ইংল্যান্ডের সামনেও রফিকদের অসহায় আত্মসমর্পন

ইংল্যান্ডের সামনেও রফিকদের অসহায় আত্মসমর্পন

রোড সেফটি ওয়ার্ল্ড সিরিজে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচেও পরাজয় সঙ্গী বাংলাদেশ লেজেন্ডসের। ভারত লেজেন্ডসের বিপক্ষে ১০ উইকেটে হারার পর ইংল্যান্ড লেজেন্ডসের বিপক্ষে মোহাম্মদ রফিকের দল হেরেছে ৭ উইকেটে।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ১১৩ রানের বেশি করতে পারেনি বাংলাদেশ লেজেন্ডস। জবাবে কেভিন পিটারসেনের ১৭ বলে ৪২ রানের ইনিংসেই ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারণ হয়ে যায়।

উদ্বোধনী জুটিতে বাংলাদেশ লেজেন্ডসের নাজিমউদ্দিন ও জাভেদ ওমর বেলিম যোগ করেন ২০ রান। ৩.৫ ওভার স্থায়ী জুটি ভাঙে রায়ান সাইডবটমের বলে নাজিমউদ্দিন বোল্ড হলে। আগের ম্যাচে ৪৯ রানের দারুণ ইনিংস খেলা নাজিমউদ্দিন ১৪ বলে করতে পারেননি ১২ রানের বেশি।

২ রানের ব্যবধানে ফিরে যান উইকেটে বেশ সংগ্রাম করতে থাকা জাভেদ ওমরও। ক্রিস ট্রেমলেটের বলে বোল্ড হওয়ার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ১২ বলে ৫ রান। এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ লেজেন্ডস পরিণত হয় ৫ উইকেটে ৫৫ রানে।

তবে সেখান থেকে দলীয় সংগ্রহ ১০০ পেরোয় খালেদ মাসুদ পাইলট ও মুশফিকুর রহমান বাবুর ত্রিশোর্ধ্ব দুইটি ইনিংসের কল্যাণে। ৩৯ বলে ৩ চারে ৩১ রান করে রিটায়ার্ড হার্ট হন পাইলট। তবে ২৬ বলে ৪ চারে ৩০ রান করে মুশফিকুর রহমান বাবু অপরাজিত ছিলেন ৩০ রানে। মোহাম্মদ রফিক অপরাজিত ছিলেন ২ রানে।

১১৪ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে পাওয়ার প্লের ৬ ওভারেই ৭০ রান উঠে ইংল্যান্ড লেজেন্ডসের স্কোরবোর্ডে। ওপেনার ফিল মাস্টার্ড ১৬ বলে ২৭ রান করে ফিরেন পেসার আলমগীর কবিরের বলে। যদিও মোহাম্মদ শরিফের বলে ব্যাটে লেগে উইকেট রক্ষকের হাতে গেলেও আম্পায়ার আউট দেননি মাস্টার্ডকে। আউট দিলে প্রথম ওভারেই ফিরতেন ব্যক্তিগত ৮ রানে।

মাস্টার্ড ফিরলে ভাঙে পিটারসেনের সাথে ৪৬ রানের জুটি। ততক্ষণে অন্য প্রান্তে ঝড় শুরু করেন পিটারসীন নিজেই। দলীয় ৮০ রানের মাথায় দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে মোহাম্মদ রফিকের বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়ে ফেরার আগে ৪২ রানের ইনিংসটি সাজান ৪ চার ১ ছক্কায়।

দুই ওপেনার বিদায়ের পর মোহাম্মদ রফিকের দ্বিতীয় শিকার হয়ে ক্রিস স্কোফিল্ড (৫) ফিরেছেন দ্রুতই। ইংলিশদের স্পিন খেলায় দুর্বলতা ফুটে ওঠে আরেকবার। তবে লক্ষ্য ছোট বলে রফিক, আব্দুর রাজ্জাক, রাজিন সালেহদের স্পিন সামলে ৬ ওভার হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় পিটারসেনের দল। ড্যারেন ম্যাডি ৩২ বলে ৩২ রানে ও গ্যাভিন হ্যামিলটন ৫ রানে অপরাজিত ছিলেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

বাংলাদেশ লেজেন্ডস ১১৩/৫ (২০), নাজিমউদ্দিন ১২, জাভেদ ৫, নাফিস ৮, হান্নান ১৩, রাজিন ৫, পাইলট ৩১ (রিটায়ার্ড হার্ট), মুশফিকুর ৩০*, রফিক ২*; পানেসার ৪-০-১৫-১, সাইডবটম ৩-০-২৪-১, ট্রেমলেট ২-০-১০-২, স্কোফিল্ড ৪-০-২১-১

ইংল্যান্ড লেজেন্ডস ১১৭/৩ (১৪), মাস্টার্ড ২৭, পিটারসেন ৪২, ম্যাডি ৩২*, স্কোফিল্ড ৫, হ্যামিল্টন ৫*; আলমগীর ২-০-২৬-১, রফিক ৪-০-৩১-২

ফলাফলঃ ইংল্যান্ড লেজেন্ডস ৭ উইকেটে জয়ী

ম্যাচসেরাঃ কেভিন পিটারসেন (ইংল্যান্ড লেজেন্ডস)।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

চট্টগ্রামে প্রিটোরিয়াসের অদ্ভুত ৩৬ ঘন্টা

Read Next

ঘরের মাঠে টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতল উইন্ডিজ

Total
4
Share