অজিদের উড়িয়ে দিয়ে সিরিজ জয় নিউজিল্যান্ডের

অজিদের উড়িয়ে দিয়ে সিরিজ জয় নিউজিল্যান্ডের
Vinkmag ad

ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়াকে সিরিজের শেষ টি-টোয়েন্টিতে বড় ব্যবধানে হারালো নিউজিল্যান্ড। সোধি, বোল্ট, সাউদিদের দাপুটে বোলিংয়ের পর মার্টিন গাপটিলের অনবদ্য ৭১ রানের ইনিংস। শেষদিকে গ্লেন ফিলিপসের ক্যামিও ইনিংসে ৭ উইকেটের জয় কিউইদের। ৩-২ ব্যবধানে সিরিজ জয় স্বাগতিকদের।

প্রথম দুই টি-টোয়েন্টি জিতে সিরিজ জয়ের অপেক্ষায় ছিল নিউজিল্যান্ড। কিন্তু পরের দুটি ম্যাচ জিতে সিরিজে সমতা ফেরায় অস্ট্রেলিয়া। সিরিজ নির্ধারণী শেষ টি-টোয়েন্টিতে অস্ট্রেলিয়াকে উড়িয়ে দিয়ে ২৭ বল হাতে রেখেই ৭ উইকেটের জয় নিউজিল্যান্ডের। ৭১ রানের ইনিংস খেলা কিউই ওপেনার মার্টিন গাপটিল হয়েছেন ম্যাচ সেরা। আর সিরিজ সেরার পুরষ্কার উঠল সিরিজ জুড়ে দারুণ বল করা ইশ সোধির হাতে।

শেষ ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার দেওয়া ১৪৩ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে ব্যাট হাতে দারুণ শুরু করে কিউই দুই ওপেনার ডেভন কনওয়ে ও মার্টিন গাপটিল। শতরান ছাড়ানো উদ্বোধনী জুটি। এই দুইয়ের ব্যাটের সামনে ইনিংসের প্রথম ১০ ওভার পাত্তা পায়নি অজি বোলাররা। এর মাঝেই ফিফটি পূর্ণ করেন মার্টিন গাপটিল।

তবে ব্যক্তিগত ৩৬ রানে ডেভন কনওয়ে আউট হলে গাপটিলের সঙ্গে জুটি ভাঙ্গে ১০৬ রানের। এর পরের বলেই রাইলি মেরেডিথ ফিরিয়ে দেন অধিনায়ক উইলিয়ামসনকে শূন্য রানে রেখে। পরপর দুই উইকেট হারিয়ে যেখান বিপাকে পড়ার কথা ছিল নিউজিল্যান্ডের, কিন্তু তা হয়নি গাপটিলের দাপুটে ব্যাটিংয়ে। তবে দলকে জয় প্রায় নিশ্চিত করেই আউট হন গাপটিল। তাঁর ৭১ রানের ইনিংসে ছিল ৭ চার ও ৪ ছয়।

এরপর গ্লেন ফিলিপস ক্যামিও ইনিংসে নিউজিল্যান্ডের সিরিজ জয় নিশ্চিত করেন। ফিলিপস ১৬ বল মোকাবিলায় ৫ চার ও ২ ছয়ে ৩৪ রানে অপরাজিত থাকেন। আর নিউজিল্যান্ড ১৫.৩ ওভারেই ৭ উইকেট হাতে রেখে অস্ট্রেলিয়ার টার্গেট টপকে জয় নিশ্চিত করে।

এর আগে এদিন টসে জিতে ব্যাটিং করতে নেমে স্কোরবোর্ডে ৮ রান তুলতেই সাজঘরে ফেরেন ওপেনার জশ ফিলিপ। ২ রানে তাকে প্যাভিলিয়নের পথ দেখান ট্রেন্ট বোল্ট। এরপর আরেক ওপেনার অ্যারন ফিঞ্চকে সঙ্গে নিয়ে রানের চাকা সচল রাখেন ম্যাথু ওয়েড। তবে ব্যক্তিগত ৩৬ রানে ফিঞ্চ আউট হলে ওয়েডের সঙ্গে জুটি ভাঙ্গে ৬৬ রানের। দলীয় ৭৪ রানে দ্বিতীয় উইকেট হারায় অজিরা।

রান করতে ব্যর্থ গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, মাত্র ১ রান আসে তাঁর ব্যাট থেকে। ৪৪ রানে ব্যাট করতে থাকা ম্যাথু ওয়েডকে ফিফটি পূর্ণ করতে দেননি ট্রেন্ট বোল্ট। মার্কাস স্টয়নিস খেলেন ২৬ বলে ২৬ রানের ইনিংস। এরপর অ্যাশটন অ্যাগার ৬, মিচেল মার্শ ১০ ও রিচার্ডসন ৪ রানে আউট হলে নির্ধারিত ২০ ওভার শেষ হয়ে যায় অস্ট্রেলিয়ার। ৮ উইকেট হারিয়ে স্কোরবোর্ডে ১৪২ রান জমা করতে সক্ষম হয় অজি ব্যাটসম্যানরা।

বল হাতে নিউজিল্যান্ডের হয়ে  সর্বোচ্চ ৩ উইকেট ইশ সোধির দখলে। এছাড়া ২টি করে উইকেট নেন বোল্ট, সাউদি। চ্যাপম্যান শিকার করেন ১টি উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

অস্ট্রেলিয়াঃ ১৪২/৮ (২০ ওভার) ফিলিপ ২, ফিঞ্চ ৩৬, ওয়েড ৪৪, ম্যাক্সওয়েল ১, স্টয়নিস ২৬, অ্যাগার ৬, মার্শ ১০; সোধি ৩/২৪, বোল্ট ২/২৫, সাউদি ২/৩৮, চ্যাপম্যান ১/৯

নিউজিল্যান্ডঃ ১৪৩/৩ (১৫.৩ ওভার) কনওয়ে ৩৬, গাপটিল ৭১, উইলিয়ামসন ০, ফিলিপস ৩৪*; মেরেডিথ ২/৩৯, রিচার্ডসন ১/১৯

ফলাফলঃ নিউজিল্যান্ড ৭ উইকেটে জয়ী

সিরিজঃ ৫ টি-টোয়েন্টির সিরিজে ৩-২ ব্যবধানে জয়ী নিউজিল্যান্ড

ম্যাচ সেরাঃ মার্টিন গাপটিল (নিউজিল্যান্ড)

সিরিজ সেরাঃ ইশ সোধি (নিউজিল্যান্ড)।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

চট্টগ্রামে সেই প্রিটোরিয়াসের ফিফটি

Read Next

চট্টগ্রামে প্রিটোরিয়াসের মুগ্ধতা ছড়ানো ব্যাটিং, আছে আক্ষেপও

Total
2
Share