আয়ারল্যান্ড উলভসের অভিজ্ঞদের বিপক্ষে যেভাবে সাবলীল তৌহিদ হৃদয়রা

হৃদয়
Vinkmag ad

জাতীয় দল ও প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের অভিজ্ঞতা সম্পন্ন বেশিরভাগ ক্রিকেটার নিয়ে বাংলাদেশে আসা আয়ারল্যান্ড উলভস হেরেই চলেছে বাংলাদেশ ইমার্জিং দলের কাছে। তরুণদের নিয়ে গড়া বাংলাদেশ ইমার্জিং দলের হয়ে পারফর্ম করা তৌহিদ হৃদয় জানালেন আইরিশ ক্রিকেটারদের সামলাতে বাংলাদেশের সিনিয়র ক্রিকেটারদের সাথে খেলার অভিজ্ঞতাই কাজে দিচ্ছে।

আয়ারল্যান্ড উলভস নামে বাংলাদেশে আসা দলটিতে বেশ কয়েকজন আয়ারল্যান্ড জাতীয় দলের খেলোয়াড় রয়েছে। ফলে তরুণদের নিয়ে গড়া বাংলাদেশ ইমার্জিং দলের লড়াইটা সমানে সমান হবে বলে ধারণা করা হচ্ছিল।

কিন্তু হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) ইউনিটের বেশিরভাগ সদস্যদের নিয়ে গড়া বাংলাদেশ ইমার্জিং দলের কাছে পাত্তাই পাচ্ছেনা সফরকারীরা। পাঁচ ম্যাচ আনঅফিসিয়াল ওয়ানডে সিরিজের প্রথমটি পরিত্যক্ত হলেও পরের পরের তিনটিতে জিতে ইতোমধ্যে সিরিজ নিশ্চিত বাংলাদেশ ইমার্জিং দলের।

আজ (১২ মার্চ) মিরপুরে আয়ারল্যান্ড উলভসকে ৮ উইকেটে হারানোর পথে ৮৮ রানের হার না মানা ইনিংস খেলেন তৌহিদ হৃদয়। অন্যদিকে অপরাজিত আরেক ব্যাটসম্যান মাহমুদুল হাসান জয়ের ব্যাট থেকে আসে ৮০ রান। সিরিজের আগের ম্যাচগুলোতেও ব্যাট হাতে দাপট দেখিয়েছে সাইফ হাসান, শামীম হোসেনরা।

এখনো পর্যন্ত সিরিজের সর্বোচ্চ পাঁচ রান সংগ্রাহকের তালিকায় চারজনই বাংলাদেশ ইমার্জিং দলের। যার মধ্যে তৌহিদ হৃদয় আবার সবার উপরে। ২০ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যান ৪ ইনিংসে ২০৬ গড়ে রান করেছেন ২০৬।

আজ চতুর্থ ম্যাচ জয়ের পর মিরপুরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে হৃদয় জানালেন কীভাবে প্রতিপক্ষের অভিজ্ঞ ক্রিকেটারদের সামলালেন,

‘ওদের সাতটা প্লেয়ার আছে ন্যাশনাল টিমের। আসলেই মাঠে যখন খেলি কে ন্যাশনাল টিম কে বড় ছোট এসব মাথায় আসে না। সব সময় আমরা মাঠে নামি জেতার জন্য। যদিও এটা আত্মবিশ্বাস দিবে ওদের ন্যাশনাল টিমের প্লেয়ার ছিল।’

‘তবে বলতে পারি ওদের চেয়ে বড় বড় খেলোয়াড়দের সঙ্গে খেলেছি। প্রেসিডেন্টস কাপ, বঙ্গবন্ধু কাপে আমাদের স্থানীয় অনেক বড় বড় সিনিয়র প্লেয়ার ছিল। ওখান থেকেই আমরা আত্মবিশ্বাস পেয়েছি। আসলে আমাদের যে আপনি যদি দেখেন এইচপি ক্যাম্প আমরা অনেক দিন ধরে করছি।’

‘আমাদের প্রতিটা প্লেয়ার অনেক ভালো অবস্থায় আছে। প্রেসিডেন্ট কাপ, বঙ্গবন্ধু কাপ সবকছিুর মধ্যে ছিলাম। হয়তো এই জন্য আমাদের ব্যাটসম্যান বা বোলাররা ভালো পারফর্ম করছে। করোনার ভেতরেও আমরা বাসায় অনেক কাজ করেছি। হয়তো সেটার ফল পাচ্ছি এখন।’

২০ বছর বয়সী তৌহিদ ইতোমধ্যে খেলেছেন দুইটি যুব বিশ্বকাপ। যার সর্বশেষটিতে আবার বাংলাদেশ ইতিহাস গড়ে শিরোপা জিতেছে। এর বাইরে দেশের ঘরোয়া টুর্নামেন্টের বদলৌতে জাতীয় দলের সিনিয়র ক্রিকেটারদের সতীর্থ ও প্রতিপক্ষ হয়ে খেলার অভিজ্ঞতাও আছে।

২০১৯ সালে সিলেট সিক্সার্সের হয়ে স্বীকৃত টি-টোয়েন্টিতে অভিষেকের মাধ্যমে খেলার সুযোগ হয় ডেভিড ওয়ার্নার, নিকোলাস পুরানদের মত আন্তর্জাতিক তারকা ক্রিকেটারদের সাথেও। সর্বশেষ বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে খেলেছেন তামিম ইকবালের দল ফরচুন বরিশালের হয়ে। যেখানে তামিম ছাড়াও সতীর্থ হিসেবে ছিল তাসকিন আহমেদ, মেহেদী হাসান মিরাজ, কামরুল ইসলাম রাব্বিরা।

তার আগে বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপে খেলেছেন নাজমুল হোসেন শান্তর দল শান্ত একাদশে। যেখানে সতীর্থ হিসেবে পেয়েছেন মুশফিকুর রহিম, সৌম্য সরকার, তাসকিন আহমেদ, আল আমিন হোসেনদের মত জাতীয় দলের অভিজ্ঞ ক্রিকেটারদের।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

হৃদয়-জয়ের ব্যাটে বাংলাদেশ ইমার্জিং দলের সহজ জয়

Read Next

সেঞ্চুরির চিন্তা না করা হৃদয় আইরিশদের হোয়াইটওয়াশ করার অপেক্ষায়

Total
8
Share