রুবেলের প্রশ্ন, শরিফুলের উত্তর

রুবেলের প্রশ্ন, শরিফুলের উত্তর
Vinkmag ad

করোনা মহামারী বিশ্বকে দেখিয়েছে নতুন রূপ, শিখিয়েছে ভিন্ন ভিন্ন কাজের পন্থা। করোনা প্রভাবেই বাংলাদেশের নিউজিল্যান্ড সফরে বাংলাদেশি কোন সাংবাদিককে অনুমোদন দেয়নি নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট (এনজেডসি)। সবসময় ক্রিকেটাররাই সাক্ষাৎকার দিয়ে থাকেন সাংবাদিকদের কাছে, তবে এবার বাংলাদেশি সাংবাদিকবিহীন নিউজিল্যান্ডে নিজেরাই হয়ে গেলেন সাংবাদিক।

পেসার রুবেল হোসেন ও শরিফুল ইসলাম কুইন্সটাউনে অনুশীলনের ফাঁকে এমন কিছুই করলেন।

মজার ছলে হলেও বেশ গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নই একে অপরের দিকে ছুঁড়ে দিয়েছেন। ক্রাইস্টচার্চে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন শেষে ১০ মার্চ কুইন্সটাউন পৌঁছে ১১ মার্চ থেকে পুরোদমে অনুশীলন করছে টাইগাররা। কোয়ারেন্টাইন যথাযথভাবে শেষ করায় বাঁধা বিপত্তি ছাড়াই অবাধে বিচরণ করতে পারছে বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা।

কুইন্সটাইনে তৃতীয়দিনের মত অনুশীলন শেষে বিসিবির পাঠানো এক ভিডিও বার্তায় দেখা যায় মুখোমুখি বসে একে অপরে সাক্ষাৎকার নিচ্ছেন রুবেল-শরিফুল। রুবেল জাতীয় দলের অভিজ্ঞ পেসার হলেও এখনো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেকের অপেক্ষায় থাকা শরিফুলের জাতীয় দলের সাথে প্রথম বিদেশ সফর।

তবে অভিজ্ঞ রুবেলের করা প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন বেশ সাবলীলভাবেই। যেন প্রতিপক্ষ অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানকে পড়তে পেরে নিজের শক্তির জায়গা লাইন লেংথ ও হালকা সুইংয়ের কোন ডেলিভারি করলেন।

বিসিবির পাঠানো এক ভিডিও বার্তায় দেখা যায় রুবেল শরিফুলকে প্রশ্ন করছেন, ‘তোমার প্রিপারেশন কেমন নিচ্ছো? ওদের কন্ডিশনে নিউজিল্যান্ড অনেক টাফ টিম, তো তোমার প্রিপারেশন কেমন?’

জবাবে বাঁহাতি পেসার শরিফুল জানালেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ অনেক ভালো চলছে। প্রিপারেশন তো আল্লাহর রহমতে ভালোই আছে। ওদের দেশে, ওদের সব জানা, তো ওদের সাথে খেলা একটু কঠিনই হবে। চেষ্টা করব নিজের প্ল্যানে থাকার।’

নিউজিল্যান্ডের উইকেট দেখে নিজের ভাবনার কথা জানাতে গিয়ে যুব বিশ্বকাপজয়ী দলের এই পেসার বলেন, ‘উইকেটটা অনেক ভালো মনে হচ্ছে। স্কোরিং উইকেট। অ্যানিথিং ওয়াইড, পানিশড। জাস্ট লাইন অ্যান্ড লেংথে ঠিক করে বল করতে হবে।’

আন্তর্জাতিক অভিষেক না হলেও ১৯ বছর বয়সী এই পেসার ইতোমধ্যে যুব বিশ্বকাপ জয় ছাড়াও খেলে ফেলেছেন ৮ টি প্রথম শ্রেণির ম্যাচ, ২৭ টি লিস্ট ‘এ’ ম্যাচ ও ২২ টি স্বীকৃত টি-টোয়েন্টি। সামর্থ্য আর প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন সব জায়গাতেই। এই নিউজিল্যান্ডেই যুব দলের হয়ে খেলতে গিয়ে কিউই যুবাদের কঠিন পরীক্ষা নিয়েছিলেন।

নিজের শক্তির জায়গা সম্পর্কে জানাতে গিয়ে শরিফুল বলেন, ‘স্টক বলটায় মনোযোগ দিচ্ছি, স্টাম্প টু স্টাম্প, হালকা সুইং।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

রাশিদ বীরত্বে মহাকাব্য লেখা হলনা উইলিয়ামস-টিরিপানোদের

Read Next

সুখস্মৃতি মাথায় এনে, প্রয়োগটা ঠিকঠাক করতে চান রুবেল

Total
6
Share