হৃদয়-জয়ের ব্যাটে বাংলাদেশ ইমার্জিং দলের সহজ জয়

featured photo updated
Vinkmag ad

মিরপুরে ৮ উইকেটে আয়ারল্যান্ড উলভসকে হারিয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ ইমার্জিং দল। প্রথম ম্যাচ পরিত্যক্ত হলেও টানা তিন জয় পেল সাইফ হাসানের দল। আজ (১২ মার্চ) চতুর্থ ওয়ানডেতে আয়ারল্যান্ডের দেয়া ১৮৩ রানের লক্ষ্য মাহমুদুল হাসান জয় ও তৌহিদ হৃদয়ের জোড়া ফিফটিতে সহজ জয় পেল বাংলাদেশ ইমার্জিং।

চট্টগ্রামে ম্যাচ হারলেও আগের দুই ম্যাচ ভালো সংগ্রহ পায় আইরিশরা। তবে মিরপুরে আজ সেভাবে হাসেনি সফরকারীদের ব্যাট। বাজে শুরুর পরও মার্ক অ্যাডায়ারের ৪০ রানের সাথে রুহান প্রিটোরিয়াস, লরকান টাকার ও গ্রাহাম হিউমের ছোট ছোট কিছু ইনিংসে ১৮২ রানের পুঁজি পায় আয়ারল্যান্ড উলভস।

মাঝারি মানের লক্ষ্য তাড়া নেমে ১০ রানেই বিদায় নেন তানজিদ হাসান ও ইয়াসির আলি রাব্বি। দলীয় ৮ রানে পিটার চেজে কিছুটা লাফিয়ে ওঠা বল এজ হয় স্টাম্পে টেনে আনেন তামিম (২)। ২ রানের ব্যবধানে নতুন ব্যাটসম্যান রাব্বি (২) চেজের লেগ স্টাম্পের বাইরে দিয়ে যাওয়া বলে খোঁচা দিয়ে উইকেট রক্ষক লরকান টাকারের হাতে ধরা পড়েন।

তবে দুইজনের বিদায়ের পরই ক্রিজে দাঁড়িয়ে যান ওপেনার মাহমুদুল হাসান জয় ও তৌহিদ হৃদয়। দুজনেই অবশ্য আক্ষেপ করতে পারেন আইরিশদের দলীয় সংগ্রহ কম হওয়াতে। দুজনেই সেঞ্চুরির দ্বারপ্রান্তে থেকে অপরাজিত ছিলেন। তাদের অবিচ্ছেদ্য ১৭৬ রানের জুটিতে ৫১ বল হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছায় বাংলাদেশ ইমার্জিং দল।

৯৮ বলে ফিফটিতে পৌঁছানো জয় জয়সূচক চার হাঁকিয়ে অপরাজিত ছিলেন ৮০ রানে। ১৩৫ বলে ৮ চারের সাহায্যে ইনিংসটি সাজান যুব বিশ্বকাপ জয়ী দলের এই সদস্য। অন্যদিকে যুব বিশ্বকাপ জয়ী দলের আরেক সদস্য তৌহিদ হৃদয় অপরাজিত ছিলেন ৮৮ রানে। ৬৯ বলে বেন হোয়াইটের বলে ডিপ এক্সট্রা কাভার দিয়ে চার মেরে ফিফটিতে পৌছানোর পর হার না মানা ইনিংসটি সাজিয়েছেন ৯৭ বলে ৯ চারে।

টস হেরে আগে ব্যাট করা আইরিশরা শুরু থেকেই আজ মুখ থুবড়ে পড়ে। আগের দুই ম্যাচের ওপেনিং জুটিতে এদিন পরিবর্তন আনে দলটি। জেমস ম্যাককুলাম ও রুহান প্রিটোরিয়াসের পরিবর্তে ইনিংসের গোড়াপত্তন করেন স্টিফেন ডোহানি ও জেরেমি ল’লর। তবে জুটি স্থায়ী হয়নি ৪.২ ওভারের বেশি, তাতে স্কোরবোর্ডে উঠে ১৪ রান। সুমন খানের বলে ল’লর (১৬) ক্যাচ দেন উইকেটের পেছনে আকবর আলিকে।

ডোহানিকে নিয়ে তৃতীয় উইকেট জুটিতে ২৬ রান যোগ করে প্রতিরোধের চেষ্টা মার্ক অ্যাডায়ারের। মুকিদুল ইসলাম মুগ্ধের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ডোহানিও (১১)। অ্যাডায়ার চেষ্টা চালিয়ে গেলেও দ্রুত ফিরেছেন অধিনায়ক হ্যারি টেক্টর (০) ও কুর্টিস ক্যাম্ফার (৫)। দুজনকে ফিরিয়ে আইরিশদের ৪ উইকেটে ৫৪ রানে পরিণত করেন সুমন খান।

সেখান থেকে ৪৬ রানের জুটিতে লরকান টাকারকে নিয়ে আরও একবার বিপর্যয় সামালের চেষ্টা অ্যডায়ারের। দলীয় ঠিক ১০০ রানে অ্যাডায়ারকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলে জুটি ভাঙেন বাঁহাতি স্পিনার রাকিবুল হাসান। ৪০ রান আসে অ্যাডায়ারের ব্যাট থেকে। এক রানের ব্যবধানে টাকারও (২৪) ফিরেছেন রাকিবুলের শিকার হয়ে, ক্যাচ দিয়েছেন উইকেটের পেছনে।

১১২ রানে ৭ উইকেট হারানো আয়ারল্যান্ড উলভসকে ১৮২ রানের পুঁজি এনে দেয় ৮ম উইকেটে প্রিটোরিয়াস-হিউমের ৫৭ রানের জুটি। সাইফের বলে রিশাদ হোসেনকে ক্যাচ দেওয়ার আগে প্রিটোরিয়াসের ব্যাট থেকে আসে দ্বিতীয় ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ৩৫ রান।

তার বিদায়ের পর অবশ্য বেশিক্ষণ টিকেনি আইরিশদের ইনিংস। ২৯ রানে অপরাজিত ছিলেন হিউম। বাংলাদেশ ইমার্জিংয়ের হয়ে সর্বোচ্চ ৪ উইকেট শিকার সুমন খানের। দুইটি করে উইকেট ঝুলিতে পোরেন সাইফ হাসান, রাকিবুল হাসান ও মুকিদুল ইসলাম।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

আয়ারল্যান্ড উলভস ১৮২/১০ (৪৬.২ ওভার), ল’লর ১৬, ডোহানি ১১, অ্যাডায়ার ৪০, টেক্টর ০, ক্যাম্ফার ৫, টাকার ২৪, ডেলানি ৬, প্রিটোরিয়াস ৩৫, হিউম ২৯*, হোয়াইট ২, চেজ ৬; মুগ্ধ ৯-১-২৯-২, সুমন ৮.২-২-৩১-৪, রাকিবুল ১০-০-৩৬-২, সাইফ ৫-০-২৫-২।

বাংলাদেশ ইমার্জিং ১৮৩/২ ( ওভার), তামিম ২, জয় ৮০*, রাব্বি ২, হৃদয় ৮৮*; অ্যাডায়ার ৪-১-৭-০, চেজ ৮-০-২৯-২, হোয়াইট ৮-০-৪০-০, প্রিটোরিয়াস ৪-১-১২-০।

ফলাফলঃ বাংলাদেশ ইমার্জিং ৮ উইকেটে জয়ী।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন জাহানারা-সালমারা

Read Next

আয়ারল্যান্ড উলভসের অভিজ্ঞদের বিপক্ষে যেভাবে সাবলীল তৌহিদ হৃদয়রা

Total
10
Share