বেশ আশাবাদী। এভাবেই তাদের শিখতে হবে। আমি খুবই এক্সাইটেড। তারা কঠোর পরিশ্রম করছে। নেটে বলেন, প্রস্তুতি ম্যাচ বলে ওরা ভালো বল করেছে। সুতরাং আমি খুব আশাবাদি তারা ভালো করবে। ওরা যদি ভালো করে তবে আমাদের জন্য অনেক সহজ হয়ে যাবে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

সেদিনের এই দিনেঃ নিদাহাসে স্বপ্নভঙ্গ

Read Next

মুস্তাফিজকে ‘ভোকাল’ হবার পরামর্শ দিলেন তামিম

Total
27
Share